রাজবাড়ীতে জমে উঠেছে কুটির শিল্প  চাই-দুয়ারীর বাজার

ঢাকা, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | 2 0 1

রাজবাড়ীতে জমে উঠেছে কুটির শিল্প  চাই-দুয়ারীর বাজার

মেহেদী হাসান মাসুদ, রাজবাড়ী প্রতিনিধি ৮:২৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০৯, ২০১৯

রাজবাড়ীতে জমে উঠেছে কুটির শিল্প  চাই-দুয়ারীর বাজার

বর্ষার নতুন পানির আগমনের সাথে সাথে খাল-বিল, নদ-নদীতে দেখা মেলে দেশীয় বিভিন্ন প্রজাতির মাছের আনাগোনা। আর এসব মাছ ধরতে প্রয়োজন হয় বাঁশের তৈরী চাই, ঘূর্নি বা দুয়ারীর। চিংড়িসহ ছোট মাছ  ধরতে এসব চাইয়ের রয়েছে প্রচুর চাহিদা। এ শিল্পকে কুটির শিল্পের সাথে তুলনা করেন হস্তশিল্প কারিগররা। রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার গোয়ালন্দ স্টেশন সংলগ্ন বাজারে জমে উঠেছে এসব মাছ ধরার যন্ত্রের হাট। প্রতিদিন এ হাটে হাজার হাজার মাছ ধরার চাই খুচরা ও পাইকারী দরে বিক্রি হয়। জেলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে এ যন্ত্র কিনতে আসেন ব্যাপারী ও জেলেরা।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মজিনুর রহমান বলেন, সাধারণত বর্ষা মৌসুমে মাছ ধরতে বাশের তৈরী  চাই বা দুয়ারী ব্যবহার করে থাকে আর জেলার গোয়ালন্দে এই চাইয়ের হাট বসে। যেখান থেকে জেলে ও ব্যবসায়ীরা চাই ক্রয় করে চিংড়ি মাছসহ বিভিন্ন ধরনের ছোট মাছ ধরতে এই চাইয়ের হাট বসে। এ চাই বা দুয়ারী যারা তৈরী করেন তাদের কাছ  থেকে যারা ছোট মাছ ধরেন তারা কিনে নেন বাজার থেকে এই মৌসুমে এ দুই শ্রেনীর মানুষ ছোট মাছ আহরন কওে জীবিকা নির্বাহ করেন ।

গোয়ালন্দ উপজেলার বিভিন্ন এলাকার বহু পরিবার চাই, ঘূর্ণি ও দুয়ারী তৈরির সাথে জরিত। বছরের বর্ষা মৌসুমের ৬ মাস তারা এসব মাছ ধারার যন্ত্র তৈরির কাজ করে থাকেন। বিভিন্ন জাতের বাঁশ দিয়ে এ যন্ত্র তৈরি করেন তারা। একটি বাঁশ দিয়ে ৬০  থেকে ৭০টি চাই তৈরি করা হয়, তবে একজন শ্রমিক একদিনে ১০ থেকে ১২টি এবং প্রকার ভেদে আরো বেশি চাই তৈরি করতে পারেন । গোয়ালন্দ বাজারে প্রতি শনিবার ও বুধবারে হাটে এ মাছ ধরার যন্ত্র চাই দুয়ারী বিক্রির জন্যে হাটে আনেন বিক্রেতারা। বাজারে মান ভেদে এসব ১০০শত চাই ৪হাজার টাকা থেকে সাড়ে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়ে থাকে। প্রতিটি চাই ৪০ থেকে ৫০ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়। এসব যন্ত্র তৈরির প্রতিটি বাঁশ কেনেন ৬০ থেকে ১০০ টাকার মধ্যে। এ যন্ত্রে ছোট মাছসহ চিংড়ি মাছ বেশি আটকা পড়ে।

ব্যাবসায়ীরা বলেন, তারা এসব চাই বাজার থেকে কিনে দুর দুরান্তের বিভিন্ন জেলায়  ব্যবসায়ের  জন্যে পাঠান। আবার কেউ কেউ জেলা ও জেলার বাইওে থেকে  এসে এই মাছ ধরার চাই কিনে নেন বিক্রির জন্যে।

বিক্রেতারা বলেন, বিভিন্ন জেলার জেলেরা ও ব্যবসায়ীরা এ বাজারে এসে চাই কিনে নিয়ে নেয়। বাজারে মানভেদে এসব ১০০শত চাই ৪হাজার টাকা থেকে সাড়ে ৫ হাজার টাকা পর্যন্ত বিক্রি হয়ে থাকে। তবে এবার চাইয়ের বাজার ভালো থাকায় তাদের খেয়ে পড়ে ভালোই যাচ্ছে দিন। তবে চায়না চাইয়ের কারনে তাদের হস্ত ও কুটির এ শিল্প বাজারে চাইয়ের কিছুটা ভাটা পরেছে। বাঁশের তৈরী এ কুটির শিল্প টিকিয়ে রাখতে  চায়না চাইয়ের বাজার বন্ধ করার অনুরোধ জানান ।

জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মো. মজিনুর রহমান বলেন, সাধারনত বর্ষা মৌসুমে মাছ ধরতে বাশের তৈরী  চাই বা দুয়ারী ব্যবহার করে থাকে আর জেলার গোয়ালন্দে এই চাইয়ের হাট বসে। যেখান থেকে জেলে ও ব্যবসায়ীরা চাই ক্রয় করে চিংড়ি মাছ সহ বিভিন্ন ধরনের ছোট মাছ ধরতে এই চাইয়ের হাট বসে। এ চাই বা দুয়ারী যারা তৈরী করেন তাদেও কাছ  থেকে যারা ছোট মাছ ধরেন তারা কিনে নেন বাজার থেকে এই মৌসুমে এ দুই শ্রেনীর মানুষ ছোট মাছ আহরন কওে জীবিকা নির্বাহ করেন।

এমএইচএম/এইচকে

 

ঢাকা: আরও পড়ুন

আরও