যোগাযোগ ব্যবস্থা বিঘ্ন হওয়ায় ত্রাণ পৌঁছাতে সময় লাগছে : দুযোর্গ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

যোগাযোগ ব্যবস্থা বিঘ্ন হওয়ায় ত্রাণ পৌঁছাতে সময় লাগছে : দুযোর্গ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ৮:১৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ২০, ২০১৯

যোগাযোগ ব্যবস্থা বিঘ্ন হওয়ায় ত্রাণ পৌঁছাতে সময় লাগছে : দুযোর্গ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী

দুযোর্গ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী ডা.  এনামুর রহমান এমপি বলেন, সারাদেশে একযোগে বন্যা শুরু হয়েছে। আমরা যথা সাধ্য চেষ্টা করছি বানভাসি মানুষের পাশে দাঁড়াতে। বন্যা চলাকালীন অবস্থায় আমাদের এই ত্রাণ কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে। তবে ত্রাণ দিয়ে আপনাদের ছোট করতে চাই না। তাই বন্যা শেষ হলেই আপনাদের এলাকা রক্ষা করতে বেড়িবাঁধের কাজ শুরু হবে। দেশে পর্যাপ্ত ত্রাণসামগ্রীর মজুদ রয়েছে। কিন্তু বণ্যার কারণে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিঘ্ন হওয়ায় ত্রাণসমাগ্রী পৌঁছাতে সময় লাগছে।

শনিবার বিকেলে টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর-তারাকান্দি সড়কের টেপিবাড়ী এলাকায় বাঁধ ভাঙন স্থান পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, আমাদের পর্যান্ত পরিমাণে ত্রাণসামগ্রী রয়েছে। দেশে ত্রাণসামগ্রীর কোন অভাব নেই। সারাদেশে চলমান বন্যা দীর্ঘস্থায়ী হবে না বলেও আশা করেছেন তিনি। সরকার, প্রশাসন ও জনগণ বন্যা কবলিত মানুষকে যেভাবে সেবা দেয়ার জন্য কাজ করছে বন্যা দীর্ঘস্থায়ী হলেও তারা একইভাবে সেবা দিয়ে যাবে। এ বছর বন্যার পুর্বাভাস পাবার পর থেকেই সকল প্রস্তুতি গ্রহণ করা হয়েছে।  ভূঞাপুরে গবাদীপশু আশ্রয়ের জন্য একটি মুজিবকেল্লা করা হবে।

অপরদিকে পানি সম্পদ মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী এ একে এম এনামুল হক শামীম বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সততায়, মেধায় ও যোগ্যতায় সেরা। তিনি মাদার অফ হিউম্যানিটি। আমাদের প্রধানমন্ত্রী সারা বিশ্বের সেরাদের সেরা একজন প্রধানমন্ত্রী। তিনি আমাদের নির্দেশ দিয়েছেন টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরের যমুনা নদীর অংশে ভাঙন কবলিত এলাকার পরিদর্শন করতে। পানিবন্দি মানুষের যা প্রয়োজন তার ব্যবস্থা করা ও বাঁধ নির্মাণের জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। ইতিমধ্যে ভূঞাপুর-তারাকান্দি সড়কের উপজেলার টেপিবাড়ী, তাড়াই এলাকায় ভাঙনকৃত রাস্তা মেরামেতের কাজ শুরু হয়ে গেছে। মেরামেত কাজে  প্রশাসন, সেনাবাহিনী, ফায়ার সার্ভিস, পুলিশ, স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও গ্রামবাসীরা যারা সহযোগিতা করেছেন তাদের ধন্যবাদ জানাই। আগামী ৬ মাসের মধ্য যমুনা নদীর পূর্বপাড়ের বেরী বাঁধের কাজ সম্পূর্ণ করা হবে। শুধু তাই নয় ত্রাণ বিতরণের পাশাপাশি বাঁধও দেয়া হবে।

পরে প্রতিমন্ত্রীসহ ভুঞাপুরের টেপিপাড়া এলাকায় ও গোবিন্দাসী বাজার ও বন্যা কবলিত প্রায় দুই হাজার পরিবারের মধ্যে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণ করা হয়।

এর আগে শনিবার দুপুরে টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসকের সভাকক্ষে জেলা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির বিশেষ সভা প্রধান অতিথির হিসেবে বক্তব্য রাখেন দুযোর্গ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী ডা.  এনামুর রহমান।

টাঙ্গাইলের জেলা প্রশাসক শহীদুল ইসলামের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পানিসম্পদ উপমন্ত্রী একেএম এনামুল হক শামিম, দুর্যোগ ব্যবস্থা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব শাহ কামাল।  এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন  জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ফজলুর রহমান খান ফারুক, সংসদ সদস্য হাসান ইমাম খান সোহেল হাজারী, আহসানুল ইসলাম টিটু, তানভীর হাসান ছোটমনির, আতাউর রহমান খান প্রমুখ।  এসময় বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

এএএন/এইচকে

 

ঢাকা: আরও পড়ুন

আরও