ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন করতে প্রস্তুত ‘দৌলতদিয়া ঘাট’

ঢাকা, সোমবার, ১৭ জুন ২০১৯ | ২ আষাঢ় ১৪২৬

ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন করতে প্রস্তুত ‘দৌলতদিয়া ঘাট’

মেহেদী হাসান মাসুদ, রাজবাড়ী ৬:৩৭ অপরাহ্ণ, মে ২৬, ২০১৯

ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন করতে প্রস্তুত ‘দৌলতদিয়া ঘাট’

দেশের দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চেলের ২১ জেলার প্রবেশদ্বার দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুট। এ নৌরুট দিয়ে প্রতিদিন গড়ে ৩ থেকে ৪ হাজার ছোট-বড় যানবাহন পারাপার হয়। তবে ঈদের সময় তা বেড়ে যায় কয়েকগুণ। আর এসময় যানজটসহ বিভিন্ন দুর্ভোগে পড়তে হয় এ রুটে চলাচলকারী যাত্রী, চালকদের।

তাই আসন্ন ঈদে যাত্রীদের দুর্ভোগ লাঘবে অতিরিক্ত লঞ্চ, ফেরি ও সবগুলো ঘাট চালুসহ নিরাপত্তা জোরদারে সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

স্বাভাবিক সময়ে ১২-১৪টি ফেরি চলাচল করলেও ঈদকে ঘিরে যাহবাহনের বাড়তি চাপ সামলাতে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে ২০টি ফেরি চালু রাখার উদ্যোগ নিয়েছে অভ্যন্তরীণ নৌ পরিবহন কর্তৃপক্ষ।

বর্তমানে ১৭টি ফেরি চালু রয়েছে। ঈদের আগেই আরও ৩টি ফেরি যুক্ত হবে। এরই মধ্যে ৬টি ঘাট মেরামত করে প্রস্তুত করা হয়েছে।

এছাড়া যাত্রী পারাপারের জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে ৩৪টি লঞ্চ। যাত্রাপথে কোনো ফেরি বিকল হলে তাৎক্ষণিক মেরামতের জন্য রয়েছে ভাসমান মেরামত কারখানা। আর ঈদের আগে ও পরের তিনদিন জরুরি পণ্যবাহী ট্রাক ছাড়া অন্য সব ধরনের ট্রাক ও লরি ফেরিতে পারাপার বন্ধ রাখার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

এদিকে, লঞ্চ ও বাসে অতিরিক্ত যাত্রী পরিবহন ও ভাড়া আদায় ঠেকাতে উভয় ঘাটেই দায়িত্ব পালন করবেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

২৪ ঘণ্টা নিরাপত্তায় থাকবে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর অতিরিক্ত সদস্যরা। বসানো হবে অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্প। সড়কপথ ও গুরুত্বপূর্ণ বিভিন্ন পয়েন্ট ছাড়াও যাত্রীদের নিরাপত্তায় নদীপথে টহল দেবেন নৌ পুলিশের সদস্যরা।

এ বিষয়ে যাত্রী ও চালকেরা বলেন, এবার ঈদে দৌলতদিয়া ঘাটে ভোগান্তি কম হবে বলে মনে করেন। কারণ এবার যথেষ্ট পরিমাণ ফেরি এ রুটে চলাচল করবে এবং ৬টি ফেরিঘাটের সব কটি চালু রয়েছে। তবে কোনো ধরনের প্রকৃতিক দুর্যোগ না হলে ঈদে ঘরমুখি মানুষ ভালোভাবে চলাচল করতে পারবে। ফেরিগুলো ঠিকমতো চলাচল করলে ঈদযাত্রায় কোনো ধরনের যানজট থাকবে না।

র‌্যাকার ড্রইভার বলেন, যদি কোনো গাড়ি বিকল হয়ে যায় তাৎক্ষণিক ব্যকস্থা গ্রহণের জন্য র‌্যাকার ভ্রাম্যমাণভাবে দৌলতদিয়া ঘাটে অবস্থান করছে।

বিআইডাব্লিউটিসি, দৌলতদিয়া সহকারী ঘাট ব্যবস্থাপক আবু অব্দুল্লাহ পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, বর্তমানে দৌলতদিয়ায়-পাটুরিয়া নৌরুটে ১৭টি ফেরি চলাচল করছে। তবে ঈদ উপলক্ষে বাড়তি চাপ পড়ার কারণে আরো দুটি মিলে মোট ১৯টি ফেরি এ রুটে চলাচল করবে। বড় ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হলে সবগুলো ঘাটই চালু থাকবে। ছোট খাটো কোনো ত্রুটি হলে পাটুরিয়ার ভাসমান কারখানায় মেরামতের জন্য ব্যবস্থা করা হয়েছে।

পুলিশ সুপার আসমা সিদ্দিকা মিলি পরিবর্তন ডটকমকে জানান, আমাদের জেলা পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় প্রতি বছরের ন্যায় এবারও সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করা হয়েছে। ঈদ উপলক্ষে দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায় যানজট নিরসন ও জন সাধারণ পারাপারে যে সমস্যাগুলো রয়েছে সে সম্পর্কে ঘাট সংশ্লিষ্টদের সাথে সব ধরনের মিটিং সম্পন্ন করা হয়েছে। তবে বিআইডব্লিউটিসি যদি পর্যাপ্ত ফেরির ব্যবস্থা রাখে এবং কোনো ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হয় তাহলে ঈদযাত্রা নির্বিঘ্ন থাকবে সাধারণ মানুষের।

রাজবাড়ী ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মো. আলমগীর হুছাইন বলেন, প্রত্যেক ঈদেই দৌলতদিয়া ঘাটে বিভিন্ন জেলার হাজার হাজার সাধারণ মানুষ ও যানবাহন চলাচল করে। এ কারণে পর্যাপ্ত লঞ্চ ও ফেরির ব্যবস্থা রেখেছেন যাতে অনাকাঙ্ক্ষিত যানজট না হয়। ঘাটে ইতোমধ্যে নানা ধরনের প্রতিবন্ধকতা নির্ধারণ করে তা নিরসনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। তবে রাস্তাগুলোর যেহেতু কাজ চলমান রয়েছে তাই ঈদের সময় যাতে পারাপারে আপাতত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয় তার জন্যে সড়ক ও জনপথ বিভাগকে নির্দেশনা দিয়েছেন। বড় ধরনের কোনো সমস্যা হবে না বলে জানান তিনি।

ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক জানান, দৌলতদিয়া ঘাটে যেন যানজট না হয় সে বিষয়ে সব প্রস্তুত রাখা হয়েছে এবং রাস্তাঘাটে যেন কোনো সমস্যা না হয় সে ক্ষেত্রে সার্বক্ষণিক মনিটরিং থাকবে।

এইচআর