ফরিদপুরে নির্যাতিত অবরুদ্ধ গৃহবধূকে উদ্ধার করলেন ইউএনও

ঢাকা, শুক্রবার, ২৬ এপ্রিল ২০১৯ | ১২ বৈশাখ ১৪২৬

ফরিদপুরে নির্যাতিত অবরুদ্ধ গৃহবধূকে উদ্ধার করলেন ইউএনও

ফরিদপুর প্রতিনিধি ৭:৫৪ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২২, ২০১৯

ফরিদপুরে নির্যাতিত অবরুদ্ধ গৃহবধূকে উদ্ধার করলেন ইউএনও

ফরিদপুরের বোয়ালমারীতে নির্যাতিত ও অবরুদ্ধ এক গৃহবধূকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করেছেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ জাকির হোসেন।

মঙ্গলবার বিকেলে উপজেলার সাতৈর ইউনিয়নের ধরনিধরদী গ্রাম থেকে অসুস্থ অবস্থায় উদ্ধার করা হয় ওই গৃহবধূকে।

পরে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ কর্মকর্তা তাপস বিশ্বাসের তত্ত্বাবধানে তাকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়।

নির্যাতিত গৃহবধূ রেহেনা পারভিন (৩২) জানান, সাড়ে ছয় বছর আগে ধরনিধরদী গ্রামের মৃত মহিউদ্দিন শেখের ছেলে মজিবর রহমান শেখের সঙ্গে তার বিয়ে হয়। বড় ছেলের জন্মের ৬ মাস পর থেকেই নানা ছুতোয় তাকে বাড়ির সবাই মিলে মারধর করে। স্বামী মজিবর রহমানের সাথে শাশুড়ি শাবজান বেগম, ভাশুর ফরিদ শেখ ও আফসার তাকে নির্যাতন করত।

মঙ্গলবার সকালে তাকে চলা কাঠ দিয়ে পিটিয়ে মারাত্বক আহত করে ঘরে অবরুদ্ধ করে রাখে।

ইউএনও জাকির হোসেন বলেন, তিনি ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) মুহাম্মদ ওয়াসিকুল ইসলাম সাতৈরয়ে একটা মিটিংয়ে ছিলেন।

উপজেলা মহিলা বিষয়ক কর্মকর্তা ইলা রানি কুন্ডু থেকে বিষয়টি জানার পর দু’জন মিলে অভিযান চালিয়ে স্বামীর বাড়িতে অবরুদ্ধ থাকা রেহেনাকে উদ্ধার করা হয়। রেহেনার দুই শিশুপুত্র তার সঙ্গে রয়েছে।

ইউএনও বাড়িতে হাজির হওয়ার পর ওই গৃহবধূ রেহেনা পারভিনের স্বামী মজিবর রহমান পালিয়ে যান।

রেহেনার ভাশুর ফরিদ শেখ জানান, রেহেনা তার স্বামীকে গালিগালাজ করতো। এনিয়ে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে বচসা থেকে এ ঘটনা ঘটেছে।

ইউএনও জাকির হোসেন জানান, ওই গৃহবধূ সুস্থ হয়ে স্বামী ও শ্বশুরবাড়ির লোকদের বিরুদ্ধে নারী নির্যাতনসহ আইনগত ব্যবস্থা নিতে চাইলে তাকে সে সুযোগ করে দেয়া হবে।

এইচআর