অন্তঃসত্ত্বার মৃত্যুর পরই পালালেন চিকিৎসক-নার্সরা

ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৬ মার্চ ২০১৯ | ১২ চৈত্র ১৪২৫

অন্তঃসত্ত্বার মৃত্যুর পরই পালালেন চিকিৎসক-নার্সরা

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ৯:২১ পূর্বাহ্ণ, আগস্ট ১৮, ২০১৮

অন্তঃসত্ত্বার মৃত্যুর পরই পালালেন চিকিৎসক-নার্সরা

টাঙ্গাইলে অবহেলা ও ভুল চিকিৎসায় স্বর্ণা বেগম (২০) নামে এক অন্তঃসত্ত্বার মৃত্যু হয়েছে।  শুক্রবার রাতে টাঙ্গাইল শহরের ফাতেমা মডার্ন হাসপাতালে এ ঘটনা ঘটে। এরপর থেকে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক, নার্স ও স্টাফরা পলাতক রয়েছেন।

স্বর্ণা বেগম টাঙ্গাইল সদর উপজেলা বেড়াবুচনা সবুজবাগ এলাকার মো. শাহিনুরের মেয়ে। তিনি সরকারি এমএ আলী কলেজের অর্নাস তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী ছিলেন।

নিহতের বাবা পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘পেটে ব্যথা উঠলে স্বর্ণাকে শহরের ফাতেমা মডার্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। আলস্ট্রা সনোসহ নানা পরীক্ষা-নিরীক্ষা শেষে বিকেলে ডা. সুফিয়ার বেগমের নেতৃত্বে অপারেশন করা হয়।’

তিনি বলেন, ‘অপারেশন শেষে সন্ধ্যার দিকে স্বর্ণাকে আনা হয়। এরপর সে আর কোনো কথা বলেনি। চিকিৎসকরা জানান, তাকে ব্যথার ইনজেকশন দেয়া হয়েছে, কিছুক্ষণের মধ্যেই জ্ঞান ফিরবে। দীর্ঘ সময়েও জ্ঞান না ফেরায় সন্ধ্যা সাড়ে ৭টার দিকে ডাক্তার ডাকা হলে তারা এসে স্বর্ণাকে মৃত ঘোষণা করেন।’

কান্নাজড়িত কণ্ঠে শাহিনুর বলেন, ‘ভুল চিকিৎসায় অপারেশন থিয়েটারেই আমার মেয়ের মৃত্যু হয়েছে। কিন্তু, তারা সেটি জানাইনি। আমরা এর সঠিক বিচার চাই।’

নিহতের স্বজনেরা আরো জানান, ঘটনার পর থেকে হাসপাতালের সব ডাক্তার ও নার্স পালিয়ে গেছেন।

স্বর্ণা দেড় মাসের অন্তঃসত্ত্বা ছিলেন। তার ৯ মাস বয়সী আরেকটি মেয়ে রয়েছে।

টাঙ্গাইলের ক্লিনিক মালিক সমিতির সভাপতি শিবলী সাদিক পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, ‘তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

তবে পলাতক থাকায় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি।

এএএন/আইএম