টাঙ্গাইলে প্রশ্নফাঁসের অভিযোগে ৪ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার, একজনকে কারাদণ্ড

ঢাকা, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮ | ৩০ কার্তিক ১৪২৫

টাঙ্গাইলে প্রশ্নফাঁসের অভিযোগে ৪ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার, একজনকে কারাদণ্ড

টাঙ্গাইল প্রতিনিধি ৩:৪২ পূর্বাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১৮

টাঙ্গাইলে প্রশ্নফাঁসের অভিযোগে ৪ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার, একজনকে কারাদণ্ড

টাঙ্গাইলে বিভিন্নস্থানে প্রশ্ন ফাঁসের অভিযোগে ৪ শিক্ষার্থীকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এ ছাড়া ফাঁস হওয়া প্রশের উত্তর বোনকে দিতে গিয়ে চাচাতো ভাইকে কারাগারে এবং কেন্দ্রে দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগে দুই শিক্ষককে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর, মির্জাপুর এবং বাসাইল উপজেলায় এ ঘটনা ঘটে।  

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে এসএসসি পরীক্ষার জন্য হলে প্রবেশের আগেই প্রশ্নফাঁসের অভিযোগে চারজন শিক্ষার্থীকে বহিস্কার ও বহিরাগত একজনকে আটক করা হয়েছে। মঙ্গলবার পদার্থ পরীক্ষায় ভূঞাপুর পাইলট সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় মাঠের বাইরে থেকে তাদের বহিস্কার ও আটক করা হয়। আটক আব্দুল কাইয়ুম উপজেলার অর্জুনা গ্রামের আইয়ুব খানের ছেলে।

এ ব্যপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ভারপ্রাপ্ত) শরিফ আহম্মেদ বলেন, ভূঞাপুর পাইলট সরকারি বিদ্যালয় কেন্দ্রের বাইরে কয়েকজন শিক্ষার্থী হলে প্রবেশ না করে মোবাইল ফোনে প্রশ্ন দেখছিল। এমন সময় সেখানে উপস্থিত হলে প্রশ্নফাঁসের মুলহোতা পাপ্পু পালিয়ে যায়। পরে এঘটনায় ৪জন শিক্ষার্থীকে বহিস্কার করা হয়। পরে বহিরাগত ইবরাহীম খাঁ সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী সিজেন খান ওরফে আব্দুল কাইয়ুমকে আটক করে পুলিশে সোর্পদ করা হয়েছে।

অন্যদিকে ফাঁস হওয়া প্রশের উত্তর বোনকে দিতে গিয়ে চাচাতো ভাই জাকির হোসেনকে (৩০) চার মাসের কারাদণ্ড ও এক হাজার টাকা জরিমানা করেছেন ভ্রাম্যমান আদালত।  মির্জাপুর কলেজ ভেন্যুর বাইরে ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক আজগর হোসেন এই দণ্ডাদেশ দেন।  জাকির এ উপজেলার বহুরিয়া ইউনিয়নের খাগুটিয়া গ্রামের আব্দুর রহমানের ছেলে।
জানা যায়, মঙ্গলবার সকালে পদার্থ বিজ্ঞান বিষয়ের পরীক্ষা ছিল। মির্জাপুরের এসকে পাইলট উচ্চবিদ্যালয় কেন্দ্রের কলেজ ভেন্যুতে সকাল ১০টায় পরীক্ষা শুরুর আগেই জাকির তার মোবাইল ফোনে উত্তরপত্র পেয়ে যায়। পরে তার চাচাতো বোন কনিকাকে ওই প্রশ্ন দেয়ার জন্য কলেজের দক্ষিণ পাশে যায়। এ সময় জাকিরকে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আজগর হোসেন আটক করে তল্লাশি করলে তার ফোনে প্রশ্নপত্র পান। পরে জাকিরকে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে চার মাসের সাজা ও এক হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেন।

এছাড়া কলেজ ভেনুতে আকাশ সরকার নামে এক ছাত্রকে নকলসহ হাতেনাতে ধরে বহিষ্কার করা হয়েছে। আকাশ সদরের আলহাজ শফি উদ্দিন মিঞা অ্যান্ড একাব্বর হোসেন টেকনিক্যাল কলেজের ছাত্র।
এ ব্যাপারে উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) আজগর হোসেন বলেন, পাবলিক পরীক্ষা অপরাধ আইনের দন্ডবিধি ১৮৬০ এর ১৮৮ ধারায় ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে তাকে চার মাসের বিনাশ্রম কারাদ- দেয়া হয়েছে। এছাড়া কলেজ ভেন্যুতে নকলসহ হাতেনাতে ধরে একজনকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

অন্যদিকে বাসাইলে এসএসসি পরীক্ষার কেন্দ্রে দায়িত্ব অবহেলার দায়ে দুই শিক্ষককে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। মঙ্গলবার পরীক্ষা চলাকালীন সময়ে বাসাইল গোবিন্দ সরকারী উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রে এ ঘটনা ঘটে। অব্যাহতিপ্রাপ্ত শিক্ষকরা হলোÑ  উপজেলার কাউলজানী লুৎফা শান্তা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শাহ আলম ও মিরিকপুর গঙ্গাচরণ তপশিলী উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক সালাউদ্দিন।
এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শামছুন নাহার স্বপ্না বলেন, পরীক্ষার কেন্দ্রে  দায়িত্ব অবহেলার অভিযোগে দুই শিক্ষককে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। ওই শিক্ষকরা চলতি পরীক্ষার কোন দায়িত্ব পালন করতে পারবেন না।

এএএন/আরজি