নির্বাচনী সহিংসতা, তিনদিনের মধ্যে পুলিশের প্রতিবেদন চায় ইসি

ঢাকা, রবিবার, ২৪ মার্চ ২০১৯ | ৯ চৈত্র ১৪২৫

নির্বাচনী সহিংসতা, তিনদিনের মধ্যে পুলিশের প্রতিবেদন চায় ইসি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ১২:২৯ পূর্বাহ্ণ, ডিসেম্বর ১৩, ২০১৮

নির্বাচনী সহিংসতা, তিনদিনের মধ্যে পুলিশের প্রতিবেদন চায় ইসি

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে মঙ্গলবার দুইজনের প্রাণহানীসহ তিন জেলায় সহিংসতার ঘটনায় পুলিশেরর কাছে প্রতিবেদন চেয়েছে নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

 

সূত্র জানায়, ফরিদপুর ও নোয়াখালীতে আওয়ামী লীগের দু’জন কর্মী নিহত ও ঠাকুরগাঁওয়ে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের গাড়িবহরে হামলার ঘটনা ঘটনায় পুলিশকে তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দিতে বলা হয়েছে।

পুলিশের মহাপরিদর্শককে দেয়া চিঠিতে ওইসব ঘটনার সময়ে পরিস্থিতি কী ছিল, ওইসব ঘটনায় কী ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এসব বিষয়ে জানাতে বলা হয়েছে।

ইসি সূত্র জানায়, এ তিনটি ঘটনার পরিস্থিতি প্রতিবেদন পেলে, নির্বাচনী এলাকাগুলোতে যে ১২২টি নির্বাচনী তদন্ত কমিটি রয়েছে সেখানে তাদের কাছে দেয়া হবে। বাকি ঘটনার অভিযোগ পেলে এসব কমিটি খতিয়ে দেখে ইসিকে রিপোর্ট দেবে। ওই রিপোর্টের আলোকে ব্যবস্থা নেবে কমিশন।

সূ্ত্র আরো জানায়, বৃহস্পতিবার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে বৈঠকে নির্বাচন পূর্ব সময়ে সহিংসতার বিষয়ে আলোচনা প্রাধান্য পাবে। ওই সভার কার্যপত্রেও এ সময়ের আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে রাখার বিষয়টি উল্লেখ রয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচনের অন্যতম শর্ত হলো নির্বাচন পূর্ব পরিবেশ শান্তিপূর্ণ রাখা এবং প্রাক-নির্বাচনী বিভিন্ন অপরাধ যাতে না ঘটে এজন্য এখন থেকেই ব্যবস্থা গ্রহণ করা। এছাড়া এ সময়ে মাস্তান, চিহ্নিত অপরাধী ও সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতেও নির্দেশনা দেয়া হচ্ছে। ওই কার্যপত্রে নির্বাচনের আগে বৈধ অস্ত্রের প্রদর্শনের উপর নিষেধাজ্ঞা আরোপের প্রস্তাব করা হয়েছে।

এছাড়া আরেক নির্দেশনায় আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি সম্পর্কে প্রতিদিন তথ্য দিতে রিটার্নিং কর্মকর্তাদের নির্দেশনা দিয়েছে কমিশন। আচরণ বিধিমালা যথাযথ পরিপালন এবং আইনানুগ সুষ্ঠু, সুন্দর ও শান্তিপূর্ণভাবে নির্বাচন অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে নির্বাচনী এলাকার আইনশৃঙ্খলাসহ সার্বিক পরিস্থিতির সম্পর্কে কোনোরূপ ব্যর্থতা ছাড়াই প্রতিদিন সকাল ১০টার মধ্যে তথ্য জানাতে বলা হয়েছে। এতে আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির বর্তমান অবস্থা ও নির্বাচনের সার্বিক পরিস্থিতি উল্লেখ করতে বলা হয়েছে।

এদিকে নির্বাচনী প্রচারে সহিংস ঘটনায় বুধবার ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প্রতিনিধি দল প্রধান নির্বাচন কমিশনার কে এম নূরুল হুদার সঙ্গে সাক্ষাত করে উদ্বেগ প্রকাশ করেন।

সহিংসতার এসব ঘটনায় কমিশন বিব্রত ও ব্যথিত উল্লেখ করে সব প্রার্থী ও তাদের সমর্থকদের ধৈর্যশীল আচরণ করার জন্য অনুরোধ জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদা।

এইচকে/এআরই