‘আমার ভোট আমি দেবো, শেখ হাসিনা ছাড়া কাকে দোবো?’

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৭ জানুয়ারি ২০১৯ | ৪ মাঘ ১৪২৫

‘আমার ভোট আমি দেবো, শেখ হাসিনা ছাড়া কাকে দোবো?’

সালাহ উদ্দিন জসিম, গোপালগঞ্জ থেকে ৮:২৯ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ১২, ২০১৮

‘আমার ভোট আমি দেবো, শেখ হাসিনা ছাড়া কাকে দোবো?’

শিরোনাম দেখে যেকেউ নেগেটিভ ভাবতে পারনে। না এ সুযোগ নেই। এটি শেখ হাসিনার নির্বাচনী এলাকা গোপালগঞ্জ-৩ (টুঙ্গিপাড়া-কোটালীপাড়া) আসনের মানুষের স্লোগান। বুধবার শেখ হাসিনার নির্বাচনী এলাকায় প্রচারণা শুরুর দিনে জনসভায় জনতার স্লোগান ছিল এটি। 

জনসভায় আওয়ামী লীগের ধর্ম সম্পাদক শেখ আবদুল্লাহ অনানুষ্ঠানিক বক্তব্য দিচ্ছিলেন, এসময় তিনি নৌকায় ভোট চেয়ে বলে ওঠেন- ‘আমার ভোট আমি দেবো, শেখ হাসিনা ছাড়া কাকে দেবো?’ মুহুর্তেই যেন এ স্লোগান জনসভায় আগত সবার স্লোগানে রূপ নেয়। শেখ আবদুল্লাহর সঙ্গে নৌকা নৌকা স্লোগানে প্রকম্পিত হয় পুরো এলাকা।

প্রতীক বরাদ্দের পর আজ বুধবার থেকে আনুষ্ঠানিক প্রচারণায় নেমেছেন প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা। বুধবার দুপুরে টুঙ্গিপাড়ায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিসৌধে শ্রদ্ধা জানিয়ে প্রচারণা শুরু করেন তিনি। এরপর বিকালে কোটালীপাড়ার শেখ লুৎফর রহমান আদর্শ সরকারি কলেজ মাঠে প্রথম নির্বাচনী জনসভা করেন।

ছোটবোন শেখ রেহানাকে নিয়ে জন্মভূমির মানুষের কাছে ভোট চাইতে যান শেখ হাসিনা। তাদের উপস্থিতিতে আবেগ আপ্লুত হয় গোপালগঞ্জের মানুষ। তারা যেনো নিজেদের আপনজন কাছে পেয়েছেন। মানুষের সমাগম জনসভাস্থল ছাপিয়ে পাশের লেকের পাড়, বাড়ির ছাদ এমনকি গাছেও ঠাঁই হয় মানুষের। বক্তব্যে শেখ হাসিনাও তাদের পরম সমর্থন আর ভালোবাসার স্বীকৃতি দেন।

এসময় নিজ নির্বাচনী এলাকার মানুষদের উদ্দেশ্যে শেখ হাসিনা বলেন, ‘পিতা-মাতা, ভাই হারা আমার আপন বলতে এই ‘ছোটবোন’ ছাড়া কেউ নেই। আর আছেন শুধু আপনারা। আপনারাই আমাদের বাবা-মা-ভাইয়ের স্নেহ দিয়েছেন। আমরা যখন দুইবোন দেশে এসেছিলাম আপনারা আমাদের দায়িত্ব নিয়েছেন। আপনারা আমাকে ভোট দিয়ে দেশের মানুষের সেবা করার সুযোগ দিয়েছেন। আপনাদের মাঝে বাবা-মা-ভাইদের খুঁজে পাই।’

তিনি বলেন, ‘সারাদেশের ৩০০ আসনের খবরাখবর নিতে হয় আমার। তাদের দায়িত্ব আমার কাঁধে। আর আমার দায়িত্ব আপনাদের কাঁধে। যথারীতি আবারও আপনাদের হাতেই আমি দায়িত্ব দিয়ে যাচ্ছি। আপনারা আমাকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে দেশের মানুষের সেবা করা সুযোগ দেবেন।’

এসময় তিনি দেশবাসীর কাছেও নৌকা মার্কায় ভোট চান। শেখ হাসিনা বলেন, ‘মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী, যুদ্ধাপরাধী, খুনি ও স্বাধীনতাবিরোধীদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে যারা ক্ষমতায় আসতে চায়, তাদেরকে উপযুক্ত জবাব দিতে হবে নৌকায় ভোট দেয়ার মাধ্যমে। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী পালনের বছরে যেন তারা সরকারে না আসতে পারে। এজন্য আমি দেশবাসীর কাছে আবেদন রাখবো, আপনারা নৌকায় ভোট দিন।’

জনসভায় সভাপতিত্ব করেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সুভাষ চন্দ্র জয়ধর। শেখ হাসিনা ছাড়াও জনসভায় আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য কাজী আকরাম উদ্দিন আহমেদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম, কর্নেল (অব.) ফারুক খান, যুগ্ম সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বাহাউদ্দীন নাছিম, বিএম মোজাম্মেল, চিত্রনায়ক রিয়াজ ও ফেরদৌস বক্তব্য দেন।

এছাড়াও শেখ হেলাল এমপি, শেখ জুয়েল, আওয়ামী লীগের আন্তর্জাতিক সম্পাদক ড. শাম্মী আহমেদ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক প্রকৌশলী আবদুস সবুর, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক হারুনুর রশীদ, কার্যনির্বাহী সদস্য এসএম কামাল হোসেন, যুবলীগের চেয়ারম্যান ওমর ফারুক চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক হারুনুর রশীদ, ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি মাহমদ হাসান রিপন, এইচএম বদিউজ্জামান সোহাগ, বর্তমান সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বনানীসহ গোপালগঞ্জ জেলা ও কোটালীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

এর আগে দুপুর পৌনে ২টার দিকে শেখ হাসিনা টুঙ্গিপাড়ায় পৌঁছান। সেখানে তিনি নিজের নির্বাচনী এলাকা গোপালগঞ্জ-৩ (টুঙ্গিপাড়া- কোটালীপাড়া) থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে নির্বাচনী প্রচারণা শুরুর আগে বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা জানান।

বৃহস্পতিবার সড়কপথে ঢাকা ফেরার পথে ফরিদপুরের ভাঙ্গা মোড়, ফরিদপুর মোড়, রাজবাড়ী মোড়, পাটুরিয়া ফেরিঘাট, মানিকগঞ্জ বাসট্যান্ড, ধামরাই রাবেয়া মেডিকেল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতাল মাঠে ও সাভার বাসস্ট্যান্ডে নির্বাচনী প্রচার কর্মসূচিতে অংশ নেবেন প্রধানমন্ত্রী।

এসইউজে/এফএম

আরো পড়ুন...
বঙ্গবন্ধুর মাজার জিয়ারতে নির্বাচনী প্রচারণা শুরু করবেন প্রধানমন্ত্রী
টুঙ্গীপাড়ার পথে শেখ হাসিনা
টুঙ্গিপাড়ায় শেখ হাসিনা
বঙ্গবন্ধুর সমাধিতে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন শেখ হাসিনা
কোটালীপাড়ায় শেখ হাসিনার নির্বাচনী জনসভা শুরু
নৌকার প্রার্থীদের ভোট দেয়ার আহ্বান শেখ হাসিনার