আফগানিস্তানের ৪, বাংলাদেশের একজনও নয়!

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

আফগানিস্তানের ৪, বাংলাদেশের একজনও নয়!

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:০৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২১, ২০১৯

আফগানিস্তানের ৪, বাংলাদেশের একজনও নয়!

গতকাল রাতে লন্ডনে হয়ে গেল নতুন প্রচলন হতে চলা ‘দ্য হান্ড্রেড’ বা ‘১০০ বলের’ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের খেলোয়াড় নিলাম। লন্ডনের নিলাম অনুষ্ঠানটিতে এক অর্থে বাংলাদেশের হারই লেখা হলো! বাংলাদেশের কোনো খেলোয়াড়ের দল না পাওয়াটা তো এক ধরনের হারই!

সাকিব আল হাসান তামিম ইকবাল, মুশফিকুর রহিম, মোস্তাফিজুর রহমানসহ বাংলাদেশের মোট ১১ জন ক্রিকেটারের নাম উঠেছিল খেলোয়াড় ড্রাফটে। কিন্তু তাদের একজনকেও কিনেনি ‘দ্য হান্ড্রেড’ টুর্নামেন্টের কোনো ফ্যাঞ্চাইজি। সাকিব-তামিম-মুশফিক, কারো ডাক না পাওয়ার পেছনে অবশ্য বড় একটা কারণও আছে।

নতুন ভাবে প্রচলন হতে যাওয়া ‘১০০ বলের’ ক্রিকেট টুর্নামেন্টটি হবে আগামী বছর অর্থাৎ ২০২০ সালের জুলাইয়ে-আগস্টে। ঠিক ওই সময়টাতেই নিউজিল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে সিরিজ আছে বাংলাদেশের। ফলে দল পেলেও হয়তো সাকিব-তামিমরা নতুন রোমাঞ্চ জাগানো এই টুর্নামেন্টে খেলতে পারতেন না।

তবে খেলতে পারুক বা না পারুক, নিলামে ১১ জনের মধ্যে কারো দল না পাওয়াটা এক রকম হারই। তাছাড়া আগামী বছর ওই টুর্নামেন্টের সময়ে বাংলাদেশ যাদের বিপক্ষে সিরিজ খেলবে, সেই নিউজিল্যান্ডের ক্রিকেটাররা কিন্তু ঠিকই দল পেয়েছেন। তাই গতকালের লন্ডনের নিলাম অনুষ্ঠানটি বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের জন্য স্বপ্নভঙ্গেরই মঞ্চ ছিল।

বাংলাদেশের ঠিক বিপরীত অবস্থা ছিল আফগানিস্তানের জন্য। যেখানে বাংলাদেশের একজনও দল পাননি, সেখানে আফগান ক্রিকেটারদের জয়জয়কার। তারকা স্পিনার রশিদখানসহ আফগানিস্তানের মোট ৪ জন ক্রিকেটার দল পেয়েছেন ‘দ্য হান্ড্রেড’-এ!

রশিদ খানের নাম আলাদা করে বলার কারণ, লন্ডনের খেলোয়াড় নিলামে বিদেশি ক্রিকেটারদের মধ্যে সবার আগে বিক্রি হয়েছেন তিনি। মানে ফ্যাঞ্চাইজি গুলোর মধ্যে তাকে কেনার আগ্রহই ছিল সবচেয়ে বেশি! রশিদ খানের সঙ্গে দল পাওয়া অন্য তিন ক্রিকেটার হলেন মুজিব-উর রহমান, মোহাম্মদ নবী ও কায়েস আহমেদ।

মানে দল পাওয়া আফগানিস্তানের ৪ জনই স্পিনার! বোঝাই যাচ্ছে, আফগান স্পিনারদের প্রতি বিশেষ আগ্রহ ছিল ফ্যাঞ্চাইজিদের। আফগানিস্তান ছাড়াও নিলামে আইসিসির সহযোগি সদস্য নেপাল এবং নেদারল্যান্ডসের একজন করে ক্রিকেটার দল পেয়েছেন। নেপালের সন্দ্বীপ লামিছানে এবং নেদারল্যান্ডসের রায়ান টেন-ডেসকাটের মতো ক্রিকেটারদের স্বপ্ন পূরণ হয়েছে। সেখানে বাংলাদেশের কারো নয়।

আরও একটি বিস্ময়কর তথ্য হলো, ক্রিস গেইল, লাসিথ মালিঙ্গা, শহীদ আফ্রিদি, ক্যাগিসো রাবাদার মতো বিশ্ব তারকারাও রয়ে গেছেন অবিক্রিত। তাদেরকে কেনার বিন্দুমাত্র আগ্রহ দেখায়নি কোনো দল!

এর মাধ্যমে হয়তো ‘দ্য হান্ড্রেড’-এর ফ্যাঞ্চাইজিগুলো এই বার্তাই দিয়ে দিল, পুরোনোদের নয়, নতুন টুর্নামেন্টে নতুনদের উপরই বেশি আস্থা তাদের। সঙ্গে লন্ডনের খেলোয়াড় ড্রাফট অনুষ্ঠান যেন টি-টোয়েন্টিতে বাংলাদেশিদের দুর্বলতাটাই দেখিয়ে দিল অন্যভাবে।

ওয়ানডেতে বাংলাদেশ অবশ্যই সমীহ জাগানিয়া দল। ধীরে ধীরে উন্নতির সিঁড়ি বেয়ে হাঁটছে টেস্টেও। কিন্তু সংক্ষিপ্ত সংস্করণ টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট যেন এখনো রহস্যই রয়ে গেছে বাংলাদেশের কাছে। টি-টোয়েন্টিতে এখনো বাংলাদেশ নিজেদের সমীহ জাগানিয়া দল হিসেবে প্রমাণ করতে পারেনি, যতটা পেরেছে আফগানিস্তান!

ইংল্যান্ডের ‘১০০ বলের ক্রিকেট’ বাংলাদেশের কারো দল না পাওয়ায় সেই দুর্বলতার বার্তাটিও যেন স্পষ্ট। মানে টি-টোয়েন্টিতে নিজেদের দুর্বলতাটাও ‘দ্য হান্ড্রেড’-এ ডাক না পাওয়া একটা কারণ।

কেআর

 

ক্রিকেট: আরও পড়ুন

আরও