মুথুসামী-পিয়েতের দেয়াল ভেঙে জিতল ভারত

ঢাকা, রবিবার, ১৩ অক্টোবর ২০১৯ | ২৭ আশ্বিন ১৪২৬

মুথুসামী-পিয়েতের দেয়াল ভেঙে জিতল ভারত

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:৪৬ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০৬, ২০১৯

মুথুসামী-পিয়েতের দেয়াল ভেঙে জিতল ভারত

এই এক টেস্টেই এত্তোগুলো রেকর্ড গড়েছেন রোহিত শর্মা। যার মধ্যে ৩টি বিশ্ব রেকর্ড। ব্যাট হাতে রোহিতের কীর্তিগুলোর মর্যাদা রাখতেও বিশাখাপত্তম টেস্টে ভারতের জয়টা দরকার ছিল। মোহাম্মদ সামি-রবীন্দ্র জাদেজাদের শেষ দিনের চমকে জয়টা ঠিকই পেয়েছে ভারত। তৃতীয় দিন শেষেও যে টেস্টে ড্র’টাকে মনে হচ্ছিল নিয়তি, সামি-জাদেজার তোপে সেই বিশাখাপত্তম টেস্টেই ভারত জিতল প্রায় দেড় সেশন বাকি থাকতে!

বিরাট কোহলির জয়টাও পেয়েছে ২০৩ রানের বিশাল ব্যবধানে। ভারতের ছুড়ে দেওয়া ৩৯৫ রানের চ্যালেঞ্জের জবাবে সফরকারী দক্ষিণ আফ্রিকা চতুর্থ ইনিংসে ১৯১ রানেই অলআউট। বিশাল এই জয় স্বাগতিক ভারতকে শুধু সিরিজে ১-০তে এগিয়ে দেয়নি, রোহিত শর্মার অনন্য কীর্তিগুলোকে দিয়েছে প্রাপ্য সম্মান।

তৃতীয় দিন পর্যন্ত সম্ভাব্য ড্রয়ের রেলগাড়ি হয়ে চলা বিশাখাপত্তম টেস্টে জয়-পরাজয়ের উত্তেজনাটা তৈরি করেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। চতুর্থ দিনের শেষ বিকালে নাটকীয় ইনিংস ঘোষণার মাধ্যমে। অধিনায়কের সেই জয় স্বপ্নকে হাতের মুঠোয় পুরতে আজ বল হাতে অবিশ্বাস্য জাদু দেখিয়েছেন রবীন্দ্র জাদেজা ও মোহাম্মদ সামি। স্পিন ও পেসের যুগলবন্দিতে দুজনে নাকাল করেছেন সফরকারী প্রোটিয়াদের।

প্রথম ইনিংসে ১৬০ রানের দুর্দান্ত ইনিংস খেলা ডিন এলগারকে আউট করে আগের দিনই জয়ের ইঙ্গিতটা দিয়ে রেখেছিলেন বাঁ-হাতি স্পিনার জাদেজা। ১ উইকেটে ১১ রান নিয়ে দিন শুরু করে জাদেজা-সামির তোপের মুখে আজ সকালেই ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয় দক্ষিণ আফ্রিকা। সকালে মাত্র ৫৯ রানের মধ্যে আরও ৭ উইকেট হারিয়ে প্রোটিয়ারা পরিণত হয় ৮ উইকেটে ৭০ রানের দলে। ড্র’র পথ ধরে হাঁটা বিশাখাপত্তমে ভারতের জয়টা তাই নিশ্চিত হয়ে যায় সকালেই।

কিন্তু রোহিত, মায়াঙ্ক, ডিন এলগারদের এমন ব্যাটিং প্রদর্শনীর ম্যাচের শেষটা নিষ্প্রাণ হওয়া কি মানায়! শেষটা উত্তেজনাকর না হলে চলে! তাই শেষের আগেও হলো দুর্দান্ত এক নাটক। যে নাটকের কুশিলব দুজন। ৭০ রানেই ৮ উইকেট হারিয়ে ফেলা দলের লেগের দিকের দুই ব্যাটসম্যান সেনুরাম মুথুসামী ও ড্যান পিয়েত। প্রথম জনের এটাই অভিষেক টেস্ট। অন্যজনের এটা ৮ম টেস্ট হলেও, তনি মূলত বোলার। স্পিন বোলিং করাই তার কাজ।

তো শেষের নাটক জমিয়ে তুলতেই লেগের দিকের এই দুই ব্যাটসম্যান ধ্বংসস্তূপে দাঁড়িয়ে গড়ে তুললেন প্রতিরোধের দেয়াল। সকালে দলের শীর্ষ ব্যাটসম্যানরা যাদের সামনে দাঁড়াতেই পারেননি, সেই জাদেজা-সামির তোপ সামলে ৯ম উইকেটে দুজনে গড়লেন ৯১ রানের জুটি। তাদের জুটি সকালেই হেরে বসা টেস্টে দক্ষিণ আফ্রিকাকে আবার ড্র’র স্বপ্ন দেখাতে শুরু করে!

কিন্তু সামি তা হতে দেবেন কেন! সেটা হতে দিলে যে তার সকালের আগুন ঝরানো বোলিংয়ের কোনো মূল্যই থাকে না! তাই নিজের বোলিংয়ের মূল্য যাতে থাকে, সেটাই করলেন সামি। শুধু দেয়াল হয়ে উঠা মুথুসামী-পিয়েতের জুটিই তিনি ভাঙেননি, শেষ দুটি উইকেট তুলে নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস মুড়িয়ে দিয়েছেন তিনিই।

সামি বাধার দেয়াল হয়ে দাঁড়ানো জুটিটা ভাঙেন ড্যান পিয়েতের স্টাম্প উপড়ে ফেলে। দুর্দান্ত এক ডেলিভারিতে পিয়েতকে সরাসরি বোল্ড করেছেন তিনি। তার আগেই অবশ্য ক্যারিয়ারের প্রথম হাফসেঞ্চুরিটা তুলে নিয়েছেন পিয়েত। খেলেছেন ১০৭ বলে ৫৬ রানের ধৈর্যশীল ইনিংস।

পিয়েত বিদায় নেওয়ার পর ক্যাগিসো রাবাদাকে নিয়েও প্রতিরোধের চেষ্টা চালান অভিষিক্ত মুথুসামী। দুজনে মিলে ১০ম উইকেটে ৩০ রানের জুটিও গড়েন। কিন্তু এই জুটিকেও সফল হতে দেননি সামি। রাবাদাকে বিদায়ের মধ্যদিয়ে শেষ করে দিয়েছেন দক্ষিণ আফ্রিকানদের দৌড়।

রাবাদার বিদায়ে অভিষিক্ত মুথুসামীকে হারের তিক্ততার পাশাপাশি একটা আক্ষেপ নিয়েও মাঠ ছাড়তে হয়েছে। ক্যারিয়ারের প্রথম টেস্টেই মাত্র ১ রানের জন্য হাফসেঞ্চুরি করতে না পারার আক্ষেপ! দল অলআউট হওয়ার সময় তিনি অপরাজিত ছিলেন ৪৯ রানে।

প্রোটিয়াদের গুড়িয়ে দিতে ক্যারিয়ারে পঞ্চম বারের মতো ইনিংসে ৫ উইকেট নিয়েছেন পেসার সামি। স্পিনার জাদেজা নিয়েছেন ৪টি উইকেট। অন্য উইকেটটি নিয়েছেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। ডি ব্রুউমাকে আউট করে সকালের ধ্বংসযজ্ঞটা শুরু করেছিলেন যিনি।

ম্যাচ সেরার পুরস্কারটা অনুমিতভাবেই গেছে রোহিত শর্মার পকেটে। দুই ইনিংসেই সেঞ্চুরিসহ এক টেস্টেই ৩০৩ রান করে তিন তিনটি বিশ্ব রেকর্ড গড়েছেন, ম্যাচসেরার পুরস্কার রোহিত শর্মার প্রাপ্যই ছিল।

দারুণ জয়ে ৩ টেস্টের সিরিজে ১-০তে এগিয়ে যাওয়ার পাশাপাশি মূলব্যান ৪০টি পয়েন্টও অর্জন করল ভারত। ভারত-দক্ষিণ আফ্রিকার এই সিরিজটাও যে আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের অংশ।

কেআর

 

ক্রিকেট: আরও পড়ুন

আরও