বাংলাদেশকে লজ্জায় ডুবিয়ে আফগানদের ঐতিহাসিক জয়

ঢাকা, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | 2 0 1

বাংলাদেশকে লজ্জায় ডুবিয়ে আফগানদের ঐতিহাসিক জয়

পরিবর্তন ডেস্ক ৫:২৯ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ০৯, ২০১৯

বাংলাদেশকে লজ্জায় ডুবিয়ে আফগানদের ঐতিহাসিক জয়

বৃষ্টিও বাঁচাতে পারল না বাংলাদেশকে। যোগ দল হিসেবেই চট্টগ্রাম টেস্ট জিতে নিয়েছে আফগানিস্তান। সোমবার টেস্টের নবীন দলটি বাংলাদেশকে ২২৪ রানে হারিয়ে নিজেদের ইতিহাসের দ্বিতীয় জয় তুলে নিয়েছে।

২০১৭ সাথে টেস্ট খেলুড়ে দেশের মর্যাদা পেয়েছে আফগানিস্তান। তারও ১৭ বছর আগে, ২০০০ সালে বাংলাদেশ পেয়েছিল টেস্ট স্ট্যাটাস। অভিজ্ঞতায় বিস্তর পিছিয়ে থাকা নবীন একটি দেশের কাছে বাংলাদেশ যেভাবে পরাস্ত হয়েছে তা দেশের ক্রিকেটের জন্য চিন্তারই।

সোমবার সকাল থেকেই বৃষ্টির ঘনঘটা চট্টগ্রামে। যা স্বস্তি দিচ্ছিল সাকিব আল হাসানকে। কিন্তু আফগান শিবিরে এই বৃষ্টি শেলের মতো বিঁধছিল। দলটির অধিনায়ক চাইছিলেন অন্তত এক ঘণ্টাও যদি খেলা যায়। কারণ জয় থেকে মাত্র ৪ উইকেট দূরে তারা।

বৃষ্টির দেবতা রশিদ খানের সেই চাওয়া রাখলেন। ৪.২০ মিনিটে শুরু হল খেলা। ঠিক হল ১৮.৩ ওভার অনুষ্ঠিত হবে খেলা। বাংলাদেশকে কুপোকাত করতে ওই সময়টুকই যথেষ্ট আফগান স্পিনারদের। টপাটপ বাংলাদেশের অবিশিষ্ট ৪ উইকেট তুলে ইতিহাস সৃষ্টি করল। বাংলাদেশ অল আউট ১৭৩ রানে।

মাত্র তৃতীয় টেস্ট খেলতে নামা আফগানিস্তান টস জিতে প্রথম ইনিংসে করেন ৩৪২ রান। সেঞ্চুরি করেন রহমত শাহ। তার ১০২ রানের ইনিংসটি আফগানিস্তানের হয়ে প্রথম সেঞ্চুরি। এছাড়া আসগর আফগান ৯২, আফসার জাজাই ৪১ ও অধিনায়ক রশিদ খান ৫১ রান করেন।

জবাবে আফগান স্পিনে কাবু হয়ে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ২০৫ রানে গুটিয়ে যায় বাংলাদেশ। চট্টগ্রামের উইকেট বাংলাদেশি স্পিনাররা বিষ ঝরাতে না পারলেও রশিদ খানরা ঠিকই সাফল্য পান। মুমিনুল হক ৫২, লিটন দাস ৩৩ ও মোসাদ্দেক হোসেন অপরাজিত ৪৮* রান করেন।

ফলে ১৩৭ রানের লিড নিয়ে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করে আফগানিস্তান। আর দ্বিতীয় ইনিংসে অল আউট হওয়ার আগে সেই লিড গিয়ে দাঁড়ায় ৩৯৭ রানে। এই ইনিংসে ইব্রাহিম জাদরানের ৮৭, আসগর আফগানের ৫০ ও আফসার জাজাইর ৪৮ রানে ভর দিয়ে আফগানিস্তান করে ২৬০ রান।

৩৯৮ রানের প্রায় অসম্ভব লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে আবার ব্যাটিং বিপর্যয়ে পড়ে বাংলাদেশ। ১৩৬ রানে টপ অর্ডারের ৬ উইকেট হারিয়ে শেষ করে চতুর্থ দিনের খেলা। বৃষ্টির কারণে একটু আগেই শেষ হয় ওই দিনের খেলা।

পঞ্চম দিন প্রথম সেশনটা ভেসে যায় বৃষ্টিতে। খেলা শুরু হয় দুপুর একটায়। ম্যাচের দৈর্ঘ্য কমিয়ে আনা হয় ৬৮ ওভারে। কিন্তু মাঠে ৯ বল গড়াতেই আবার বৃষ্টি। এই ৯ বলে ৭ রান যোগ করেন বাংলাদেশ। সাকিব ৪৪* রানে ও সৌম্য ২* রানে অপরাজিত থাকেন।

এরপর বিকেল চারটার পর খেলা শুরু হতেই সাকিবকে (৪৪) হারায় দল। তখনই বাংলাদেশের পরাজয় নিশ্চিত হয়ে যায়। আফগান স্পিনের সামনে লেজের ব্যাটাররা যে বেশিক্ষণ টিকবেন না তা অনুমান করা কঠিন ছিল না। হলও তাই। আউট হয়ে গেলেন মেহেদী হাসান মিরাজ, তাইজুল ইসলামরা।

সর্বশেষ দলের আশা হয়ে জ্বলতে থাকা সৌম্যও পরাস্ত হলেন জহির খানের ঘূর্ণির সামনে। শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে আউট হওয়ার আগে করেছেন ১৫ রান।

দুই ইনিংস মিলিয়ে ১১ (৫+৬) উইকেট নিয়ে ম্যান অব দ্য ম্যাচ হয়েছেন রশিদ খান।

সংক্ষিপ্ত স্কোর :

আফগানিস্তান : ৩৪২/১০ ও ২৬০/১০।

বাংলাদেশ : ২০৫/১০ ও ১৭৩/১০

ফলাফল : আফগানিস্তান : ২২৪ রানে জয়ী।

ম্যান অব দ্য ম্যাচ : রশিদ খান।

পিএ

 

ক্রিকেট: আরও পড়ুন

আরও