সেই ‘ওভার থ্রো’ নিয়ে মুখ খুলল আইসিসি

ঢাকা, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯ | ৪ কার্তিক ১৪২৬

সেই ‘ওভার থ্রো’ নিয়ে মুখ খুলল আইসিসি

পরিবর্তন ডেস্ক ৩:০৪ অপরাহ্ণ, জুলাই ১৭, ২০১৯

সেই ‘ওভার থ্রো’ নিয়ে মুখ খুলল আইসিসি

রুদ্ধশ্বাস ফাইনাল শেষে নিউজিল্যান্ডকে হারিয়ে বিশ্বকাপ জিতেছেন ইংল্যান্ড। উত্তেজনায় টইটম্বুর ম্যাচটিকে কেউ কেউ বলছেন ওয়ানডে ইতিহাসের অন্যতম সেরা ম্যাচ। শেষ ওভারে রোমাঞ্চে টাই হয়ে ফাইনাল গড়ায় সুপার ওভারে। সেই সুপার ওভারেই অনিশ্চয়তার দোলাচল।

গুরুত্বপূর্ণ এই ম্যাচে আম্পায়ারের ভুলে ১ রানের জায়গায় ২ রান পেয়ে যায় ইংল্যান্ড। যা কোন ভাবেই মানতে পারছেন না সমালোচকরা। এ নিয়ে চলছে চুলচেরা বিশ্লেষণ। সমালোচনার ঝড়।

শেষ ওভারে ওভার থ্রো থেকে ৪ রান পায় ইংল্যান্ড। সাথে দৌড়ে ২ রান নিয়ে মোট ৬ রান ঝুলিতে পোরেন বেন স্টোকস ও আদিল রশিদ যার ফলে লক্ষ্যটা তাদের আরো সহজ হয়ে যায়।

কিন্তু বিতর্ক উঠেছে দৌড়ে ২ রান নেওয়া নিয়ে। কারণ আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী ২ রান নিতে পারেননি স্টোকস-মঈনরা।

আইসিসির ১৯.৮ ধারায় বলা হয়েছে, ওভার থ্রোর পরে বাউন্ডারির ক্ষেত্রে ফিল্ডার বল ছাড়ার মুহূর্তে ব্যাটসম্যানরা পরস্পরকে পার করলে তবেই তাঁদের দৌড়ে নেওয়া রান যোগ হবে ওভার থ্রোর বাউন্ডারির সঙ্গে।

কিন্তু মার্টিন গাপটিল যখন থ্রোটি করেন, তখনো রশিদ ও স্টোকস একে অপরকে অতিক্রম করতে পারেননি। তার আগে অবশ্য এক রান নেন তারা। কিন্তু দ্বিতীয় রান নিতে গিয়েই এ বিপত্তি ঘটে। ফলে আইসিসির নিয়ম অনুযায়ী ১ রান পাওয়ার কথা ইংল্যান্ডের। কিন্তু আম্পায়ার কুমার ধর্মসেনা বাউন্ডারির সাথে ১ রানের বদলে ২ রান যোগ করে ইংল্যান্ডকে ৬ রান দিয়ে দেন।

এখানেই আপত্তি সমালোচকদের। তাদের দাবী ৬ রানের বদলে যদি ইংল্যান্ড ৫ রান পেত তবে খেলার ফল ভিন্ন হতে পারতো।

এতদিন বিষয়টি নিয়ে চুপ ছিল আইসিসি। অবশেষে মুখ খুলেছে তারা। যদিও নিয়মের বেড়াজাল দেখিয়ে স্পষ্ট করে কিছু বলেনি সংস্থাটি। শুধু জানিয়েছে, আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্ন তোলার এখতিয়ার নেই আইসিসির।

ফক্স স্পোর্টসের এক প্রতিবেদনে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক আইসিসির এক কর্মকর্তা বলেছেন, ‘খেলার নিয়ম ও আইনকানুন মাথায় রেখে মাঠের আম্পায়াররা নিজেদের বিচক্ষণতা অনুযায়ী চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেন। নীতিগতভাবে আমরা আম্পায়ারদের কোনো সিদ্ধান্ত নিয়ে প্রশ্ন তুলতে পারি না।’

পিএ

 

 

ক্রিকেট: আরও পড়ুন

আরও