মুশফিক নন, বড় ভুলটা করেছিলেন বাংলাদেশ কোচ!

ঢাকা, ১৪ জুলাই, ২০১৯ | 2 0 1

মুশফিক নন, বড় ভুলটা করেছিলেন বাংলাদেশ কোচ!

পরিবর্তন ডেস্ক ১:২৫ অপরাহ্ণ, জুন ১৭, ২০১৯

মুশফিক নন, বড় ভুলটা করেছিলেন বাংলাদেশ কোচ!

বিশ্বকাপে বাংলাদেশিদের আফসোসের কারণ হয়ে আছে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে হারটি। ওই ম্যাচে জিততে পারলে নিশ্চিতভাবেই পয়েন্ট তালিকার ৮-এ পড়ে থাকা বাংলাদেশ আরও অনেক উপরে থাকত।  সেমিফাইনালের স্বপ্নটা আরও বেশি জ্বলজ্বল করতো।  আফসোসের দল পাকানো ওই হারের জন্য সবার আগে কাঠগড়ায় উইকেটকিপার মুশফিকুর রহীম। ইশ, মুশফিক যদি অমন শিশুতোষ ভুলে উইলিয়ামসনকে রানআউট করার ওই সহজ সুযোগটি হাতছাড়া না করতেন!

তা ক্রিকেটপ্রেমীদের রায়টা যথার্থই বটে। নিউজিল্যান্ডের কাছে হারের পেছনে মুশফিকের ওই ভুলটা অবশ্যই বড় নিয়ামক। কিন্তু এতদিনে জানা গেল, ওই হারের জন্য মুশফিকের চেয়ে বড় খলনায়ক ছিলেন বাংলাদেশ কোচ স্টিভ রোডস! সেদিন মুশফিকের চেয়েও বড় ভুলটা করেছিলেন বাংলাদেশের ইংলিশ কোচ!

প্রশ্ন উঠতে পারে বাংলাদেশ কোচ কী এমন ভুল করেছিলেন, যা দলের পরাজয় ডেকে এনেছে! স্টিভ রোডস ভুলটা করেছিলেন উইকেট পড়তে না পারার! উইকেটের আচরণ কেমন হবে, কত রান ডিফেন্ড করা যথেষ্ট হবে, সেটাই বুঝতে পারেননি তিনি। রেডিওতে বিবিসির ধারাভাষ্য শুনে ব্যাটসম্যানদের দিয়েছিলেন ভুল বার্তা! মূল সর্বনাশটা হয়েছে তাতেই। 

দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে প্রথমে ব্যাট করে ৬ উইকেটে ৩৩০ রান করে বাংলাদেশ। ভেন্যু যেহেতু সেই কেনিংটন ওভাল, রোডসের ধারণা ছিল নিউজিল্যান্ড ম্যাচেও বাংলাদেশ ৩৩০-৩৫০ রানের উইকেটে খেলছে। আর এই ধারণাটা তিনি অর্জন করেন বিবিসির ধারাভাষ্য শুনে!

বিশ্বকাপের প্রতিটা ম্যাচেই বাংলাদেশ কোচকে দেখা যায় কানে একটা ডিভাইস গুজে দিয়ে বসে আছেন। সেটি আসলে রেডিও। আইসিসির পক্ষ থেকেই বিবিসির ধারাভাষ্য শোনার ব্যবস্থা। তো সেদিনও বাংলাদেশ ভালোই ব্যাটিং করছিল। ৩০.২ ওভারে মাত্র ৩ উইকেট হারিয়েই করেছিল ১৫১ রান। 

তখনই বিবিসির ধারাভাষ্য শুনে রোডস বুঝে ফেলেন, জিততে হলে অন্তত ৩৩০-৩৫০ করতে হবে। ব্যস, সঙ্গে সঙ্গে মাঠের ব্যাটসম্যানদের বার্তা পৌঁছে দেন চালিয়ে খেলার। কোচের পরামর্শ মেনে মেরে খেলতে গিয়েই সর্বনাশ। ৩০.২ ওভারে ৩ উইকেটে ১৫১ থেকে ৪৯.২ ওভারে মাত্র ২৪৪ রানে অলআউট! মানে কোচের মেরে খেলার নির্দেশ মেনে ৭ উইকেট হাতে নিয়ে শেষ ১৯.৪ ওভারে বাংলাদেশ তুলতে পারে মাত্র ৯৪ রান। 

অথচ ম্যাচ শেষে প্রমাণ হয়েছে, ৩৩০-৩৫০ নয়, টেনে-টুনে ২৬০-২৭০ করতে পারলেই জিতে যেত বাংলাদেশ!

আজ টন্টনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচ বাংলাদেশের। তার আগে গতকাল সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজাই বললেন নিউজিল্যান্ড ম্যাচে উইকেট পড়তে না পারার ব্যর্থতার কথা।

অকপটে স্বীকার করেছেন, উইকেট ঠিকঠাক বুঝতে না পারাটাই ছিল হারের বড় কারণ। তবে সেজন্য তিনি কোচ রোডসকে একা কাঠগড়ায় দাঁড় করাননি। দায় দেখছেন ব্যাটসম্যানদেরও, ‘একটা ম্যাচে হার বা জয় অনেকটাই নির্ভর করে উইকেট যথাযথভাবে বুঝতে পারার ওপর। আমার মনে হয় নিউজিল্যান্ড ম্যাচে আমরা এটা মিস করেছি। আমরা যদি উইকেট ঠিকঠাকভাবে বুঝতে পারতাম, তাহলে হয়তো অনুধাবন করতে পারতাম, ২৬০-২৭০ রানই ম্যাচ জেতার জন্য যথেষ্ট।’

দায় প্রসঙ্গে বলেছেন, ‘আসলে যারা উইকেটে ব্যাটিং-বোলিং করে, উইকেটটা তাদের বুঝতে পারাটাই বেশি গুরুত্বপূর্ণ। বাইরে থেকে একটা বার্তা যাওয়া বা বাইরে থেকে কিছু বলা বা ধারাভাষ্যকারদের কথা শুনে উইকেট বিশ্লেষণ করা সহজ কাজ নয়। তাছাড়া ধারাভাষ্যকাররা তো ধারাভাষ্য দেন ব্যাটসম্যান-বোলারদের ব্যাটিং-বোলিং দেখেই। মানে খেলা যেভাবে চলে, ধারাভাষ্যও হয় সেভাবেই। তাই উইকেট পড়ার দায়িত্বটা সবার আগে ব্যাটসম্যানদেরই।’

মাশরাফির দাবি, উইকেট অনেক সময় বিভ্রান্তিও ছড়ায়। যেমন ছড়াচ্ছে টন্টনের উইকেট, ‘এখানকার (টন্টনের) উইকেট নিয়েও বিভ্রান্তি আছে। প্রথমে শুনেছি, উইকেটে প্রচুর ঘাস থাকতে পারে। আবার কেউ কেউ বলছে, শুরুর দিক থেকেই উইকেট ফ্ল্যাট থাকবে। কাজেই আমি মনে করি, যারা যত দ্রুত উইকেট বুঝতে পারবে, লাভবান হবে তারাই।  উইকেট বুঝতে পারলে মোটামুটি খেলেও এগিয়ে যাওয়া যায়।’

তা অন্যরা ইংল্যান্ডের উইকেট দেখে বিভ্রান্ত হতেই পারেন। কিন্তু বাংলাদেশ কোচ তো একজন ইংলিশ।  ওভাল, টন্টনসহ ইংল্যান্ডের সব উইকেট এবং কন্ডিশনই তার চেনা। তিনি কেন এমন বিভ্রান্ত হন, এমন প্রশ্ন কিন্তু উঠতেই পারে।

কেআর/আরপি

 

ক্রিকেট বিশ্বকাপ ২০১৯: আরও পড়ুন

আরও