হাথু বলেছিলেন, যাও আর রান করো

ঢাকা, শনিবার, ১৮ আগস্ট ২০১৮ | ৩ ভাদ্র ১৪২৫

হাথু বলেছিলেন, যাও আর রান করো

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৯:৪৪ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ১৭, ২০১৮

print
হাথু বলেছিলেন, যাও আর রান করো

লক্ষ্যটা ২৯১ রানের। এ রান তাড়া করে জেতা ব্যাটিংবান্ধব উইকেটে খুব কঠিন কিছু নয়। সেই লক্ষ্যে ছুটতে কি ছিলো শ্রীলঙ্কার পরিকল্পনা? এ নিয়ে রাজ্যের আগ্রহ। কারণ দলটির কোচ যে গেল বছরের শেষটায় আচমকা টাইগারদের দায়িত্ব ছেড়ে দেওয়া চন্ডিকা হাথুরুসিংহে। বাংলাদেশের উড়ন্ত সাফল্যের পরও যিনি বরাবরই ভিলেন হয়েছেন বাংলাদেশি ক্রিকেটপ্রেমীদের কাছে। তাই এ প্রশ্ন হয় স্বাভাবিকভাবেই। হাথুরুসিংহের কথা ছিল একটাই, ‘মাঠে যাও আর রান করো।’

মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামে বুধবার জিম্বাবুয়ের কাছে ১২ রানে হারে শ্রীলঙ্কা। ম্যাচশেষে সংবাদ সম্মেলনে আসেন দলের অধিনায়ক অ্যাঞ্জেলো ম্যাথুজ। সেখানেই তার কাছে জানতে চাওয়া হয় ২৯১ এর লক্ষ্য তাড়ায় কি পরিকল্পনা দিয়েছিলেন হাথুরুসিংহে? ম্যাথুজের ছোট্ট উত্তর, ‘মাঠে যাও আর রান করো।’ একটু থেমে তার সাথে যোগ করে দেন, ‘২৯১ রান করার জন্য ৩০০ বল পেয়েছো। যেটা ওভার প্রতি ৬ রানের কম। একজন ১০০ মারলে আরেকজন ৬০ রান করলে এ রান তাড়া করা খুবই সহজ। কিন্তু দুঃখজনকভাবে আমরা পারিনি।’

৩০০ বলে ২৯১ রান। হাথুরুসিংহের কথায় এটা খুব সহজ। তবে তার কথা মতো কাজটা করিয়ে দেখাতে পারেনি লঙ্কানরা। কেন পারেননি জানতে চাইলে ম্যাথুজ বললেন, ‘আমরা কাছাকাছি গিয়েছিলাম। আমরা রান রেটও ভালো রেখেছিলাম। সবসময় ৬/৭ এর নিচেই রান রেট রেখেছিলাম। শেষ দিকে থিসারা এবং আকিলা যেভাবে ব্যাটিং করেছিল তাতে আমরা ম্যাচটা জিততে পারতাম। তবে আমরা ভুল সময়ে উইকেট হারিয়ে ফেলি।’

তবে শুধু ব্যাটসম্যানদের নয়, ম্যাথুজ কাঠগড়ায় তুলেছেন বোলারদেরও। প্রাথমিক সর্বনাশ যেখানে। ‘আমরা খুবই হতাশ। আমরা পুরোটা সময়েই ঠিক হাচর পাচরের অবস্থায় ছিলাম। বল হাতে খুব দুর্বল শুরু ছিল। প্রথম ১০ ওভারে আমরা তাদের ভালো সূচনা দিয়ে ফেলি। তবে মাঝে দিকে কিছুটা লাগাম টানতে পেরেছিলাম। তাদের হাতে উইকেট থাকায় তারা শেষ দিকের ওভারের ভালো ব্যবহার করেছে। এ সময়ে আমরা বেশ কিছু বাড়তি রানও দিয়েছি। আমার মনে হয় থিসারা এবং আসেলা ভালো বল করেছে। আমরা ফিল্ডিংয়ে আরও ভালো করতে পারতাম।’

উল্লেখ্য, গত তিন বছরে দারুণ পারফরম্যান্সই করেছে বাংলাদেশ। অভিজ্ঞ পাঁচ খেলোয়াড়ের পাশাপাশি উঠতি কিছু তরুণ খেলোয়াড়ের অবদানেই এমনটা হয়েছে বলেই ধারণা। কিন্তু আন্তর্জাতিক মাধ্যমগুলোতে প্রচার কোচ চন্ডিকা হাথুরুসিংহেই ছিলেন জয়ের মূল নায়ক। কৃতিত্ব তাকে দিলেও বাংলাদেশের ক্রিকেটাররা বলেছেন, মাঠে খেলছেন তারাই। তাই শ্রীলঙ্কার হয়ে কেমন করেন তা দেখার জন্য উদগ্রীব ছিলো বাংলাদেশের কোটি দর্শক। তার উত্তরটাও মিললো বটে। নতুন দলের দায়িত্বে, নতুন বছরের শুরুটাই হাথুরুসিংহের এমন হারে!

আরটি/ক্যাট

 
.


আলোচিত সংবাদ