ওই নারীর সামনে নগ্ন হননি গেইল!

ঢাকা, বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৪ আশ্বিন ১৪২৫

ওই নারীর সামনে নগ্ন হননি গেইল!

পরিবর্তন ডেস্ক ৫:১৯ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৩, ২০১৭

ওই নারীর সামনে নগ্ন হননি গেইল!

ক্রিস গেইল মাঠে নেমে বোলারদের তুলোধোনা ধুমধাম ছক্কা মারছেন- এটাই পরিচিত দৃশ্য। কিন্তু তিনি কোর্টে মামলা লড়ছেন এমন খবরে খটকাই লাগে। অস্ট্রেলিয়ার ফেয়ারফ্যাক্স মিডিয়া তার বিরুদ্ধে অভিযোগ এনেছিল, ২০১৫ বিশ্বকাপে তিনি নাকি একজন নারী ম্যাসাজকারীর সাথে অশালীন আচরণ করেছেন। ২০১৬ সালে এটা নিয়ে লেখালেখি হয়েছে পত্রিকায়। আর এক বিগব্যাশ আগেই মাঠে টেলিভিশন লাইভে গেইল এক অস্ট্রেলিয় নারী উপস্থাপককে ডেটের প্রস্তাব দিয়েছিলেন। তারপর আগের ঘটনাটিও জোরেশোরে অস্ট্রেলিয়ার মিডিয়া টেনে তোলে। এই পরিস্থিতিতে ফেয়ারফ্যাক্স মিডিয়ার বিপক্ষে মানহানির মামলা লড়ছেন ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিধ্বংসী ব্যাটসম্যান।

২০১৬ সালের জানুয়ারী মাসে ফেয়ারফ্যাক্স মিডিয়া তাদের তিনটি সংবাদপত্র প্রতিবেদনে গেইলকে দোষী সাব্যস্ত করে। সেখানে বলা হয়, সিডনিতে দলের ড্রেসিং রুমে গেইল একজন নারী ম্যাসাজকারীর সামনে নিজেকে অশ্লীলভাবে উপস্থাপন করেন এবং কুপ্রস্তাব দেন। গেইল নাকি তার তোয়ালে খুলে ফেলেছিলেন। নগ্ন হয়েছিলেন। ২০১৫ সালে অস্ট্রেলিয়ায় ক্রিকেট বিশ্বকাপ চলাকালীন সময়ে ঘটনাটি ঘটেছে বলে জানায় পত্রিকাগুলো। বিষয়টি এতদিন ধামাচাপা পড়ে ছিল। মাঝে গেইল বিগ ব্যাশের ঘটনাটি ঘটিয়ে অস্ট্রেলিয়ার মিডিয়ার শত্রু বনে গেছেন। শেষ মৌসুমে দলও পাননি ওই আসরে। লাইভে ডেটের প্রস্তাবের ওই ঘটনার পরই তুষের আগুনের মত জ্বলে ওঠে ফেয়ারফ্যাক্সের আগের সেই দাবীটি। এজন্যই সংস্থাটির বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করেছেন গেইল।

মামলার প্রারম্ভিক দিনে গেইলের আইনজীবি ব্রুস ম্যাকক্লিনটক নিউ সাউথ ওয়েলস আদালতকে বলেছেন যে এই দাবিটি সম্পূর্ণ ভুল ও যুক্তিহীন। তিনি আরো বলেছেন, 'তারা (ফেয়ারফ্যাক্স) গেইলের নাম খারাপ করতে চায়। তাকে ধ্বংস করতে চায়।' এই ঘটনা নিয়ে গেইল বলেছেন, 'আমার জীবনে কোন বিষয়ে কখনো এত কষ্ট পাই নি। এই মামলায় আমার লড়তেই হবে। আমি এই অপবাদ থেকে মুক্তি চাই।'

অন্যদিকে ফেয়ারফ্যাক্স বলেছে অভিযোগগুলো সম্পূর্ণ সত্য এবং মানুষের আগ্রহ আছে এই বিষয়ে। তাই তারা লড়ছে। মামলার শুনানি ১০ দিন চলবে। এরপরই জানা যাবে আসল সত্য কি।

এসএম/ক্যাট