সাকিব-তামিমকে প্রশংসায় ভাসালেন স্মিথ

ঢাকা, রবিবার, ২২ জুলাই ২০১৮ | ৬ শ্রাবণ ১৪২৫

বাংলাদেশ-অস্ট্রেলিয়া টেস্ট সিরিজ ২০১৭

সাকিব-তামিমকে প্রশংসায় ভাসালেন স্মিথ

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৬:২৪ অপরাহ্ণ, আগস্ট ৩০, ২০১৭

print
সাকিব-তামিমকে প্রশংসায় ভাসালেন স্মিথ

বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের বিশ্বাসকে তার ‘অতি আত্মবিশ্বাস’ মনে হয়েছিল সিরিজের শুরুতে। মিরপুর টেস্ট হারের পর অসি অধিনায়কের ভাবনা কি একটু পাল্টালো? বাংলাদেশি ক্রিকেটারদের বিশ্বাস বলতে, অসিদের হোয়াইটওয়াশ করা। টাইগারদের যে উচ্চারণের কথা শুনে বেশ বিশ্ময় প্রকাশ করেছিলেন স্মিথ। বলেছিলেন, বাংলাদেশ তো সেই দল ১০০ ম্যাচ খেলে যারা ৯ ম্যাচ জিতেছে। কিন্তু নিয়তির কি পরিহাস! টাইগার শিবিরের যে দুজনের মুখ থেকে হোয়াইটওয়াশ উচ্চারণ হয়েছিল, সেই দুই তারকা সাকিব আল হাসান ও তামিম ইকবালকে প্রসংশায় ভাসাতে হলো স্মিথকে। মিরপুরে এই দুজনের পারফরম্যান্সের কাছেই যে বুধবার প্রথম টেস্টে ২০ রানে হেরে গেলো অস্ট্রেলিয়া।

বাংলাদেশকে কোলঠাসা করেই মিরপুর টেস্ট শুরু করেছিল অস্ট্রেলিয়া। প্রথম দিন শুরুতেই টাইগারদের ৩ উইকেট ফেলে দিয়েছিল অসি বোলাররা। বাংলাদেশ সেখান থেকে সাকিব-তামিমের ব্যাটে চড়ে ঘুড়ে দাঁড়ায়। প্রথম ইনিংসে ২৬০ রানে সাকিবও তামিমের ১৫৫ রানের জুটির বড় অবদান। সাকিবের ব্যাট থেকে আসে ৮৪ ও তামিমের ৭১। এরপর বোলিংয়ে সাকিব দুই ইনিংসেই নেন ৫টি উইকেট করে মোট ১০ উইকেট। নিজেদের ব্যাটিংয়ের দ্বিতীয় ইনিংসে সাকিব রান না পেলেও তামিম ঠিকই তুলে নেন ফিফটি। যার সার্বিক ফল- মুশফিকুর রহীমের দলের ১-০ তে সিরিজে এগিয়ে যাওয়া।

এমন হারের পর বাংলাদেশর প্রশংসায় পঞ্চমুখ হতে হলো স্মিথকে। বিশেষ করে সাকিব-তামিমের। মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে হার মেনে সংবাদ সম্মেলনে স্বাগতিকদের জয়ের যোগ্য দল হিসেবে মেনে নিলেন। ম্যাচসেরা সাকিবকে নিয়ে স্মিথ বললেন, ‘আমার মনে হয় সে প্রথম ইনিংসে আক্রমণাত্মক খেলেছে। যখনই সুযোগ পেয়েছেন সেটি ভালোভাবে কাজে লাগিয়েছে। আমরা তাকে রুখতে বিভিন্ন চেষ্টা করেছি। আমাদের পেসার এবং স্পিনাররা যতটা সম্ভব লাইন লেঙ্থ ঠিক রেখে বল করার চেষ্টা করেছে। আমার মনে হয় সাকিব দারুণ খেলেছে। ’

তামিমের প্রসঙ্গটা এলো এরপরে। যখন প্রথম ইনিংসে চাপে ফেলার পরও বাংলাদেশের স্কোরটা ২৬০ হলো, তখন তাতে স্মিথের আফসোস জমেছিল, বোঝা গেল এবার, ‘অবশ্যই এটি খুব ক্লোজ একটি ম্যাচ ছিল। আমি মনে করি প্রথম ইনিংসে ২৬০ এবং সাকিব-তামিমের জুটি, এটি দারুণ ছিল। আমরা তাদের চাপে ফেলতে চেয়েছি। ১৮০ বা ২০০ এর মধ্যে আটকাতে পারলে সেটা আমাদের জন্য দারুণ হতো। এরপর ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ নিজেদের করে নিতে প্রথম ইনিংসে আমরা পর্যাপ্ত সংগ্রহ করতে পারিনি। আপনি যখন শেষ ইনিংসে ব্যাট করবেন সেটি সবসময়ই কঠিন, বিশেষ করে এ ই উপ মহাদেশে।'

সিরিজটা ১-০ হয়ে যাওয়ার পর এখন যে অস্ট্রেলিয়া বেশ চাপে সেটিও মেনে নিয়েছেন স্টিভ স্মিথ। চট্টগ্রামে ঘুরে দাঁড়ানোর ঘোষণাটি দিয়েই সংবাদ সম্মেলন শেষ করেছেন অতিথি নেতা।

টিএআর/ক্যাট

 
.



আলোচিত সংবাদ