মিরপুরের রহস্যময় উইকেটের কথাও মাথায় রাখছে টাইগাররা

ঢাকা, শুক্রবার, ১৬ নভেম্বর ২০১৮ | ১ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

মিরপুরের রহস্যময় উইকেটের কথাও মাথায় রাখছে টাইগাররা

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৭:৩২ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০১৮

মিরপুরের রহস্যময় উইকেটের কথাও মাথায় রাখছে টাইগাররা

জিম্বাবুয়ে সিরিজের সব প্রস্তুতিই সম্পন্ন। দুপুর নাগাদ মাঠকর্মীদের যে ব্যস্ততা ছিল, সন্ধ্যার কিছু পরই যেন তা কমে আসতে থাকে। ফ্ল্যাড লাইটের আলোর রোসনাইয়ে মিরপুরে শেরেবাংলা জাতীয় স্টেডিয়াম যেন জানান দিয়ে যাচ্ছে, এখন বলটা মাঠে গড়াতেই পারে।

বল মাঠে গড়ানোর সময় অবশ্য রোববার দুপুর আড়াইটা। তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম ওয়ানডেতে এসময় মাঠে নামবে বাংলাদেশ। সিরিজের প্রথম ম্যাচ, বাংলাদেশ চাইছে সব ঠিকঠাকভাবেই মাঠে অনুবাদ করতে। সাকিব-তামিমকে ছাড়া বাংলাদেশ দল। দুই সেরা ক্রিকেটারের ঘাটতি পূরণ করতেও মানসিক প্রস্তুতি নিয়ে ফেলেছে মাশরাফির দল। তবে উইকেট নিয়ে একটা ভাবনা থাকছে বাংলাদেশ দলের।

উইকেট বলতে মিরপুরের উইকেট। ‘রহস্যময়ী’ উইকেট হিসেবে যার পরিচিতি।

শনিবার ম্যাচপূর্ব সংবাদ সম্মেলনে তাই মাশরাফিকেও চিন্তিত মনে হলো, ‘মিরপুরের উইকেট সম্পর্কে ভবিষ্যতবাণী করা খুবই কঠিন, আমরা সবাই সেটা জানি। মিরপুরের উইকেট ভিন্ন সময়ে ভিন্ন ভিন্ন আচরণ শুরু করে। আগে থেকে বলা খুবই কঠিন হবে। তবে প্রত্যাশা তো অবশ্যই ভালো কিছু থাকবে।’

সেই ভালো উইকেট বলতে মাশরাফির চাওয়া, ‘সাধারণত ২৫০-২৬০ রান হলে ম্যাচ ভাল হয়, আগে ব্যাট করা দলের জেতার সুযোগ বেশি থাকে। শুরুতেই যে স্লো বা টার্ন হবে, এমন আশা অবশ্যই করছি না। ভাল উইকেটে খেলতে চেয়েছি, এখন ভাল উইকেট হলেই হয়।’

কিন্তু ২০০৭ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট শুরু হওয়ার পর এতো দিন পার হলেও মিরপুরের উইকেট নিয়ে নিশ্চিত হওয়া গেল না। বাংলাদেশ হোম অ্যাডভান্টেজ নেওয়ার সুযোগটা তাহলে কোথায়?

মাশরাফি এক্ষেত্রে খেলোয়াড়দের কৃতিত্ব দিচ্ছেন এ কারণে- ‘আমি ধন্যবাদ দিব আমাদের যারা খেলোয়াড় আছে তাদের।  এটা কিন্তু আমরাও বিশ্বাস করি মিরপুরের উইকেট আনপ্রেডিকটেবল। হঠাৎ করেই আচরণ বদলে ফেলে। আপনারাও দেখেছেন হঠাৎ করে টার্ন বা বল নিচু হয়ে আসছে। তখন কিন্তু যারা ব্যাটিং করছে তাদেরও মাইন্ডসেট পরিবর্তন করতে হচ্ছে। বাইরে যারা থাকে তাদেরও মাইন্ডসেট পরিবর্তন করতে হয়। আনপ্রেডিকটেবল হলেও আমরা অভ্যস্ত হয়ে গেছি। কারণ বেশিরভাগ সিনিয়র খেলোয়াড়ই ১০ বছর ধরে এই উইকেটে খেলছে। তো এই জায়গায় অনেকটা অভ্যস্ত হয়ে গেছি। ঘরোয়া ক্রিকেটেও যারা খেলছে অভ্যস্ত হয়ে গেছে।’

সব খারাপের মাঝে যেমন ভালো থাকে। মাশরাফি হয়তো সেরকম ভাবেই এখান থেকে ভালোটা বেছে নিতে চাচ্ছেন, ‘আপনি যদি দেখেন একক্ষেত্রে সুবিধাও থাকে। আচরণ যখন বদলাতে থাকে তখন প্রতিপক্ষের জন্য একটু কঠিন হয়।’ 

টিএআর/এএল/