এশিয়া কাপে চোখ থাকবে যাদের ওপর

ঢাকা, রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৮ আশ্বিন ১৪২৫

এশিয়া কাপে চোখ থাকবে যাদের ওপর

পরিবর্তন ডেস্ক ১২:৪৬ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৮

এশিয়া কাপে চোখ থাকবে যাদের ওপর

শনিবার বাংলাদেশ ও শ্রীলঙ্কার ম্যাচ দিয়ে শুরু হচ্ছে এশিয়া কাপের চতুর্দশ আসর। ৬ জাতির এই টুর্নামেন্টে অন্যতম ফেভারিট দল পাকিস্তান। রোহিত শর্মার ভারতও আছে ফেভারিটদের তালিকায়। ওয়ানডে ফরম্যাটে বাংলাদেশও চ্যালেঞ্জ জানাতে প্রস্তুত। টুর্নামেন্টে আলো ছড়াতে পারেন বেশ ক’জন খেলোয়াড়। আসুন, জেনে নেওয়া যাক কারা এবার রাঙাতে পারেন আমিরাতের এই টুর্নামেন্টটি—

অ্যানশুমান রাঠ (হংকং)

এশিয়া কাপের এবারের আসরে চমক জাগানো দল হংকং। বাছাইপর্বে সংযুক্ত আরব আমিরাতকে হারিয়ে টুর্নামেন্টে ঠাঁই করে নিয়েছে আইসিসি’র সহযোগী এই দেশটি। আর দলটিকে নেতৃত্ব দিয়ে তুলে এনেছেন অধিনায়ক অ্যানশুমান রাঠ।

টুর্নামেন্টে হংকং আন্ডার ডগ হলেও ২০ বছর বয়সী অ্যানশুমান আলো ছড়াতে পারেন এবার। ভারতীয় বংশোদ্ভূত এই উইকেটকিপার-ব্যাটসম্যানের ব্যাটিং রেকর্ড বেশ সমৃদ্ধই। হংকংয়ের হয়ে এ পর্যন্ত ১৬টি ওয়ানডে খেলেছেন তিনি। যেখানে তার রান ৫২.৫৭ গড়ে ৯৪৯, সেঞ্চুরি একটি। এশিয়া কাপের বাছাইপর্বে ৫ ইনিংসে করেছেন ২০৪ রান।

মোহাম্মদ নবী (আফগানিস্তান)

এরই মধ্যে বিশ্ব ক্রিকেটে উদীয়মান শক্তি হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে আফগানিস্তান। মোহাম্মদ নবী, রশিদ খান ও মুজিব উর রহমানদের মতো প্রতিভাবান খেলোয়াড় উপহার দিয়েছে দেশটি।

এশিয়ার এই দেশটি এ পর্যন্ত ১০১টি আন্তর্জাতিক ওয়ানডে ম্যাচ খেলেছে। যার সবগুলোই খেলেছেন অল রাউন্ডার মোহাম্মদ নবী। ওয়ানডেতে ২৯.১২ গড়ে ২৩০১ রান ও বল হাতে ১০৯ উইকেট নিয়েছেন তিনি। দলটির অভিজ্ঞ এই খেলোয়াড় ব্যাট ও বল হাতে প্রতিপক্ষের জন্য যেকোন সময় হুমকি হয়ে উঠতে পারেন। সম্প্রতি আয়ারল্যান্ড সফরে ৩ ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে ৬ উইকেট নিয়েছেন তিনি।

ফখর জামান (পাকিস্তান)

পাকিস্তানের অন্যতম সেরা ব্যাটসম্যান হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন ফখর জামান। গেল বছর জুনে অভিষেক হওয়ার পর মাত্র ১৮টি ওয়ানডেতে ১০৬৫ রান করেছেন তিনি, গড় ৭৬.০৭। সেঞ্চুরি করেছেন ৩টি, যার মধ্যে একটি ডাবল সেঞ্চুরিও আছে। সবচেয়ে দ্রুততম সময়ে ওয়ানডেতে ১ হাজার রানের মাইলফলক স্পর্শ করার রেকর্ড ২৮ বছর বয়সী এই বাঁ-হাতি এই ব্যাটসম্যানের দখলে।

লাথিস মালিঙ্গা (শ্রীলঙ্কা)

লঙ্কান পেসার লাথিস মালিঙ্গা সর্বশেষ ওয়ানডে খেলেছেন গেল বছর সেপ্টেম্বরে। এরপর দীর্ঘ দিন জাতীয় দলের বাইরে ছিলেন তিনি। এশিয়া কাপে হাঠৎ করেই ডাক পেলেন ৩৫ বছর বয়সী এই পেসার। শ্রীলঙ্কার হয়ে ২০৪ ওয়ানডেতে ৩০১ উইকেট নিয়েছেন তিনি। এশিয়া কাপের এবারের আসরে নিজেকে আবার প্রমাণ করতে চাইবেন এক সময় লঙ্কান দলের এই অপরিহার্য পেসার।

মানিশ পান্ডিয়া (ভারত)

ভারতীয় স্কোয়াডে মানিশ পান্ডিয়ার অন্তর্ভুক্তি কিছুটা বিস্ময়করই। কারণ জাতীয় দলের হয়ে তার সাম্প্রতিক পারফরম্যান্স খুব একটা উল্লেখযোগ্য নয়। সর্বশেষ গেল বছরের ডিসেম্বরের পর ভারতীয় স্কোয়াডে আর জায়গা হয়নি ২৮ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যানের।

তবে ভারতীয় ‘বি’ দলের হয়ে সম্প্রতি চার দলীয় টুর্নামেন্টে দারুণ পারফর্ম করেছেন তিনি। ওই সিরিজের চার ম্যাচে করেছেন ৩০৬ রান। এমনকি প্রতি ম্যাচেই ছিলেন অপরাজিত। এই পারফরম্যান্সের কারণেই দলে আবার ডাক পেয়েছেন মানিশ। ভারতীয় দলে নিয়মিত হতে এশিয়া কাপে ভালো কিছু করে নিজের যোগ্যতার প্রমাণ দেখাতে চাইবেন তিনি।

সাকিব আল হাসান (বাংলাদেশ)

টেস্ট ও ওয়ানডে র‌্যাঙ্কিংয়ের শীর্ষ অল রাউন্ডার সাকিব আল হাসান। বাংলাদেশ দলের গুরুত্বপূর্ণ এই ক্রিকেটার এশিয়া কাপের বড় তারকা। বাংলাদেশের হয়ে ১৮৮ ওয়ানডে খেলা সাকিব রান করেছেন ৩৫.৫০ গড়ে ৫৪৩৩, সেঞ্চুরি। আর উইকেট নিয়েছেন ২৩৭টি।

পিএ