যেভাবে এশিয়া কাপের ফাইনালে টাইগ্রেসরা

ঢাকা, রবিবার, ১৯ আগস্ট ২০১৮ | ৪ ভাদ্র ১৪২৫

যেভাবে এশিয়া কাপের ফাইনালে টাইগ্রেসরা

পরিবর্তন ডেস্ক ৬:০৬ অপরাহ্ণ, জুন ০৯, ২০১৮

print
যেভাবে এশিয়া কাপের ফাইনালে টাইগ্রেসরা

মালয়েশিয়ার উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়ার আগে ফাইনালের স্বপ্নের কথাই বলেছিলেন বাংলাদেশ নারী টি-টুয়েন্টি দলের অধিনায়ক সালমা খাতুন। কিন্তু সেই স্বপ্নটি আসলে কতটা বাস্তবসম্মত ছিল তা নিয়ে প্রশ্ন ছিল অনেকের। ঠিক আগের সিরিজেই যে দক্ষিণ আফ্রিকায় গিয়ে নাজেহাল হয়েছেন মেয়েরা। ওয়ানডে ও টি-টুয়েন্টি সিরিজ দু'টিতেই বাংলাদেশ দল হয়েছে হোয়াইটওয়াশ। তবে টি-টুয়েন্টিতে কিছুটা লড়াই করতে দেখা গিয়েছিল। সেটিকেই আসলে প্রেরণা হিসেবে নিয়ে এশিয়া কাপের ফাইনালের স্বপ্নের কথা বলেছিলেন সালমা খাতুন।

তারপরও যে টুর্নামেন্টে ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কার মতো দল রয়েছে সেখানে বাংলাদেশের স্বপ্নকে তো সুখস্বপ্নই বলতে হয়। কিন্তু সেই সুখস্বপ্নকে সত্যি সত্যি বাস্তবে রূপ দিয়েছেন সালমা খাতুন, রুমানা আহমেদরা। গড়েছেন ইতিহাস। পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কার মতো দলকে বিদায় করে জায়গা করে নিয়েছে ফাইনালে। হুমকিতে ফেলে দিয়েছিল গেল ৬বারেরই চ্যাম্পিয়ন ভারতকে। ৫ ম্যাচে সর্বাধিক ৪টি করে জয়ে ৮ পয়েন্ট নিয়ে ফাইনালে উঠেছে বাংলাদেশ ও ভারত। ভারতের একমাত্র পরাজয়টি বাংলাদেশের বিপক্ষেই। রোববার ভারতের বিপক্ষে শিরোপার লড়াই সালমাদের।

অথচ ছয় দলের লিগভিত্তিক প্রথম পর্বের শুরুটা কি হতাশারই না ছিল সালমাদের। নিজেদের প্রথম ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে মাত্র ৬৩ রানে অল আউট হয়ে যায় সালমারা। ম্যাচ হারে ৬ উইকেটে। এমন হারের পর ভক্তদের আর আশার অবশিষ্টই বা কি থাকে!

কিন্তু এবারের এশিয়া কাপে সালমা-রুমানারা আসলে নিজেদের ছাড়িয়ে গেলেন সবদিক থেকেই। ওদিকে আফগানিস্তানের কাছে হোয়াইটওয়াশের পথে ছুটে যাচ্ছে সাকিব আল হাসানের পুরুষ দল এদিকে মালয়েশিয়ায় প্রচণ্ড গর্জন বাঘীনিদের। দ্বিতীয় ম্যাচেই তারা পাকিস্তানকে ৭ উইকেটে হারিয়ে জয়ে ফিরল। আগে ব্যাট করা পাকিস্তানকে ৯৫ রানে আটকে রেখে বাংলাদেশ ম্যাচ শেষ করে ১৩ বল হাতে রেখে।

এরপর ভারতের মতো ফেভারিট এবং শক্তিশালী দলকে হারিয়ে দেন বাঙলার মেয়েরা। যে ভারতীয় মেয়েদের এশিয়া কাপের সবগুলো আসরেই শিরোপা জয়ের রেকর্ড, হারেনি কখনো কোন ম্যাচ, সেই ভারতকে হারের স্বাদ দেয় সালমারা। সেটিও অনেকগুলো রেকর্ড গড়ে। আগে ব্যাট করে ৭ উইকেটে ১৪১ রান করেছিল ভারত। জবাবে ২ বল ও ৭ উইকেট হাতে রেখে জয় মেয়েদের। নিজেদের ইতিহাসে এত বড় লক্ষ্য তাড়া করে এই প্রথম জয় মেয়েদের। আগে বা পরে ব্যাটিং মিলিয়ে এদিনের ৩ উইকেটে করা ১৪২ রানই টি-টুয়েন্টি ইতিহাসে মেয়েদের সেরা।

ভারতকে হারানোর পর থাইল্যান্ডকে ৯ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারায় বাংলাদেশ। আগে ব্যাট করে থাইল্যান্ড ৮ উইকেটে ৬০ রানে গুটিয়ে যায়। জবাবে মাত্র ১ উইকেট হারিয়ে ৫৩ বল বাকি থাকতে জয় বাংলাদেশের। এরপর শনিবার স্বাগতিক মালয়েশিয়াকে ৭০ রানে হারিয়ে প্রথমবারের মতো এশিয়া কাপের ফাইনালে উঠে যান মেয়েরা। আগে ব্যাট করে ৪ উইকেটে ১৩০ রান করেছিল বাংলাদেশ। জবাবে মালয়েশিয়ার মেয়েরা ৯ উইকেটে ৬০ রানের বেশি করতে পারেননি।

পাকিস্তানকে হারানোর মধ্য দিয়ে ২০১৪ সালের পর টি-টুয়েন্টিতে প্রথম জয় পেয়েছিল বাংলাদেশ। যেখানে থামেননি মেয়েরা। তুলে নিয়েছেন টানা চার জয়। এবার শিরোপার লড়াই। ভারতকে এই টুর্নামেন্টেই একবার হারিয়েছে বলে স্বপ্ন তো দেখাই যায়। ২০০৪ সাল থেকে হয়ে আসা মেয়েদের এশিয়া কাপে ছয়বারের প্রতিবারই চ্যাম্পিয়ন হয়েছে ভারত। তাদের রাজত্বে এবার হানা দেবে বাংলাদেশ? রোববার ফাইনাল।

টিএআর/ক্যাট

 
.


আলোচিত সংবাদ