আইসিসির তীব্র সমালোচনা স্টিভেন স্মিথের

ঢাকা, বুধবার, ১৮ জুলাই ২০১৮ | ৩ শ্রাবণ ১৪২৫

আইসিসির তীব্র সমালোচনা স্টিভেন স্মিথের

পরিবর্তন ডেস্ক ২:১৮ অপরাহ্ণ, মার্চ ২১, ২০১৮

print
আইসিসির তীব্র সমালোচনা স্টিভেন স্মিথের

দ্বিতীয় টেস্টে ‘ইচ্ছাকৃত ও অসঙ্গত’ শারীরিক সংঘর্ষের জন্য শাস্তি হিসেবে ২ টেস্টে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন কাগিসো রাবাদা। কিন্তু এর বিরুদ্ধে আইসিসিতে আপিলের পর শাস্তিভোগ থেকে বেঁচে যান দক্ষিণ আফ্রিকান ফাস্ট বোলার। আর এ ঘটনায় ক্রিকেটের নিয়ন্তা সংস্থার ওপর খেপেছেন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ। তার কথায়, এ সিদ্ধান্তের ফলে শারীরিক আক্রমণের বিষয়ে আইসিসির অবস্থান সমস্যা সৃষ্টি করবে। সেই সাথে ইঙ্গিত দেন, আইসিসির ম্যাচ রেফারির সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে না যাওয়ার দীর্ঘদিনের নীতি থেকে সরে আসতে পারেন তারা। এছাড়া স্মিথ অভিযোগ তুলে বলেছেন, আপিলে কেন তাকে ডাকা হল না। যেখানে রাবাদার অপরাধটি ছিল তারই বিরুদ্ধে।

কেপ টাউনে তৃতীয় টেস্ট শুরুর আগে আইসিসির নতুন সিদ্ধান্তের সমালোচনা করে ২৮ বছর বয়সী অজি অধিনায়ক বলেছেন, ‘আইসিসি একটি মানদণ্ড ঠিক করেছে। তাই নয় কি? কিন্তু স্পষ্টভাবে তারা সেখান থেকে সরে এসেছে। আমি কখনোই উইকেট পাওয়ার পর আমার বোলারদের বলি না তাদের জায়গায় (ব্যাটসম্যানের কাছে) যাও। আমি এমনটি চিন্তাও করি না এবং এটা খেলার অংশও নয়।’

সেদিন মাঠে ঘটনার কথা উল্লেখ করে স্মিথ আরো বলেছেন, ‘আমি সবসময়ই মনে করি, ফুটেজে যেমনটা দেখা গেছে, তার চেয়ে বেশি জোরে সে আমাকে ধাক্কা দিয়েছে। আমি এটা নিয়ে মাথা ঘামাইনি। আমার মনে হয়, আপনার চলে যাওয়া মানে এই নয় যে আপনি যুদ্ধে হেরে গেছেন। কিন্তু অতি-উদযাপনের কারণ কি?’

দ্বিতীয় টেস্টে মূল ঘটনাটা রাবাদা ঘটিয়েছিলেন স্মিথের সঙ্গেই। সেকারণেই ডিমেরিট পয়েন্ট পেয়ে শাস্তি পেতে হয়েছিল তাকে। তাই আপিলের সময় তার বক্তব্য কেন শোনা হল না এই অভিযোগ তুলে স্মিথ বলেছেন, ‘একটি ঘটনায় অপর পক্ষের সাথে কথা না বলটা খুবই বিস্ময়কর। রাবাদা এক নম্বর বোলার। সুতরাং তারা (দ. আফ্রিকা) তাকে নিয়েই মাঠে নামতে চাইবে। এবং আপিল করেই তারা তাকে দলে নিয়ে আসতে পেরেছে। এটা খুবই বিস্ময়কর।’

পোর্ট এলিজাবেথ টেস্টে সফররত অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে দুই ইনিংস মিলে ১১ উইকেট নিয়েছিলেন ২২ বছর বয়সী রাবাদা। দলকে ম্যাচ জেতানোর সাথে সাথে প্রথম ইনিংসে স্মিথ ও দ্বিতীয় ইনিংসে সহ অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারের সাথে ঝামেলায় জড়িয়েছিলেন। স্মিথের সাথে শারীরিক সংঘর্ষের অপরাধে ৩টি ডিমেরিট পয়েন্ট পেয়ে দুই টেস্ট তথা সিরিজের বাকি অংশের জন্যই নিষিদ্ধ হয়ে যান এই তরুণ। ওয়ার্নারের সাথের ঘটনায় একটি ডিমেরিট পয়েন্ট দেওয়া হয়। আগের ৫ ডিমেরিট পয়েন্টের সাথে ওগুলো যোগ হওয়ায় আসে শাস্তি। যা পরে কমিয়ে আনায় দুই ম্যাচের নিষেধাজ্ঞা উঠে যায়। চলমান তৃতীয় টেস্টে খেলার সুযোগ পান রাবাদা।

প্রোটিয়ারা এর বিরুদ্ধে আপিল করেছিলেন। শুনানির পর রাবাদার শাস্তি প্রথম মাত্রায় কমিয়ে আনা হয় এবং এর জন্য একটি ডিমেরিট পয়েন্ট ও ম্যাচ ফি'র ২৫ শতাংশ জরিমানা করা হয়। ডিমেরিট পয়েন্ট কমে ৮ এর নিচে নেমে যাওয়ায় সিরিজের পরবর্তী ম্যাচগুলো খেলতে পারছেন রাবাদা। তবে দ্বিতীয় ইনিংসে ওয়ার্নারের সাথে ঘটনার জন্য এক ডিমেরিট পয়েন্ট পেয়েছিলেন তিনি। এতে এখন তার সর্বমোট ডিমেরিট পয়েন্ট দাঁড়িয়েছে ৭ এ।

সূত্র : ক্রিকইনফো।

পিএ/ক্যাট

 
.



আলোচিত সংবাদ