ভারতকে আলগা বল দিলে বড় সমস্যা : রফিক

ঢাকা, রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৮ আশ্বিন ১৪২৫

নিদাহাস ট্রফি ২০১৮

ভারতকে আলগা বল দিলে বড় সমস্যা : রফিক

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৯:১৪ অপরাহ্ণ, মার্চ ১৩, ২০১৮

ভারতকে আলগা বল দিলে বড় সমস্যা : রফিক

শ্রীলঙ্কান ব্যাটসম্যানদের হাতে কি বেদম পিটুনিই না খেলেন সেদিন টাইগার বোলাররা। দুই স্পিনার মেহেদী হাসান মিরাজ ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ ছাড়া সবাই ওভার প্রতি রান দিয়েছিলেন দশের উপরে। বাদ যাননি কাটার মাস্টার মোস্তাফিজুর রহমানও। ৩ উইকেট পেলেও রান খরচা ৪৮টি। তাই আপাতদৃষ্টিতে দেখলে মনে হবে, কতো এলোমেলো বোলিংই না করেছেন টাইগার বোলাররা। কিন্তু আসলেই কি তাই? বাংলাদেশ দলের সাবেক স্পিনার মোহাম্মদ রফিক মনে করেন, সেদিন বোলাররা ভালো বলই করেছেন। উইকেটটা বেশি ব্যাটিংবান্ধব হওয়ার কারণে বোলারদের তেমন কিছুই করার ছিলো না। রফিকের কথার সত্যতার প্রমাণ তো দ্বিতীয় ইনিংসেই দিয়েছেন বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা। শ্রীলঙ্কার দেওয়া বিশাল লক্ষ্য তাড়া করে বাংলাদেশ জিতেছে বড় কোন পরীক্ষা ছাড়াই।

নিদাহাস ট্রফিতে এখন পর্যন্ত ম্যাচ হয়েছে চারটি। তার প্রায় সব ম্যাচেই ব্যাটসম্যানদের দাপটই দেখা দিয়েছে। চার ম্যাচে ইনিংস প্রতি রান এসেছে ১৭০.২৫। কলোম্বোর প্রেমাদাসা স্টেডিয়ামের উইকেট যে ব্যাটসম্যানদের স্বর্গ তা বোলার আর অপেক্ষা রাখে না। তাই বোলারদের দায় দিতে বিন্দুমাত্র রাজি নন রফিক। শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টাইগারদের খেলা দেখে মুগ্ধ হয়েছেন কিংবদন্তি বোলার, 'পুরো খেলাতেই এলোমেলো কিছু ছিলো না। বোলিং ডিপার্টমেন্ট নিয়ে কিছু বলতে পারেন। বলতে পারেন রান দিয়েছে অনেক। কিন্তু ওদের দেখেন ওরা কেমন করেছে। যেমন উইকেটে খেলা হয়েছে তাতে ব্যাটসম্যানরা মারবেই। এখানে বোলারদের পারফরম্যান্স খারাপ হয়নি। আমি যখন যে দেশের খেলা দেখি তখন বোলিং ডিপার্টমেন্টটা ভালো করে দেখি। প্রথম দেখি বোলাররা কোন জায়গায় বল ফেলছে। বোলাররা একটি নির্দিষ্ট জায়গায় বেশি বল করেছে, নিয়ন্ত্রণও ভালো ছিল। ওরা ভালো ব্যাটিং করে রান নিয়েছে।'

বাংলাদেশের এক সময়ের মূল বোলার ছিলেন রফিক। দেশের হয়ে টেস্ট ও ওয়ানডে দুই সংস্করণেই প্রথম ১০০ উইকেট শিকার করেন তিনি। দীর্ঘ ক্যারিয়ার। উইকেট নিয়ে বরাবর তার বেশি আগ্রহ। কিউরেটর হতে চাইতেন এক সময়। মাটির খুটিনাটি অনেক কিছু জানা। অভিজ্ঞতা থেকেই রফিক পরিবর্তন ডট কমকে বললেন, 'অনেক দিন ক্রিকেট খেলেছি। কিছুটা তো বুঝি। যে উইকেট ছিল তাতে কি করতে পারতো বোলাররা? ব্যাটসম্যানরা দারুণ খেলেছে। ভালো জায়গায় বল করেও বোলাররা পারেনি। আর এমন মার খেলে কিছু লুজ বল তো হবেই। শ্রীলঙ্কার বোলাররা অনেক চাপের উপর ছিল, অনেক এলোমেলো বল করেছে। অনেক আলগা বল দিয়েছে। সে তুলনায় বাংলাদেশের বোলাররা এতো এলোমেলো ছিল না। ততো আলগা দেয়নি।'

তারপরও যে উন্নতির জায়গা দেখেন রফিক। ২০ ওভারের ম্যাচে বাংলাদেশ রান দিয়েছে ২১৪। বেশ খরুচে ছিলেন তাসকিন-রুবেল-মুস্তাফিজরা। আরেকটু নিয়ন্ত্রণ রাখতে পারলে হয়তো ১০/১৫টা রান আটকাতে পারতেন বলে মনে করেন রফিক। কিন্তু উইকেটের ধরন দেখে আগের ম্যাচের বোলিংকে স্বাভাবিক মনে করছেন সাবেক এ স্পিনার, 'হ্যাঁ, বলতেই পারেন আরেকটু ভালো করা হয়তো যেতে পারতো। উন্নতির জায়গা সবসময়ই থাকে। আশা করি পরের ম্যাচে সেটাও হবে না। ভারত খুব কঠিন প্রতিপক্ষ। ওদের আলগা বল দিলে বড় সমস্যা হতে পারে।'

বুধবার ফিরতি পর্বের ম্যাচ খেলতে মাঠে নামছে বাংলাদেশ। প্রতিপক্ষ ভারত। দলের সেরা কয়েক খেলোয়াড়কে বিশ্রাম দিলেও তাদের অনেক শক্তিশালী প্রতিপক্ষ বলে মানেন রফিক। বিশেষ করে দেশটির নামই তাদের এগিয়ে রাখবে বলে জানান তিনি। তবে নিজেদের সেরাটা খেলতে পারলে ভারতবধও সম্ভব বলে মনে করেন সাবেক এ স্পিনার, 'শ্রীলঙ্কার সঙ্গে ভালো খেলেই জিতেছি আল্লাহর রহমতে। বেশ বড় রান তাড়া করে জিতেছি। তবে কাল কিন্তু খেলাটা ভারতের বিপক্ষে। দল যেমনই হোক। নামটা অনেক বড়। গতকাল ওরাও শ্রীলঙ্কার সঙ্গে ভালোভাবেই জিতেছে। দুই দলই মানসিকভাবে অনেক এগিয়ে। তবে ভারত ভারতই। এই সব টুর্নামেন্টে অনেকবারই চ্যাম্পিয়ন হয়েছে। তাই ওদের বিপক্ষে জিততে হলে সেরাটা খেলেই জিততে হবে। আর তা করতে পারলে (ভারতকে হারানো) অবশ্যই সম্ভব।'

শেষ ম্যাচে শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে বাংলাদেশের ব্যাটিং ইউনিট ছিল সেরা। সে ম্যাচের ধারাবাহিকতা দেখতে চান রফিক। আশা করছেন, এবারও ভালো কিছু হবে। শেষ ম্যাচ থেকে পাওয়া আত্মবিশ্বাসই তাদের এগিয়ে রাখবে বলে মনে করেন তিনি, 'আগের ম্যাচে আমাদের ব্যাটসম্যানরা যেভাবে খেলেছে, খুবই ভালো লেগেছে। আত্মবিশ্বাসটা ওরা পেয়েছে। এখন শুধু দরকার এটা ধরে রাখা। এমন জয়ের পর আশা করি এটা ওরা করতে পারবে। আর তা হলে বাংলাদেশ হারলেও ওইভাবেই হারবে। ভারতের কষ্ট করে জিততে হবে। আগের দিন যেভাবে খেলেছে এমনই খেলতে হবে। নিজের উপর বিশ্বাস রাখতে হবে। শেষ ম্যাচে ওদের শারীরিক ভাষাটা ভালো ছিল। সবার সবার প্রতি বিশ্বাস ছিল। এমনটা থাকলেই ভালো কিছু সম্ভব।'

মোদ্দাকথা, শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে শেষ ম্যাচটি বেশ মনে ধরেছে রফিকের। এখন চান ধারাবাহিকতা। আর টাইগাররা এটা করতে পারবেন বলেও বিশ্বাস করেন তিনি। প্রয়োজন নিজেদের উপর বিশ্বাস রাখা। আর তা করতে পারলে নিদাহাস ট্রফির ফাইনালেই বাংলাদেশকে দেখছেন সাবেক এ স্পিনার।

আরটি/ ক্যাট