যে কারণে রশিদ খানকে খুব পছন্দ কোহলির

ঢাকা, সোমবার, ১৭ জুন ২০১৯ | ৩ আষাঢ় ১৪২৬

বিষয় :

ক্রিকেট

যে কারণে রশিদ খানকে খুব পছন্দ কোহলির

পরিবর্তন ডেস্ক ১২:৪৯ অপরাহ্ণ, মে ২৪, ২০১৯

যে কারণে রশিদ খানকে খুব পছন্দ কোহলির

প্রথা বা নিয়ম ভাঙা যেন এখন সবখানেই নিয়ম হয়ে গেছে! এই নিয়ম ভাঙার নিয়মের চর্চা হলো গতকাল লন্ডনে হয়ে যাওয়া বিশ্বকাপ অধিনায়কদের নিয়ে আইসিসির প্রাক-বিশ্বকাপ অফিসিয়াল সংবাদ সম্মেলনেও!

‘ক্যাপ্টেন্স ডে’ নামের অনুষ্ঠানে প্রথাটা কাল ভাঙলেন আফগানিস্তানের এক সাংবাদিক। দর্শক-গ্যালারিতে বসে তিনি নিজ দেশ আফগানিস্তানের অধিনায়ক গুলবাদিন নাইবকে প্রশ্ন করার আগে প্রশ্ন করে বসলেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলিকে।

প্রশ্নটা অবশ্য আফগানদের সম্পর্কেই। আফগানিস্তানের তারকা স্পিনার রশিদ খানকে নিয়ে। কোহলিকে প্রশ্ন করলেন, ‘আফগানিস্তানের সেরা স্পিন অস্ত্র রশিদ খানকে আপনার কেমন লাগে?’ কোহলিও প্রথা ভেঙে উত্তর দিয়েছেন। তা উত্তর দিতে গিয়ে রশিদ খানের ভূয়সী প্রশংসাই করেছেন কোহলি। সঙ্গে ভারত অধিনায়ক এটাও বলেছেন, বিশেষ একটা গুণের কারণে রশিদ খানকে খুবই ভালো লাগে তার।

সেই গুণটা কী? মাঠে আগ্রাসী আচরণ! মাঠে বিশ্বসেরা ব্যাটসম্যান কোহলিও খুব আগ্রাসী। ব্যাটিংয়ের পাশাপাশি মাঠে হাঁটা-চলা, কথা-বার্তায় কোহলি কতটা আগ্রাসী মনোভাবাপন্ন, তা ক্রিকেট দুনিয়ার সবার জানা। আর নিজের বিশেষ কোন গুণ যদি অন্য একজনের মধ্যে হুবহু প্রতীয়মান হয়, তাকে তো ভালো লাগবেই!

গত কয়েক বছর ধরেই আইপিএল মাতাচ্ছেন রশিদ খান। প্রতিপক্ষ হিসেবে কোহলি রশিদ খানের মুখোমুখিও হয়েছেন বেশ কয়েকবার। ফলে নিজের অভিজ্ঞতা থেকেই কোহলি জানেন, রশিদ কতটা ভালো বোলিং করেন। জানেন মাঠের বাইশগজি জমিনে রশিদ খানের স্পিন সামলানো কতটা কঠিন।

২০ বছর বয়সী রশিদ খানের প্রশংসা করে তাই কোহলি বলেছেন, ‘আমি ওকে ৩ বছর ধরে আইপিএলে বল করতে দেখছি। দুর্ভাগ্যজনক যে, এবারই প্রথম আমি ওর বিপক্ষে খেলিনি। এটা আসলেই দুর্ভাগ্যজনক! শুধু আমি না, রশিদও বলেছে, সে আমার বিপক্ষে বল করতে মুখিয়ে ছিল। আমিও ওর বিপক্ষে ব্যাট করতে মুখিয়ে ছিলাম।’

রশিদ প্রশংসায় কোহলি যোগ করেছেন, ‘৩ বছরে এই প্রথম আমি মাঠের বাইরে বসে ওর বল কেমন, তা বলার চেষ্টা করছি! হ্যাঁ, ৩ বছরে এই প্রথম। তবে ওর বল সম্পর্কে ১০ বারের মধ্যে ৯ বারই সঠিক বলতে পেরেছি। সে এতটাই ভালো!’

কেন স্পিনার রশিদ খান অন্যদের চেয়ে আলাদা, সেটিও বুঝিয়ে দিয়েছেন কোহলি, ‘সে অসাধারণ। ওর গতিটাই আলাদা করে দেয় সবকিছু। ওর বলের গতির তারতম্য খুবই সূক্ষ্ম। সে বল বোঝার কোনো সুযোগই দেয় না। এমনকি ফ্লাইটের বলও দ্রুত ব্যাটে আসে! কিছু বুঝে ওঠার আগেই ব্যাট-প্যাডের ফাঁক গলে ব্যাটসম্যানরা বোল্ড বা এলবিডব্লিও হয়ে যান।’

আগ্রাসী কোহলি এরপরই ব্যাখ্যা করেছেন রশিদকে নিজের বিশেষ ভালো লাগার কারণ, ‘রশিদের মধ্যে ফাস্ট বোলারদের মতো আগ্রাসী মনোভাব আছে। একজন স্পিনারের মধ্যে এটা দেখাটা বিরল। আমি প্রতিদ্বন্দ্বী মনোভাবের মানুষ পছন্দ করি। ওর মাঠের আচরণ আমার খুব ভালো লাগে!’

এই ভালোলাগা থেকেই কিনা, বিশ্বকাপে প্রতিপক্ষ রশিদের শুভ কামনাও কামনা করেছেন কোহলি, ‘বিশ্বকাপে ওর জন্য শুভকামনা। ও যখন বল করে, আপনাকে তা স্থির হয়ে দেখতেই হবে। সত্যিই বিশ্বকাপে আফগানিস্তানের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ হবে সে।’

কোহলির মতো বিশ্বসেরা ব্যাটসম্যানের মুখে এমন প্রশংসা এবং শুভ কামনার কথা শুনে রশিদ খান নিশ্চয়ই খুব খুশি।

কেআর/