প্রাণ-আরএফএলের ১৭ কোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকি

ঢাকা, ১ জুলাই, ২০১৯ | 2 0 1

প্রাণ-আরএফএলের ১৭ কোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকি

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ৯:০০ অপরাহ্ণ, মে ০৭, ২০১৯

প্রাণ-আরএফএলের ১৭ কোটি টাকা রাজস্ব ফাঁকি

দেশের স্বনামধন্য কোম্পানি প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের ৩টি প্রতিষ্ঠানের প্রায় ১৭ কোটি ৫৫ লাখ টাকা রাজস্ব ফাঁকির তথ্য উদদঘাটন করেছে শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর।

মঙ্গলবার শুল্ক গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ড. সহিদুল ইসলাম পরিবর্তন ডটকমকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। 

তিনি বলেন, বন্ড সুবিধায় আনা পণ্য খোলাবাজারে বিক্রি করে দেয় প্রাণ-আরএফএল গ্রুফের ৩টি প্রতিষ্ঠান। এর মাধ্যমে  প্রতিষ্ঠানগুলো সরকারের প্রায় সাড়ে ১৭ কোটি টাকা রাজস্ব হাতিয়ে নিয়েছে। প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা ও ফাঁকি দেয়া রাজস্ব উদ্ধারে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ইতোমধ্যে রাজস্ব উদ্ধারে ৩টি মামলাও করা হয়েছে।

জানা গেছে, কাস্টমস গোয়েন্দা ও তদন্ত অধিদপ্তর ঢাকা কর্তৃক প্রাণ-আরএফএল গ্রুপের ৩টি প্রতিষ্ঠান কর্তৃক  ৬৭ কোটি ৫৫ লাখ টাকা মূল্যের বন্ডের পণ্য খোলাবাজারে বিক্রির ঘটনা উদ্ঘাটন করে।

গত ২৯ এপ্রিল সহকারী পরিচালক আবদুল্লাহ আল মামুনের নেতৃত্বে ৯ সদস্যের একটি টিম প্রাণ আরএফএলের রফতানিমুখী ৩টি বন্ডেড প্রতিষ্ঠানে অভিযান পরিচালনা করে।

অভিযানকালে দেখা যায়, অল প্লাস্ট বিডি লিমিটেডের বন্ডেড ওয়্যারহাউসে বন্ড রেজিস্ট্রার অনুযায়ী ৪০১১.৩৭ মে. টন পণ্য (PP, LDPE, LLDPE, HDPE, Printing Ink প্রভৃতি) মজুদ থাকার কথা। কিন্তু সরেজমিনে ইভেন্ট্রি করে ২৮৭৩.২৪ মে. টন পণ্য কম পাওয়া যায়।

এছাড়া প্রাণ আরএফএল কোম্পানি ময়মনসিংহ এগ্রো লিমিটেডে একই দিনে অভিযান পরিচালনায় দেখা যায়, প্রতিষ্ঠানের বন্ডেড ওয়্যারহাউসে বন্ড রেজিস্ট্রার অনুযায়ী ১৫০.১১ মে. টন পণ্য ( Pet Resin, Flavour প্রভৃতি) মজুদ থাকার কথা। কিন্তু সরেজমিনে এভেন্ট্রি করে ৩০.৭৮ মে. টন পণ্য কম পাওয়া যায়।

ময়মনসিংহ এগ্রো লিমিটেড ইউনিট-৩ নামে প্রতিষ্ঠানে একই দিনে অভিযান পরিচালনায় দেখা যায়, প্রতিষ্ঠানের বন্ডেড ওয়্যারহাউসে বন্ড রেজিস্ট্রার অনুযায়ী ১৭৯২.৩২ মে. টন পণ্য (Film, LDPE প্রভৃতি) মজুদ থাকার কথা। কিন্তু সরেজমিনে এটাতে ১১১৩.৯৮ মে. টন পণ্য কম পাওয়া যায়। ফাঁকিকৃত পণ্যের শুল্ককরসহ মূল্য ১৭ কোটি ১৯ লাখ টাকা এবং ফাঁকিকৃত শুল্ককরের পরিমাণ ৪ কোটি ৫৪ লাখ টাকা।

সবমিলে প্রাণ আরএফএল গ্রুপের এ তিনটি প্রতিষ্ঠানের গুদামে বন্ড রেজিস্টারে উল্লেখিত মজুদ অপেক্ষা ৪০১৮ মে. টন পণ্য কম পাওয়া যায়। যার শুল্ককরসহ মোট মূল্য ৬৭.৫৫ কোটি টাকা এবং ফাঁকিকৃত শুল্ককরের পরিমাণ ১৭ কোটি ৫৫ লাখ টাকা।

এফএ/এইচআর

 

পরিবর্তন বিশেষ: আরও পড়ুন

আরও