বিশেষ অভিযানে কুমিল্লায় গ্রেফতার ১১৭

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮ | ২৯ কার্তিক ১৪২৫

বিশেষ অভিযানে কুমিল্লায় গ্রেফতার ১১৭

কুমিল্লা প্রতিনিধি ১১:৩৬ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৯, ২০১৮

বিশেষ অভিযানে কুমিল্লায় গ্রেফতার ১১৭

কুমিল্লার বিভিন্ন উপজেলায় বিশেষ অভিযান চালিয়ে ১১৭ গ্রেফতার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত থেকে শুক্রবার সন্ধ্যা পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয় বলে জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে।

জানা যায়, নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড রুখতে এবং অপরাধী ও মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতারের লক্ষ্যে কুমিল্লার ১৭টি থানা পুলিশের পাশাপাশি জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশ বিভিন্ন স্থানে বিশেষ অভিযান চালায়। এ অভিযানে বিভিন্ন থানার নিয়মিত মামলায় ৮১ জন ও নাশকতার মামলায় ৬৭ জনকে গ্রেফতার করা হয়। এছাড়াও মাদক মামলায় ১৯ জনকে গ্রেফতারের পাশাপাশি মাদক নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে ১২টি।

৭ উপজেলায় বিএনপি-জামায়াতের ২৬ নেতা-কর্মী গ্রেফতার:

কুমিল্লার ৬ থানায় পুলিশ ও ডিবির পৃথক বিশেষ অভিযানে বিএনপি-জামায়াতের ২৫ জন নেতা-কর্মী আটক হয়েছেন। বৃহস্পতিবার দিবাগত রাতে জেলার দাউদান্দি, হোমনা, তিতাস, মেঘনা, বুড়িচং ও ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদেরকে আটক করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ। এছাড়াও কুমিল্লা নগরীতে অভিযান চালিয়ে গ্রেফতার করা হয়েছে দেবীদ্বার উপজেলার বিএনপির সাধারণ সম্পাদক গিয়াস উদ্দিনকে।

এর মধ্যে দাউদকান্দি উপজেলায় ছয়জন, হোমনা উপজেলায় ছয়জন, তিতাস উপজেলায় তিনজন এবং মেঘনা উপজেলায় একজনকে আটক করে থানা পুলিশ। পরে ৬টি থানা কর্তৃপক্ষ নাশকতার অভিযোগ এনে তাদের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করে। শুক্রবার গ্রেপ্তারকৃতদের জেল হাজতে প্রেরণ করেছে পুলিশ।

হোমনা থানায় আটককৃতরা হলেন মোঃ নজরুল ইসলাম, আবদুর রহিম, আবদুল লতিফ, মনির হোসেন, দৌলত হোসেন মেম্বারও স্বপন কুমার। তিতাস থানায় আটককৃতরা হলেন- মালু বেপারী, আলী বেপারী ও মুজিবুর রহমান। মেঘনা থানায় বাহাউদ্দিনকে আটক করা হয়েছে।

এছাড়াও দাউদকান্দি থানা পুলিশের অভিযানে গ্রেফতার হয়েছেন পৌর ছাত্রদলের প্রচার সম্পাদক সাত্তার মিয়া, উপজেলার দৌলতপুর ইউনিয়ন যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমানসহ ৬ নেতাকর্মী।

বিষয়টি নিশ্চিত করে দাউদকান্দি মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ আলমগীর হোসেন জানান, নাশকতার অভিযোগে দাউদকান্দির বিভিন্ন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করা হয়েছে।

এ ব্যাপারে এ ব্যাপারে দাউদকান্দি মডেল থানা মামলা দায়ের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি।

অপরদিকে কুমিল্লার বুড়িচং ও ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার বিভিন্ন এলাকা থেকে গ্রেফতার হয়েছে বিএনপি-যুবদল-ছাত্রদলের ৯ নেতাকর্মীকে। জেলা গোয়েন্দা সংস্থা (ডিবি) ও বুড়িচং- ব্রাহ্মণপাড়া থানা পুলিশ দুটি উপজেলায় পৃথক ৩টি অভিযান চালিয়ে তাদেরকে গ্রেফতার করে।

তারা হচ্ছেন বুড়িচং উপজেলা বিএনপির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও কুমিল্লা পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ মোঃ সালাউদ্দিন, বুড়িচং উপজেলার ময়নামতি ইউনিয়ন ছাত্রদলের সভাপতি মো: শাহজাহান মাষ্টার, ইউনিয়ন ছাত্রদল নেতা মোসাদ্দেক হোসেন, বিল্লাল হোসেন, আনোয়ার হোসেন, রাজাপুর ইউনিয়ন যুবদলের সাধারণ সম্পাদক মিজানুর রহমান এবং ব্রাহ্মণপাড়া উপজেলার ষাটশালা গ্রামের রাকিব আখন্দ, কান্দুঘর গ্রামের আতিকুর রহমান ও একই গ্রামের আবুল বাশার।

পুলিশ ও ডিবির ভাষ্য, নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড ঘটানোর লক্ষ্যে গোপন বৈঠক থেকে তাদের আটক করা হয়েছে।

ব্রাহ্মণপাড়া থানার ওসি সৈয়দ আবু মোহাম্মদ শাহজাহান কবির, বুড়িচং থানার ওসি আকুল চন্দ্র দেবনাথ এবং জেলা গোয়েন্দা (ডিবি) পুলিশের ওসি নাছির উদ্দিন মৃধা পৃথক অভিযানে ৯ জনকে আটকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

অপরদিকে দেবীদ্বার উপজেলা বিএনপির সাধারন সম্পাদক মোঃ গিয়াস উদ্দিনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শুক্রবার সকালে কুমিল্লা নগরীর বাগিচাগাঁও এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

নাশকতার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে একাধিক মামলা রয়েছে বলে জানিয়েছেন দেবীদ্বার থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মোর্শেদুল আলম।

এআরই