নোয়াখালী আ’লীগের সম্মেলনে সংঘর্ষ, আহত ৫০

ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

নোয়াখালী আ’লীগের সম্মেলনে সংঘর্ষ, আহত ৫০

নোয়াখালী প্রতিনিধি ১:২৭ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২০, ২০১৯

নোয়াখালী আ’লীগের সম্মেলনে সংঘর্ষ, আহত ৫০

নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ ও ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এসময় উভয় পক্ষের অর্ধশতাধিক কর্মী-সমর্থক আহত হয়েছেন।

বুধবার সকাল ৯টা থেকে বেলা ১১টা পর্যন্ত জেলা শহর মাইজদীর প্রধান সড়কের টাউন হল থেকে সম্মেলনস্থল স্টেডিয়াম পর্যন্ত এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

সংঘর্ষ চলাকালে সম্মেলনের ব্যানার, ফেস্টুন ও বিলবোর্ড ভাংচুর করা হয়। এ সময় ককটেল বিস্ফোরণ ও গুলির শব্দে শহরে আতংক ছড়িয়ে পড়ে।

সংঘর্ষে আহতদের মধ্যে ৫০ জনকে নোয়াখালী জেনালের হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে বলে জানান হাসপাতালটির আবাসিক মেডিকেল অফিসার (আরএমও) সৈয়দ মহিউদ্দিন আবদুল আজিম।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকাল পৌনে ৯টার দিকে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী নোয়াখালী পৌরসভার মেয়র শহিদ উল্যাহ খাঁন সোহেলের জজকোর্ট সড়ক থেকে অনুসারীরা মিছিল নিয়ে শহীদ ভুলু স্টেডিয়ামের দিকে যাচ্ছিল। একই সময় জেলা আওয়ামী লীগের কার্যালয় থেকে বর্তমান সাধারণ সম্পাদক ও সদর-সুবর্ণচর আসনের সংসদ সদস্য একরামুল করিম চৌধুরীও তার কর্মী সমর্থকদের নিয়ে সম্মেলন স্থলে যাচ্ছিলেন।

পথে নোয়াখালী টাউন হলের মোড়ে উভয় পক্ষ মুখোমুখি হলে প্রথমে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া ও পরে সংঘর্ষ বেধে যায়। এক পর্যায়ে ককটেল বিষ্ফোরণ ও গুলির শব্দে শহরে আতংক ছড়িয়ে পড়ে।

নোয়াখালী পৌরসভার মেয়র শহিদ উল্যাহ খাঁন সোহেল অভিযোগ করেন, বিনা উস্কানিতে এমপি ও তার লোকজন তার লোকজনের ওপর হামলা চালিয়েছে।

এমপি একরামুল করিম চৌধুরী পাল্টা অভিযোগ করেন, শান্তিপূর্ণ সম্মেলনকে বানচাল করার উদ্দেশ্যে তারা শহরে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করছে।

পুলিশ সুপার (এসপি) মো. আলমগীর হোসেন জানান, পরিস্থিতি শান্ত রাখতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী সর্বোচ্চ সর্তক অবস্থায় রয়েছে।

এসবি

 

চট্টগ্রাম: আরও পড়ুন

আরও