থানা থেকে শিকল ভেঙে মোটরসাইকেল নিয়ে পালালেন এসআই

ঢাকা, শনিবার, ৭ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

থানা থেকে শিকল ভেঙে মোটরসাইকেল নিয়ে পালালেন এসআই

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ৬:২১ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৮, ২০১৯

থানা থেকে শিকল ভেঙে মোটরসাইকেল নিয়ে পালালেন এসআই

ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানার ব্যারাক থেকে একটি মোটরসাইকেলের শিকল ভেঙে নিয়ে পালানোর অভিযোগ উঠেছে এক উপ-পরিদর্শক (এসআই)-এর বিরুদ্ধে।

আটককৃত এসআই হলেন জামিরুল ইসলাম। সম্প্রতি তাকে বিভিন্ন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানা থেকে রাঙামাটিতে বদলি করা হয়। সেখান থেকে হাইওয়ে পুলিশে বদলি হন তিনি।

রোববার রাতে তাকে জেলা শহরের পুনিয়াউটে একটি মোটর গ্যারেজ থেকে আটক করা হয়। বিকেলে তাকে হাইওয়ে পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে একটি সূত্র জানিয়েছে।

সদর মডেল থানা সূত্রে জানা, এসআই জামিরুল ইসলাম সদর মডেল থানা থেকে বিভিন্ন অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সম্প্রতি বদলি করা হয়েছে। বদলি হওয়ার আগে একটি অবৈধ মোটরসাইকেল আটক করে এই এসআই। কিন্তু সেই মোটরসাইকেলটিকে কোনো প্রকার মামলা না দিয়ে তার হেফাজতে রেখে দেন। তাকে সদর মডেল থানা থেকে রাঙ্গামাটিতে বদলি করা হয়। সেখান থেকে হাইওয়ে পুলিশে হেড কোয়ার্টারে বদলি হন। তার কর্মস্থল থেকে রোববার বিকেলে এসআই জামিরুল ইসলাম সদর মডেল থানায় আসেন।

থানায় এসে পুলিশের বাধা উপেক্ষা করে ব্যারাকে শিকল ভেঙে মোটরসাইকেলটি নিয়ে পালিয়ে যান। এসময় বাধা দেয়ায় একজন কনেস্টেবল আহত হন। পরে রাতে শহরের পুনিয়াউট একটি মোটর গ্যারেজ থেকে এসআই জামিরুলকে আটক করা হয়। রোববাত রাত থেকে সোমবার বিকেল পর্যন্ত তাকে থানায় বসিয়ে রাখা হয়।

ঘটনাটি পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকতাসহ হাইওয়ে পুলিশ বিভাগকে জানানো হয়। হাইওয়ে পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকতাদের নির্দেশে ব্রাহ্মণবাড়িয়া খাঁটিহাতা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মাইনুল ইসলামের কাছে সদর মডেল থানা পুলিশ এসআই জামিরুলকে হস্তান্তর করে।

এ ঘটনায় ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানা পুলিশের কারো বক্তব্য চেষ্টা করেও জানা যায়নি।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) মো. রেজাউল কবির সাংবাদিকদের জানান, এ ঘটনায় অভিযুক্ত এসআইয়ের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।

তবে এ বিষয়ে বক্তব্য জানতে চাওয়া হলে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ আনিসুর রহমান বলেন, ‘ঘটনাটি আমি অবগত নয়। আমি জেনেছি, ওই এসআই একটি বিভাগীয় মামলায় সাক্ষী দিতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় এসেছেন। এ বিষয়ে আমি খোঁজ নিচ্ছি।

এআর/এইচআর

 

চট্টগ্রাম: আরও পড়ুন

আরও