বাংলাদেশের ইতিহাসে ভয়াবহ ৭ রেল দুর্ঘটনা

ঢাকা, শনিবার, ১৪ ডিসেম্বর ২০১৯ | ৩০ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

বাংলাদেশের ইতিহাসে ভয়াবহ ৭ রেল দুর্ঘটনা

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ১:৫৪ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৩, ২০১৯

দেশের অধিকাংশ মানুষই নির্ভরযোগ্য ও নিরাপদ ভ্রমণ হিসেবে রেলকে বেঁছে নেন। স্বপ্ল খরচে ও আরামদায়-স্বস্তির ভ্রমণের কারণেই সবচেয়ে নিরাপদ মনে করা হয় ট্রেনকে। কিন্তু সামান্য ভুলের কারণে বাংলাদেশ রেলের ইতিহাসের ভয়াবহ দুর্ঘটনার নজিরও রয়েছে।

বাংলাদেশের ইতিহাসে এখন পর্যন্ত লাইনচ্যুত হয়ে বা মুখোমুখি সংঘর্ষের কারণে ভয়াবহ দুর্ঘটনায় নিহত হয়েছেন প্রায় ৬শ ওপর যাত্রী। আহত কয়েক হাজার। সর্বশেষ ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় সোমবার দিবাগত রাতে ঘটে গেল রেলের ইতিহাসে আরেক মর্মান্তিক দুর্ঘটনা। সেখানেও নিহত হয়েছেন ১৫ অধিক যাত্রী। আহত শতাধিক।

রেল ইতিহাসে সবচেয়ে ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটেছিল ১৯৮৯ সালের ১৫ জানুয়ারিতে। টঙ্গির মাজুখানে দুটি ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষে ১৭০ জন যাত্রী নিহত হয়েছিলেন। যা ছিল রেলওয়ের ইতিহাসে সবচেয়ে মর্মান্তিক। এ ঘটনায় আহত হয়েছিলেন আরও ৪০০ জন। একই বছরের ২ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রামের কাছাকাছি ট্রেন লাইনচ্যুত হয়ে ১৩ জন নিহত ও আহত হয়েছিলেন ২০০ জন।

তথ্যানুসারে, ১৯৭২ সালের ২ জুন যশোরে দুর্ঘটনায় ৭৬ যাত্রী মারা যায় এবং ৫০০ যাত্রী আহত হয়। ১৯৭৯ সালের ২৬ জানুয়ারি চুয়াডাঙ্গায় ট্রেন লাইনচ্যুত হয়ে ৭০ জন মারা যায় ও আহত হয় ৩’শ যাত্রী।

১৯৮৩ সালের ২২ মার্চ ঈশ্বরদীর রেল সেতু ভেঙে কয়েকটি বগি নিচে ছিটকে পড়ে ৬০ জন যাত্রী নিহত হয়েছিলেন।

এর দুই বছর পর অর্থাৎ ১৯৮৫ সালের ১৩ জানুয়ারি খুলনা থেকে পার্বতীপুরগামী সীমান্ত এক্সপ্রেসের কোচে আগুন ধরে ২৭ জন যাত্রী নিহত হয়।

১৯৮৬ সালের ১৫ মার্চ সর্বহারার নাশকতায় ভেড়ামারার কাছে ট্রেন লাইনচ্যুত হয়ে নদীতে পড়ে গিয়ে ২৫ জন যাত্রী নিহত হয়েছিলেন।

এরপর বেশ কয়েক বছর ছোটখাট দুর্ঘটনা ঘটলেও ১৯৯৫ সালে হিলিতে রাতের বেলায় দুটি ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষে অর্ধশতাধিক যাত্রী নিহত হয়েছিলেন। আহত ছিল দুই শতাধিক। ২০১০ সালেও ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষে চালকসহ ১২ জন নিহত হয়েছিলেন।

ভুল সিগন্যালের কারণে ২০১৬ সালে দুইজন, ২০১৮ সালে লাইনচ্যূত হয়ে ৫জন, ২০১৯ সালে ২৩ জুনে মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়ায় ৬ জন নিহত হন। একই বছরের নভেম্বরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলায় দুই ট্রেনের মুখোমুখি সংঘর্ষে ১৭ জন নিহত হন।

সর্বশেষ আরেক ভয়াবহ ট্রেন দুর্ঘটনার শিকার হলো ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায়। সোমবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে উপজেলার মন্দভাগে চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেস ও ঢাকাগামী তুর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেনের সংঘর্ষ হয়।

সার্বিক ব্যবস্থাপনায় রেলপথ উন্নয়নের দ্বারপ্রান্তে আসলেও কিছু মর্মান্তিক দুর্ঘটনা সাধারণ মানুষের মনে ট্রেন ভ্রমণ অ্স্বস্তি ও ভীতির কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এই সকল দুর্ঘটনা এড়িয়ে মানুষের যাত্রা আরো শুভ হবে এবং ট্রেন জার্নি বিনোদনময় হবে তেমন প্রত্যাশা সবার।

বিস্তারিত জানতে ভিডিওটি দেখুন...

 

ভিডিও: আরও পড়ুন

আরও