ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহতদের মরদেহ হস্তান্তর সম্পন্ন

ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহতদের মরদেহ হস্তান্তর সম্পন্ন

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ১০:৩৪ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১২, ২০১৯

ট্রেন দুর্ঘটনায় নিহতদের মরদেহ হস্তান্তর সম্পন্ন

ঢাকা-চট্রগ্রাম ও চট্রগ্রাম-সিলেট রেলপথে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবার মন্দভাগে চট্রগ্রাম গামী উদয়ন এক্সপ্রেস ও ঢাকাগামী তুর্ণা এক্সপ্রেস ট্রেন মুখোমুখি সংঘর্ষের ঘটনায় নিহত সকলের মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

মঙ্গলবার রাত সাড়ে ৯টার দিকে স্বজনদের কাছে মরদেহ হস্তান্তর প্রক্রিয়া শেষ হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়ার অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. শামসুজ্জামান।

 

 

তিনি জানান, নিহত ১৬ জনের মরদেহ তাদের পরিবারের সদস্যদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। রাত সাড়ে ৯টার দিকে নোয়াখালীর রবি লাল হরিজনের মরদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তরের মাধ্যমে এই প্রক্রিয়া শেষ হয়। মরদেহের সাথে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে ২৫ হাজার টাকা দাফন-কাফনের জন্য দেওয়া হয়েছে।

তিনি আরও জানান, কসবার বায়েক শিক্ষা সদন উচ্চ বিদ্যালয়ে অস্থায়ী ক্যাম্পে ১০টি মরদেহ, কসবা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে ৩টি মরদেহ, জেলা সদর হাসপাতাল থেকে ২টি মরদেহ ও কুমিল্লা থেকে একটি মরদেহ নিহতের স্বজনরা গ্রহণ করে।

মঙ্গলবার ভোর ৩টার দিকে এই দুর্ঘটনা ঘটে। দুর্ঘটনার পর ঢাকার সঙ্গে চট্টগ্রাম ও সিলেটের রেলযোগাযোগ ৮ ঘন্টা বন্ধ ছিল। ঘটনাস্থলে দমকল বাহিনীর সদস্যরা, বিজিবি, রেলওয়ে ও থানা পুলিশ কাজ করে। লাকসাম থেকে দুর্ঘটনায় পতিত ট্রেনকে উদ্ধারে দুই ক্রেন কাজ করে।

দুর্ঘটনা তদন্তে জেলা প্রশাসন ও রেল মন্ত্রণালয় থেকে ৫টি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে তূর্ণা এক্সপ্রেসের লোকো মাস্টার(চালক), সহকারী লোকো মাস্টার (সহকারী চালক) ও গার্ডকে।

জানা গেছে, ৭২৪ উদয়ন এক্সপ্রেস-২৯৩৪ মন্দবাগ লুপ লাইনে প্রবেশকালে ঢাকা অভিমুখী ৭৪১ তুর্ণা এক্সপ্রেস-২৯২৩ বিপরীত দিক থেকে এসে সংঘর্ষ ঘটায়। উদয়নের অন্তত ৭টি কোচ মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

যাত্রীদের সূত্রে জানা গেছে, সিলেট থেকে চট্টগ্রাম অভিমুখী উদয়ন মন্দবাগ লুপ লাইনে প্রবেশ করছিল। এ সময় চট্টগ্রাম থেকে ঢাকাগামী তুর্ণা এক্সপ্রেস উদয়নের শেষের কোচ গুলোকে ধাক্কা মারে। দুর্ঘটনার পর পরই আশপাশের গ্রাম থেকে মানুষজন ছুটে আসে।

এআর/এআরই

 

চট্টগ্রাম: আরও পড়ুন

আরও