‘সোহা মনি যে বেঁচে নেই, জানে না বাবা-মা’

ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

‘সোহা মনি যে বেঁচে নেই, জানে না বাবা-মা’

আবুল হাসনাত মো. রাফি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া ১২:০২ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১২, ২০১৯

‘সোহা মনি যে বেঁচে নেই, জানে না বাবা-মা’

সোহা মনি (৩) হবিগঞ্জ থেকে বাবা, মা ও ভাইয়ের সাথে উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনে যাচ্ছিলেন চট্রগ্রামে বাবার কর্মস্থলে। পথিমধ্যে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবায় মন্দবাগে তুর্ণা নিশীতা সাথে মুখোমুখি সংঘর্ষ হয় উদয়ন এক্সপ্রেসের।

দুর্ঘটনায় সোহা মনিসহ প্রায় ১৬ জনের প্রাণহানির ঘটনা ঘটে। আহত হয় প্রায় দেড় শতাধিক যাত্রী।

সূত্র জানায়, দুর্ঘটনার পর সোহাকে আহত অবস্থায় দমকল বাহিনীর সদস্যরা জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে আসে। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় সোহা মনি। কিন্তু সেই সময় তার মা,বাবা বা ভাই কাউকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছিল না।

এই দুর্ঘটনার খবর গণমাধ্যমে জানতে পেরে হবীগঞ্জ থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর হাসপাতালে ছুটে আসেন সোহার মামা জামাল উদ্দিন। তিনি হাসপাতালের কোথাও সোহাসহ কাউকে খুঁজে পাননি। পরে হাসপাতালের মর্গে শিশু সোহার মরদেহ দেখতে পান।

পরবর্তীতে সোহার বাবা সোহেল মিয়া, মা নাজমা বেগম ও সোহার ভাই সোহাগের (৫) খোঁজ পান। কিন্তু তাদের মধ্যে শিশু সোহাগের অবস্থা কিছুটা ভাল থাকলেও সোহার মায়ের দুটি পা ও একটি হাত দুর্ঘটনায় পুরাপুরি নষ্ট হয়ে গেছে। আর সোহার বাবা সোহেল মিয়ার দুইটি পা দুর্ঘটনায় হারিয়ে গেছে।

সোহার মামা জামাল উদ্দিন পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, সোহাদের বাড়ি হবীগঞ্জের বানিয়াচংয়ে। তার বাবা সোহেল চট্টগ্রামে একটি গার্মেন্টসে চাকুরির সুবাধে তারা সেখানে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকেন। গত ৪/৫দিন আগে বাড়িতে বেড়াতে আসে। সোমবার রাতে চট্টগ্রামের উদ্দেশ্যে রওয়ানা দেয়। পথে এই ঘটনা ঘটে।

তিনি বলেন, সোহার মা-বাবাকে জানানো হয়নি সে যে মারা গেছে। তাদেরকে বলা হয়েছে সে অসুস্থ। সোহার মা, বাবা ও ভাইকে এম্বুলেন্স যোগে হবীগঞ্জে জেনারেল হাসপাতালে চিকিৎসার পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। সোহার মরদেহ নিতে আমি রয়ে গেছি। কিন্তু সোহার মা-বাবা তাকে দেখতে চাচ্ছেন।

উল্লেখ্য,  ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার মন্দবাগ এলকায় দুটি ট্রেনের সংঘর্ষে অন্তত ১৫ জন নিহত এবং শতাধিক আহত হয়েছেন।

সোমবার দিবাগত রাত ৩টার দিকে চট্টগ্রাম থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী তূর্ণা নিশিথা ও সিলেট থেকে ছেড়ে আসা চট্টগ্রামগামী উদয়ন এক্সপ্রেস ট্রেনের সাথে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

এএইচআর/জেডএস

 

চট্টগ্রাম: আরও পড়ুন

আরও