ডাক্তার শাহ আলম হত্যার প্রধান অভিযুক্ত ‘গোলাগুলি’তে নিহত

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

ডাক্তার শাহ আলম হত্যার প্রধান অভিযুক্ত ‘গোলাগুলি’তে নিহত

চট্টগ্রাম ব্যুরো ৯:৫৬ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ২৩, ২০১৯

ডাক্তার শাহ আলম হত্যার প্রধান অভিযুক্ত ‘গোলাগুলি’তে নিহত

ডা. শাহ আলম

চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের উত্তর বাঁশবাড়িয়ায় র‌্যাবের টহল দলের সঙ্গে কথিত গোলাগুলিতে মারা গেছেন নজির আহমেদ সুমন প্রকাশ ওরফে কালু (২৬) নামের এক যুবক। র‌্যাবের দাবি, ওই যুবক চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডের প্রবাস ফেরত চিকিৎসক শাহ আলমের খুনের প্রধান অভিযুক্ত এবং স্থানীয় ডাকাত দলের নেতা।

আজ বুধবার ভোর সাড়ে ৪টার দিকে সীতাকুণ্ডের বাঁশবাড়িয়া ইউনিয়ন থেকে কালুর মরদেহ উদ্ধার করে মর্গে পাঠিয়েছে পুলিশ।

র‌্যাব-৭ এর সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মো. মাহমুদুল হাসান মামুন এই খবর নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, নিহতের মরদেহের পাশাপাশি একটি বিদেশি পিস্তল, একটি বন্দুক ও ২৭ রাউন্ড গুলি উদ্ধার উদ্ধার করা হয়েছে।

উল্লেখ্য, একদিন আগে র‌্যাব চিকিৎসক শাহ আলম খুনের সঙ্গে জড়িত ওমর ফারুক (১৯) নামে এক তরুণকে আটক করে। সে পেশায় গাড়ি চালক। আটক ওমর ফারুক হত্যাকাণ্ডের বিবরণ দিয়ে আদালত ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

জবানবন্দিতে নিজে ছাড়া হত্যাকাণ্ডে আরও চারজন জড়িত থাকার কথা আদালতকে জানায় ওমর ফারুক।

র‌্যাবের এক কর্মকর্তা জানান, কারাগারে পাঠানোর আগে ওমর ফারুকের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে চিকিৎসক শাহ আলমের খুনে জড়িত নজির আহমেদ সুমন প্রকাশ কালুকে আটকের জন্য অভিযানে নামে র‌্যাব। মঙ্গলবার দিনগত রাতে সীতাকুণ্ডের বাঁশবাড়িয়া এলাকায় অভিযান চালাতে গেলে র‌্যাবের অভিযান টের পেয়ে কালু ও তার সহযোগীরা র‌্যাবের ওপর আক্রমণ শুরু করে। সে সময় র‌্যাবও পাল্টা জবাব দেয়। দীর্ঘ গোলাগুলির পর ঘটনাস্থলে একটি লাশ পড়ে থাকতে দেখা যায়।

র‌্যাব কর্মকর্তা কাজী তারেক আজিজ বলেন, গত ১৭ অক্টোবর বৃহস্পতিবার রাতে কর্মস্থল সীতাকুণ্ড থেকে চট্টগ্রাম মহানগরীর চান্দগাঁওয়ের বাসায় ফিরতে একটি লেগুনায় (জিপ) উঠেন প্রবাস ফেরত চিকিৎসক শাহ আলম।

ছিনতাইকারী চক্র লেগুনাটি রয়েল গেট এলাকায় পৌঁছালে চিকিৎসক মো. শাহ আলমের কাছ থেকে টাকা পয়সা এবং মূল্যবান জিনিসপত্র ছিনিয়ে নেয়ার চেষ্টা করে। সে সময় শাহ আলম বাধা দিলে ছিনতাইকারীদের সাথে ধস্তাধস্তি শুরু হয়।

এক পর্যায়ে ছিনতাইকারীরা চিকিৎসক শাহ আলমকে ছুরিকাঘাতে নির্মমভাবে হত্যা করে। হত্যা করার পর তার লাশ রাস্তার পাশে ঝোপের মধ্যে ফেলে দেয়। এর পর তারা লেগুনা নিয়ে সাগর পাড়ে গিয়ে রক্ত ধুয়ে পরিষ্কার করে।

জেএইচ/আরপি

 

চট্টগ্রাম: আরও পড়ুন

আরও