ফের ছাত্র বলাৎকার, শিক্ষক বললেন মশকরা করছি

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

ফের ছাত্র বলাৎকার, শিক্ষক বললেন মশকরা করছি

ফেনী প্রতিনিধি ৬:০৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৯, ২০১৯

ফের ছাত্র বলাৎকার, শিক্ষক বললেন মশকরা করছি

ফেনীর সোনাগাজী উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের মাদরাসাতু ওসমান (রা.) মাদ্রাসায় ফের ছাত্র বলাৎকারের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শুক্রবার দুপুরে হোস্টেলে মাদ্রাসার খাদেম নুর ইসলাম দরবেশ (৫৫) হিফজ বিভাগের ছাত্রকে বলাৎকার করেন।

এর আগে গত বছরের ১৫ আগস্ট একই মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা আব্দুল ফাত্তাহ বিন আমিনের বিরুদ্ধে তিন ছাত্রকে বলাৎকারের অভিযোগ ওঠে। এ ঘটনায় সোনাগাজী থানায় মামলা হলে তিনি এখনও পলাতক।

নির্যাতিত ছাত্রের পরিবার জানায়, দুপুরে ছাত্রটি সাইকেল চালিয়ে মাদ্রাসার পাশ দিয়ে যাওয়ার সময় অভিযুক্ত খাদেম নুর ইসলাম দরবেশ তাকে ডেকে হোস্টেলে নিয়ে যায়। এসময় খাদেম ছাত্রটিকে জোরপূর্বক বলাৎকার করেন। ছাত্রটি চিৎকার করলে খাদেম তাকে একশত টাকা হাতে দিয়ে কাউকে না বলার জন্য হুমকি দেন। একপর্যায়ে ছাত্রটি কৌশলে মাদ্রাসা থেকে বেরিয়ে গিয়ে তার দাদাকে ঘটনাটি জানায়। বিষয়টি জানাজানি হলে ছাত্রের পরিবার ও এলাকাবাসী মাদ্রাসায় যাওয়ার আগেই অভিযুক্ত নুর ইসলাম পালিয়ে যান।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে হোস্টেলে অবস্থানরত একাধিক ছাত্র ঘটনাটি সত্য জানিয়ে বলেন, মাদ্রাসার কয়েকজন শিক্ষক এর আগেও ছাত্রদের বলাৎকার করেন। দুই একটি ঘটনা প্রকাশ পেলেও লোকলজ্জার ভয়ে অনেকে বলাৎকারের ঘটনা প্রকাশ করে না।

এ ব্যাপারে অভিযুক্ত নুর ইসলাম দরবেশের গোয়ালিয়া গ্রামের বাড়িতে গেলে তাকে পাওয়া যায়নি।

পরে মোবাইল ফোনে জানান তিনি এখন চট্টগ্রামে আছেন।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, নাতি হিসেবে তার সাথে মশকরা করেছেন দাবি করে ঘটনাটি প্রকাশ না করার জন্য অনুরোধ করেন।

মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা রুহুল আমিন জানান, ঘটনাটি তিনি শুনেছেন। কিন্তু পালিয়ে যাওয়ার কারণে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া যাচ্ছে না।

সোনাগাজী মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) মঈন উদ্দিন আহমদ জানান, ঘটনার বিষয়ে তার কাছে কেউ অভিযোগ করেনি। লিখিত অভিযোগ পেলে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এসবি

 

চট্টগ্রাম: আরও পড়ুন

আরও