অশ্লীল ছবি ইন্টারনেটে ছড়ানোর হুমকি দিয়ে টাকা দাবি, গ্রেফতার ৩

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

অশ্লীল ছবি ইন্টারনেটে ছড়ানোর হুমকি দিয়ে টাকা দাবি, গ্রেফতার ৩

চট্টগ্রাম ব্যুরো : ১০:৪৮ পূর্বাহ্ণ, অক্টোবর ১৭, ২০১৯

অশ্লীল ছবি ইন্টারনেটে ছড়ানোর হুমকি দিয়ে টাকা দাবি, গ্রেফতার ৩

ফেসবুকে স্কুলছাত্রীর সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক তৈরির পর অশ্লীল ছবি ইন্টারনেটে ছড়ানোর হুমকি দিয়ে ১০ লাখ টাকা দাবির ঘটনায় তিন জনকে গ্রেফতার করেছে সিএমপির পাহাড়তলী থানা পুলিশ। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে একজন ওই কিশোরীর আপন খালু। সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে তাদের গ্রেফতার করা হয়েছে বলে জানিয়েছে পুলিশ। পুলিশের ভাষ্য, কিশোরীর খালুই নিজের পরিচয় গোপন করে কিশোরীর সঙ্গে সম্পর্ক তৈরি করেন। ঘটনার শিকার কিশোরী নগরের পাহাড়তলী থানা এলাকার একটি বালিকা বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন,কিশোরীর খালু জামাল হোসেন (৩০) ও তার দুই বন্ধু তানভীর আহমেদ রিপন (২৬) ও মো. রাজীব (২৩)।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও সিএমপির পাহাড়তলী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) পলাশ ঘোষ জানান, গ্রেফতার জামাল ফেসবুকে ছদ্মনামে একটি আইডি খুলে ওই কিশোরীকে বন্ধুত্বের অনুরোধ পাঠান। কিশোরী সেটা গ্রহণের পর নিয়মিত কথাবার্তার মাধ্যমে তাদের মধ্যে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। একপর্যায়ে জামাল তাকে মেসেঞ্জারে আপত্তিকর ছবি পাঠানোর অনুরোধ করেন। কিশোরী অপারগতা জানালে জামাল তার আইডি থেকে কিছু ছবি নিয়ে সেগুলো এডিট করে অশ্লীলভাবে তৈরি করে তার মেসেঞ্জারে পাঠায়।

এতে কিশোরী ভয় পেয়ে তার ব্যক্তিগত কয়েকটি আপত্তিকর ছবি জামালের মেসেঞ্জারে দেন। তখন জামাল সেই ছবি প্রকাশের হুমকি দিয়ে টেলিফোনে কিশোরীর মায়ের কাছে ১০ লাখ টাকা দাবি করেন। টাকা দিতে অপারগতা জানালে জামাল ওই কিশোরীর ছবি দিয়ে একটি ফেসবুক আইডি খোলেন এবং সেটা কিশোরীকে দেখিয়ে সেখানে আপত্তিকর ছবিগুলো প্রকাশের হুমকি দেন। এরপর মঙ্গলবার রাতে একটি মেমোরি কার্ড কিশোরীর বাসায় পাঠান, যাতে আপত্তিকর ছবিগুলো ছিল।

এসআই পলাশ বলেন, কিশোরী ও তার মায়ের বক্তব্য শুনে ও লিখিত অভিযোগের প্রেক্ষিতে মোবাইল নম্বরের সূত্র ধরে প্রথমে জামাল ও পরে বাকি দুজনকে  গ্রেফতার করা হয়।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়েরকৃত মামলায় বুধবার বিকেলে তাদের তিনজনকে আদালতে হাজির করা হয়েছে। আদালত তাদের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

এমকে/জেইউ

 

চট্টগ্রাম: আরও পড়ুন

আরও