ইউপি আ'লীগ সভাপতির ইশারায় নিরাপত্তাহীনতায় ৩০ পরিবার

ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯ | ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

ইউপি আ'লীগ সভাপতির ইশারায় নিরাপত্তাহীনতায় ৩০ পরিবার

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি ১১:৩৪ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ০৬, ২০১৯

ইউপি আ'লীগ সভাপতির ইশারায় নিরাপত্তাহীনতায় ৩০ পরিবার

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগরের বীরগাঁও ইউনিয়নের উত্তরপাড়ায় তুচ্ছ ঘটনার পর মামলা ও বসতঘরে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছে প্রায় ৩০টি পরিবারের দুইশতাধিক মানুষ।

অভিযোগ রয়েছে, এসবের পেছনে কলকাঠি নাড়ছেন ওই ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের সভাপতি হোসেন সরকার। এসব ঘটনায় উল্টো ওই সকল পরিবারের বিরুদ্ধে নবীনগর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে।

জানা যায়, গত ২৬ সেপ্টেম্বর সাবেক মেম্বার শফিকুল ইসলামের বাড়ির ও সিরাজ মিয়ার বাড়ির ছেলের মধ্যে একটি ক্রিকেট খেলা অনুষ্ঠিত হয়। ওই খেলার মধ্যে দুই বাড়ির ছেলের মধ্যে বাকবিতণ্ডার পর হাতাহাতি হলে দুই পক্ষের দুইজন আহত হয়। তাদের হাসপাতালে নিয়ে চিকিৎসা দেওয়া হয়। বিষয়টি দুই পক্ষের সাহেব-সর্দারদের মিমাংসা করার আলোচনা চলছিল।

এই আলোচনার মধ্যেই ঘটনার ৫দিন পর সিরাজ মিয়ার বাড়ির পক্ষ থেকে থানায় একটি মামলা দেওয়া হয়। মামলার খবর জানার পর শফিকুল মেম্বারের বাড়ির লোকজন গ্রেফতার থেকে বাঁচতে বাড়িঘর থেকে পালিয়ে যায়।

মামলার পর দিন পুলিশ শফিক মেম্বারের বাড়িতে অভিযান চালায়। অভিযানে কোনো বাড়িতে কাউকে না পেয়ে ওই বাড়ির ফাইজুদ্দিনের স্ত্রী তাসলিমা বেগমকে তার শিশু সন্তানসহ আটক করে নিয়ে মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়।

এরপরের দিন ২ অক্টোবর খালি বাড়ি থাকার সুযোগে শফিক মেম্বারের বাড়িতে হামলা করে লুটপাট করে। এসময় নগদ টাকা, মালামাল নিয়ে যায় ও একটি ঘরে আগুন জ্বালিয়ে দেয়।

এই বিষয়ে শফিকুল মেম্বারের বাড়ির মন্নাফ মিয়া জানান, আমরা দুই ছেলের মধ্যে হওয়া ঘটনাটি মিমাংসার পথে নিচ্ছিলাম। কিন্তু এই ঘটনাকে ভিন্নখাতে প্রভাবিত করতে স্থানীয় ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হোসেন সরকার কলকাঠি নেড়েছেন। তার ইশারায় মামলা ও বাড়িতে অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে। অগ্নিসংযোগ করার পর তারা উল্টো বলছে আমরা নিজেরা নাকি অগ্নিসংযোগ করেছি। এই অগ্নিসংযোগের ঘটনায় আমরা মামলা দিলেও থানা পুলিশ মামলা নেয়নি। পরে আলাদাতে মামলা দায়ের করলে বিজ্ঞ আদালত মামলাটি তদন্ত করতে পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন। অগ্নিসংযোগের ঘটনার পর থেকে আমরা নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।

বীরগাঁও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হোসেন সরকার তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগ অস্বীকার করেন।

এই বিষয়ে নবীনগর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) রনোজিত রায় বলেন, আমরা পুরো ঘটনাটি তদন্ত করছি। এই ঘটনায় একজনকে আটক করা হয়েছে।

এআরই

 

চট্টগ্রাম: আরও পড়ুন

আরও