এনআইডি কেলেঙ্কারিতে ইসির আরও এক কর্মী গ্রেফতার 

ঢাকা, রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯ | ৪ কার্তিক ১৪২৬

এনআইডি কেলেঙ্কারিতে ইসির আরও এক কর্মী গ্রেফতার 

চট্টগ্রাম ব্যুরো ৬:১০ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২০, ২০১৯

এনআইডি কেলেঙ্কারিতে ইসির আরও এক কর্মী গ্রেফতার 

চট্টগ্রামে জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) কেলেঙ্কারির ঘটনায় গ্রেফতার হলো মোস্তফা ফারুক নামে নির্বাচন কমিশনের (ইসি) আরও এক অস্থায়ী কর্মী।

তার কাছ থেকে দুইটি ল্যাপটপ, দুইটি পেনড্রাইভসহ বেশকিছু ডকুমেন্ট জব্দ করা হয়েছে।

মোস্তফা ফারুক (৩৬) ফেনী সদর উপজেলার দমদমা গ্রামের  মো. ইলিয়াছের ছেলে।

এনআইডি ক্যালেঙ্কারির ঘটনায় দায়েরকৃত মামলার তদন্তকারী সংস্থা কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা এমনটাই জানিয়েছেন।

শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে গ্রেফতার মোস্তফা ফারককে হাজির করেন। একই সঙ্গে প্রদর্শন করেন মোস্তফা ফারুকের কাছ থেকে জব্দকৃত দুইটি ল্যাপটপসহ অন্যান্য সরঞ্জাম।

কাউন্টার টেরোরিজমের কর্মকর্তারা জব্দকৃত এসব ল্যাপটপ ইসির বলে দাবি করলেও চট্টগ্রাম জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা বলেন পুরোপুরি নিশ্চিত নয়।

এর আগে মোস্তফা ফারুককে আগের দিন বৃহস্পতিবার জিজ্ঞাসাবাদের জন্য চট্টগ্রামে ডেকে নিয়েছিলেন তদন্তকারী কর্মকর্তা কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের পরিদর্শক রাজেশ বড়ুয়া। এনআইডি কেলেঙ্কারিতে জড়িত নিশ্চিত হয়েই ওই রাতেই তাকে মামালায় গ্রেফতার দেখানো হয়।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা রাজেশ বড়ুয়ার দাবি, মোস্তফা ফারুকের নগরীর হামজারবাগের বাসায় অভিযান চালিয়ে নির্বাচন কমিশনের লাইসেন্স করা ল্যাপটপ, মডেম ও পেনড্রাইভ, সিগনেচার প্যাড ও তার ব্যবহৃত  মোবাইল জব্দ করা হয়েছে।

সিএমপির কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের উপ-কমিশনার মোহাম্মদ শহীদুল্লাাহ বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের এনআইডি জালিয়াতির মামলায় জয়নাল আবেদিন নামে একজনকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছি। তার  দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে মোস্তফা ফারুককে আমরা জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ডেকেছিলাম। জিজ্ঞাসাবাদে এ কেলেঙ্কারিতে তার সস্পৃক্ততা পাওয়ায় তাকে গ্রেফতার দেখানো হয়েছে।’

রাজেশ বড়ুয়া জানান, ‘মোস্তফা ফারুককে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে সাতদিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে।’

মোস্তফা ফারুক চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলায় ‘ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম-২০১৯’ এ যুক্ত আছেন। ভুয়া তথ্য দেয়া ব্যক্তিকে ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্তির অভিযোগে ২০১৬ সালে আউটসোর্সিংয়ের ভিত্তিতে নিয়োগ পাওয়া মোস্তফা ফারুককে বাদ দেয়া হয়। কিন্তু তিন বছরের মাথায় আবারও একই দায়িত্ব দেয় নির্বাচন কমিশন (ইসি)।

খোয়া যাওয়া নির্বাচন কমিশনের লাইসেন্স করা ল্যাপটপ ব্যবহার করে রোহিঙ্গাদের ভোটার তালিকায় অন্তর্ভুক্তি এবং এনআইডি পাইয়ে দেয়ার অভিযোগে গত ১৬ সেপ্টেম্বর রাতে জয়নালসহ তিনজনকে আটক করা হয়।

চট্টগ্রাম জেলা নির্বাচন কার্যালয়ের কর্মকর্তারা তাদের আটক করে কোতোয়ালি থানা পুলিশের হাতে দেন। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয় খোয়া যাওয়া একটি ল্যাপটপও। এরপর রাতেই কোতোয়ালি থানায় পাঁচজনকে আসামি করে মামলা করা হয়।

ডবলমুরিং থানা নির্বাচন কর্মকর্তা পল্লবী চাকমা বাদী হয়ে জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন ও ডিজিটাল আইনে মামলাটি করেন।

মামলায় জয়নালের তিনদিন এবং বাকি দুজনের একদিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত।

এইচআর

আরও পড়ুন...
রোহিঙ্গাদের এনআইডি: ইসিকর্মীসহ গ্রেফতার ৩ জন রিমান্ডে
রোহিঙ্গাদের এনআইডি, চট্টগ্রাম নির্বাচন অফিসের কর্মচারীসহ আটক ৩
রোহিঙ্গাদের এনআইডি: ৫ জনের বিরুদ্ধে মামলা

 

চট্টগ্রাম: আরও পড়ুন

আরও