জুলিয়েটের মৃত্যুর পর নতুন জীবনে সেই রোমিও

ঢাকা, ১৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | 2 0 1

জুলিয়েটের মৃত্যুর পর নতুন জীবনে সেই রোমিও

ফেনী প্রতিনিধি ৭:৩৬ অপরাহ্ণ, জুন ১১, ২০১৯

জুলিয়েটের মৃত্যুর পর নতুন জীবনে সেই রোমিও

ফেনী শহরে এক মানসিক ভারসাম্যহীন দম্পতির দীর্ঘদিন অবাধ বিচরণ সবার নজর পড়তো। এই দম্পতির ভালোবাসা এমনই ছিল যে ফেনীর মানুষ তাদের ‘রোমিও-জুলিয়েট’ নামে আখ্যা দিয়েছিল।

রোমিও’র প্রকৃত নাম আবু বক্কর সিদ্দিক। জুলিয়েটের আসল নাম আমেনা বেগম। একটি ঠেলাগাড়িতে জুলিয়েটকে বহন করে রোমিও সারা শহরময় বেড়াত। ভিক্ষা করত।

কখনও কখনও মানুষের ওপর চড়াও হতো। যেখানে যা পেত তা খেত। রাত কাটাত সরকারি অফিস-আদালতের বারান্দায়। অস্বাস্থ্যকর পরিবেশে বসবাস, সন্তান চুরি ও মৃত্যু এবং অভাব অনটনে পড়ে ৫ জুন ঈদুল ফিতরের দিন মারা যায় জুলিয়েট।

ফেনী পৌরসভার ১০নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মাহতাব উদ্দিন মুন্নার সহযোগিতায় পৌরসভার কবরস্থানে জুলিয়েটের দাফন সম্পন্ন হয়। স্ত্রী জুলিয়েটের মৃত্যুর পর কাউন্সিলরের অনুরোধে সুস্থ জীবনে ফিরতে চায় রোমিও সিদ্দিক। এই ধারাবাহিকতায় সিদ্দিকের আগের জামা-কাপড়সহ সবকিছু পুড়িয়ে তাকে পরিচ্ছন্ন করে নতুন জামা পরান মুন্না। মঙ্গলবার দুপুরে আবু বক্কর সিদ্দিক (রোমিও)-কে একটি রিকশা ও একটি রুম ভাড়া করে গৃহস্থলির প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র হস্তান্তর করেন কাউন্সিলর মুন্না।

এসময় প্রথম আলো’র নিজস্ব প্রতিবেদক আবু তাহের, ফেনী প্রেস ক্লাব সভাপতি ও কালের কণ্ঠ জেলা প্রতিনিধি আসাদুজ্জামান দারা, ফেনী চেম্বার অব কমার্স এন্ড ইন্ডাস্ট্রির পরিচালক আবুল কাশেম, অনলাইন নিউজ পোর্টাল ‘ফেনী ট্রিবিউন’ এডিটর ও দ্য ডেইলী সান’র ফেনী প্রতিনিধি আবদুল্লাহ আল-মামুন, সাপ্তাহিক ফেনী সমাচার সম্পাদক মুহিববুল্লাহ ফরহাদ, সাপ্তাহিক ফেনী বার্তার ব্যবস্থাপনা সম্পাদক ও দৈনিক আমাদের নতুন সময় ফেনী প্রতিনিধি এমরান পাটোয়ারী, দৈনিক ফেনীর সময় এর প্রধান প্রতিবেদক আরিফ আজম, সংগঠক কামরুজ্জামান বাবলু, ফজলে ইমাম রকি, সময় নিউজের চিত্র সাংবাদিক জুলহাস তালুকদার, চ্যানেল আইয়ের চিত্র সাংবাদিক দুলাল তালুকদার, ফেনী পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি ইয়াছিন আরাফাত রাজু, সাংস্কৃতিক সংগঠক ও স্বেচ্ছাসেবক দিদার মজুমদারসহ স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

রোমিও আবু বক্কর সিদ্দিক জানান, ফেনী শহরের বারাহিপুরের আবদুল আজিজ ও কদ বানুর ৫ সন্তানের মধ্যে ছোট সন্তান সে। বাবা আবদুল আজিজের কোনো মেয়ে সন্তান না থাকায় ছোটবেলা থেকে আমেনা আক্তারকে লালন-পালন করেন। ভারসাম্যহীন সেই আমেনার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে সিদ্দিকের। পরে বিয়ে করে সংসার পাতে দু’জন। এ কারণে পরিবারের সদস্যরা তাকে ঘর থেকে বের করে দেয়।

ফেনী পৌরসভার কাউন্সিলর মাহতাব উদ্দিন মুন্না জানান, স্ত্রী মারা যাওয়ার পর নিঃসঙ্গ আবু বক্কর সিদ্দিককে সেলুনে নিয়ে চুল কেটে গোসল করিয়ে নতুন জামা কাপড় কিনে দেন। পরে তাকে বুঝিয়ে স্বাভাবিক জীবনে ফিরে আসতে অনুরোধ জানান। পরিবারের সঙ্গে যোগাযোগ করে সিদ্দিককে একটি রিকশা, থাকার জায়গা ও লেপ-তোষক কিনে দেন তিনি।

এইচআর

 

চট্টগ্রাম: আরও পড়ুন

আরও