প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উদ্যোগ, ছয় গৃহহীন পাচ্ছেন ঘর

ঢাকা, রবিবার, ১৬ জুন ২০১৯ | ২ আষাঢ় ১৪২৬

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উদ্যোগ, ছয় গৃহহীন পাচ্ছেন ঘর

ফেনী প্রতিনিধি ৮:০৪ অপরাহ্ণ, মে ২৬, ২০১৯

প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ উদ্যোগ, ছয় গৃহহীন পাচ্ছেন ঘর

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিশেষ উদ্যোগ আশ্রয়ন-২ প্রকল্প। প্রকল্পটির অধীনে জমি আছে ঘর নেই এমন পরিবারগুলোকে সরকারি খরচে ঘর নির্মাণ করে দেওয়া হচ্ছে। এরই মধ্যে ফেনী সদর উপজেলায় বিভিন্ন ইউনিয়নে প্রথম ধাপে গৃহহীনদের বসবাসের জন্য ঘর করে দেয়া হচ্ছে ছয়টি।

এর মধ্যে রয়েছেন সদর উপজেলার ধলিয়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা বিধবা রোশনা বেগম, ধর্মপুর ইউনিয়নের বিবি আয়েশা, ফরহাদনগর ইউনিয়নের লায়লা আক্তার, লেমুয়া ইউনিয়নের নুরজাহান ও ফাজিলপুর ইউনিয়নের আনোয়ারা বেগম।

রোববার সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাসরীন সুলতানা উপজেলার ধলিয়া ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা বিধবা রোশনা বেগমকে ঘর করে দেয়ার জন্য সরেজমিনে স্থান পরিদর্শন করেন।

এ সময় উপস্থিত ছিলেন প্রকল্প কর্মকর্তা মো. আফতাবুল ইসলাম, ধলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার আহমদ মুন্সি, প্যানেল চেয়ারম্যান মো. মোস্তফাসহ অন্যান্য ইউপি সদস্যরা।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাসরীন সুলতানা জানান, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের মাধ্যমে এসব গৃহ প্রস্তুত করা হচ্ছে। প্রতিটি ঘর সাড়ে ১৬ ফুট বাই সাড়ে ১৫ ফুট করে নির্মাণ হচ্ছে। ঘরগুলোর ফ্লোর পাকা, সামনে খোলা বারান্দা, আরসিসি পিলার, পাশে ও উপরে টিন দিয়ে নির্মিত হচ্ছে। এছাড়া রয়েছে স্যানেটারি ল্যাট্রিনের সু-ব্যবস্থা। প্রত্যেকটি ঘর নির্মাণ ব্যয় ধরা হয়েছে এক লাখ টাকা করে।

তিনি জানান, প্রথম ধাপে সদর উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে যাদের জমি আছে ঘর নেই তাদের ঘর করে দেয়া হবে। সমাজের অসহায়, দরিদ্র ও ভাসমান মানুষের জন্য আবাসন ব্যবস্থা নিশ্চিত করা হচ্ছে। উন্নয়ন ঘটবে এসব পরিবারের মানুষগুলোর।

ধলিয়া ইউপি চেয়ারম্যান আনোয়ার আহমদ মুন্সি জানান, তিনি ব্যক্তিগতভাবে অর্থ ব্যয় করে বিধবা রোশনা বেগমের ঘর তৈরির পূর্বে তার ভিটে মাটি দিয়ে ভরাট করে দিচ্ছেন। আর তাই প্রচন্ড খুশি বিধবা রোশনা বেগম। এজন্য তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন।

বিধবা রোশনা বেগম জানান, তিনি মানুষের ঘরে থেকে জীবনযাপন করে আসছেন। তার মেয়েকে বিয়ে দেয়ার পর দুই ছেলে নিয়ে কোন রকম ঝুপড়ির মধ্যে বাস করেন। অর্থের অভাবে ঘর করতে পারেননি। বর্ষা মৌসুমে ও শীতে সবচেয়ে বেশি কষ্ট করতে হয়। এখন প্রধানমন্ত্রীর দেয়া ঘরে থাকবেন। আর কষ্ট করতে হবে না। এজন্য প্রধানমন্ত্রীকে অনেক দোয়া করেছেন।

পিএসএস