নুসরাত হত্যায় মানি লন্ডারিংয়ের সংশ্লিষ্টতা অনুসন্ধানে সিআইডি

ঢাকা, বুধবার, ২২ মে ২০১৯ | ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬

নুসরাত হত্যায় মানি লন্ডারিংয়ের সংশ্লিষ্টতা অনুসন্ধানে সিআইডি

পরিবর্তন প্রতিবেদক ১২:০১ অপরাহ্ণ, এপ্রিল ১৯, ২০১৯

নুসরাত হত্যায় মানি লন্ডারিংয়ের সংশ্লিষ্টতা অনুসন্ধানে সিআইডি

ফেনীর সোনাগাজীতে মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে আগুনে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় মানি লন্ডারিংয়ের সংশ্লিষ্টতা অনুসন্ধানে নেমেছে পুলিশের অপরাধ তদন্ত বিভাগ সিআইডি।

শুক্রবার সকালে সিআইডির সিনিয়র সহকারী বিশেষ পুলিশ সুপার শারমিন জাহান পরিবর্তন ডটকমকে এ তথ্য জানান।

নুসরাত হত্যাকাণ্ডে কোনো আর্থিক লেনদেন ছিল কিনা, যদি থাকে তাহলে কে বা কারা অর্থ দিয়েছে- এসব প্রশ্নের উত্তর খুঁজতেই মাঠে নেমেছেন সিআইডির কর্মকর্তারা।

শারমিন জাহান বলেন, ‘আমরা অভিযোগ পেয়েছি এ হত্যাকাণ্ড ঘটাতে অর্থের লেনদেন করা হয়েছে। সেই অভিযোগেরই তদন্ত করবে সিআইডি। সত্যিই যদি অর্থের লেনদেন হয় তাহলে অর্থ যোগানদাতাকে খুঁজে বের করা হবে।’

প্রসঙ্গত, নুসরাত জাহান রাফি সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসার আলিমের পরীক্ষার্থী ছিলেন। ওই মাদ্রাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে এর আগেও ওই ছাত্রীকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ ওঠে।

নুসরাতের মা শিরিন আক্তার বাদী হয়ে ২৭ মার্চ সোনাগাজী থানায় মামলা করেন। এরপর অধ্যক্ষকে গ্রেফতার করে পুলিশ। মামলা তুলে নিতে বিভিন্নভাবে নুসরাতের পরিবারকে হুমকি দেয়া হচ্ছিল।

এরই মধ্যে গত ৬ এপ্রিল সকাল ৯টার দিকে আলিম পর্যায়ের আরবি প্রথমপত্রের পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদ্রাসা কেন্দ্রে যায় নুসরাত। এ সময় তাকে কৌশলে একটি বহুতল ভবনে ডেকে নিয়ে যায় দুর্বৃত্তরা। সেখানে তার গায়ে দাহ্য পদার্থ দিয়ে আগুন দেয়া হয়।

গত ১০ এপ্রিল রাত সাড়ে ৯টায় ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে চিকিৎসাধীন নুসরাত মারা যায়। নুসরাতের গায়ে আগুন দেয়ার ঘটনার পর গত ৮ এপ্রিল তার বড় ভাই মাহমুদুল হাসান নোমান বাদী হয়ে নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে সোনাগাজী থানায় একটি মামলা (নম্বর ১০) করেন।

পিএসএস/এইচআর