ফেনীতে খালেদার সঙ্গে মনোনয়ন প্রত্যাশী আবদুল আউয়াল মিন্টু

ঢাকা, শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ | ১ পৌষ ১৪২৫

ফেনীতে খালেদার সঙ্গে মনোনয়ন প্রত্যাশী আবদুল আউয়াল মিন্টু

ফেনী প্রতিনিধি ১১:৪৬ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৮, ২০১৮

ফেনীতে খালেদার সঙ্গে মনোনয়ন প্রত্যাশী আবদুল আউয়াল মিন্টু

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে ফেনীতে বিএনপি থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান আবদুল আউয়াল মিন্টু ও তার সহোদর দাগনভূঞা উপজেলা বিএনপির সভাপতি আকবর হোসেন।

সূত্রে জানা গেছে, বিএনপির মনোনয়ন ফরম ছাড়ার প্রথম দিন বেগম খালেদা জিয়ার আসন ফেনী-১ ও ফেনী-৩ এই দুই আসন থেকে মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান শিল্পপতি আবদুল আউয়াল মিন্টু ও তার ভাই আকবর হোসেন। খালেদা জিয়া যদি কোনো কারণে নির্বাচনে অংশ নিতে না পারেন সেক্ষেত্রে আবদুল আউয়াল মিন্টু ফেনি-১ আসনে প্রার্থী চূডান্ত বলে দলীয় সূত্র দাবি করছে।

এদিকে ফেনী-৩ আসনে বিএনপি থেকে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন দাগনভূঞা উপজেলা বিএনপির সভাপতি ও সাবেক পৌর মেয়র আকবর হোসেন।

জানা গেছে, ফেনী-৩ আসন বরাবরই বিএনপির আসন হিসেবে পরিচিত। ২০০৮ সালের নির্বাচনে এই আসনে বিএনপির সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন বিশিষ্ট শিল্পপতি মোশাররফ হোসেন, তিনি মারা গেলে আসনটিতে বিএনপির প্রার্থী শূন্য হয়ে পড়ে। তখন থেকে নিয়মিত এ আসনে বিএনপি নেতাকর্মীদের সাথে যোগাযোগ ও খোঁজ খবর রাখছেন বিএনপি নেতা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) নাসির উদ্দিন আহমেদ।

২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারী নির্বাচনে জেদ্দা আওয়ামী লীগের সভাপতি স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে হাজী রহিম উল্যাহ বিজয়ী হন। নির্বাচনের পর থেকেই স্বতন্ত্র সাংসদ রহিম উল্যাহর সঙ্গে স্থানীয় উন্নয়ন কর্মকান্ডসহ নানা বিষয়ে আওয়ামী লীগের বিরোধ শুরু হয়। দুই পক্ষের মধ্যে হামলা-মামলায় নেতাকর্মীরা গ্রেপ্তার হয়েছিলেন।

ফেনী-৩ (সোনাগাজী-দাগনভূঞা) আসনে আ’লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি থেকে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন মোট ৪৫ জন। আ.লীগ থেকে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন ২০ প্রার্থী। তারা হলেন- বর্তমান সাংসদ প্রবাসী আ’লীগ নেতা হাজী রহিম উল্যাহ, ফেনী জেলা আ’লীগ সভাপতি আব্দুর রহমান, সাবেক সেনা কর্মকর্তা লে. জে. মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী, কেন্দ্রীয় যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য শিল্পপতি আবুল বাশার, কেন্দ্রীয় আ’লীগের উপকমটির সাবেক সহ-সম্পাদক জহির উদ্দিন মাহমুদ লিপটন, সোনাগাজী উপজেলা চেয়ারম্যান জেড. এম কামরুল আনাম, দাগনভূঞা উপজেলা চেয়ারম্যান দিদারুল কবির রতন, সোনাগাজী পৌর মেয়র এ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম খোকন, এনআরবি গ্লোবাল ব্যাংকের চেয়ারম্যান নিজাম চৌধুরী, মহিলা আ’লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদক রোকেয়া প্রাচী, অভিনেত্রী শমী কায়সার, মার্কেন্টাইল ব্যাংকের সাবেক চেয়ারম্যান আকরাম হোসেন হুমায়ন, প্রকৌশলী নুরুল হুদা, সাবেক সাংসদ জয়নাল হাজারী, আইনজীবি শাহজাহান সাজু, আ’লীগ নেতা সামছুল আলম, মিরপুর থানা আ’লীগ নেতা এসডিএম দিদার, আ’লীগ নেতা সাফদার হোসেন, ব্যবসায়ী জুলফিকার হায়দার, ইব্রাহিম আবির।

বিএনপি থেকে যারা দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন ২২ প্রার্থী তারা হলেন- বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টু, সাবেক সেনা কর্মকর্তা ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) নাছির উদ্দিন আহমেদ, সাবেক সহ দপ্তর সম্পাদক আব্দুল লতিফ জনি, জাতীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য শাহানা আক্তার সানু, বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়নের মহাসচিব এম. আব্দুল্লাহ, প্রবাসী বিএনপি নেতা সোলেমান ভূঞা, জাতীয়তাবাদী আইনজীবী পরিষদের সাবেক সদস্য আবুল কাশেম, কেন্দ্রীয় ছাত্রদলের আপ্যায়ন বিষয়ক সম্পাদক খালেদ মাহমুদ মাসুদ, কেন্দ্রীয় সেচ্ছাসেবক দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাদরাজ্জামান, সোনাগাজী উপজেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি জয়নাল আব্দীন বাবলু, সোনাগাজী উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক জামাল উদ্দিন সেন্টু, উপজেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক আমীন উদ্দিন দোলন, দাগনভূঞা উপজেলা বিএনপির সভাপতি আকবর হোসেন, শ্রমিক দলের কর্মী সাইফুল ইসলাম, জেলা যুবদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মাহবুবুল হক, প্রবাসী বিএনপি নেতা পেয়ার আহাম্মদ, বিএনপি নেতা নাজমুল করিম, বেলাল মিল্লাত, রফিকুল ইসলাম, মেজবাউল মিল্লাত, মোর্শেদ আলম, সাঈদ হোসেন চৌধুরী।

আ’লীগের নেতৃত্বাধীন জাতীয় পাটি থেকে দলীয় মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন ৩ প্রার্থী, তারা হলেন- ফেনী জেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক রিন্টু আনোয়ার, সাবেক সেনা কর্মকর্তা লে. জে. মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী, কেন্দ্রীয় নেতা শেখ মাসুদ।

এআরই