স্কুলের সিঁড়ির মাঝে আটকে গেল শিশু! ৩ ঘণ্টা পর উদ্ধার

ঢাকা, শনিবার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৮ | ১ পৌষ ১৪২৫

স্কুলের সিঁড়ির মাঝে আটকে গেল শিশু! ৩ ঘণ্টা পর উদ্ধার

ফেনী প্রতিনিধি ১০:০৬ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ১৩, ২০১৮

স্কুলের সিঁড়ির মাঝে আটকে গেল শিশু! ৩ ঘণ্টা পর উদ্ধার

ফেনীতে একটি স্কুল ভবনের সিঁড়ির মাঝে আটকা পড়ে আবদুল সামির হৃতম (১০) নামে এক শিশু শিক্ষার্থী। ৯৯৯ এ ফোন দিলে ফেনী থেকে ফায়ার সার্ভিস কর্মীরা গিয়ে ৩ ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ৬ টার দিকে দেয়াল কেটে শিশুটিকে উদ্ধার করা হয়। মঙ্গলবার বিকেলে সদর উপজেলার বালিগাঁও ইউনিয়নের ধোনসাহাদ্দা গ্রামে খেলতে গিয়ে এ ঘটনা ঘটে।

শিশু আবদুল সামির হৃতম স্কুলের পাশের কাজী কবির আহাম্মদের বাড়ির প্রবাসী আবদুর রহিম বাবুলের ছেলে।

ধোনসাহাদ্দা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নেয়ামত উল্যাহ এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, আল্লাহর শুকরিয়া শিশুটিকে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়েছে। এজন্য তিনি ফায়ার সার্ভিস ও সংশ্লিষ্ট সকলকে ধন্যবাদ জানান।

ফেনী সদর হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. ফয়েজুল কবির বলেন, শিশুর শারীরিক অবস্থা ভালো আছে। আগামীকাল (বুধবার) সিটিস্ক্যান করা হবে। হাসপাতালের অভিজ্ঞ চিকিৎসকরা বিষয়টি তদারকি করছেন।

প্রত্যক্ষদর্শী ও ফায়ার সার্ভিস সূত্র জানায়, বিকালে ধোনসাহাদ্দা উচ্চ বিদ্যালয় নতুন ভবনে খেলা করছিলো ধোনসাহাদ্দা ব্রাইট কিন্ডারগার্টেনের ৪র্থ শ্রেণির ছাত্র আবদুল সামির হৃতম ও তার সহপাঠীরা। খেলতে গিয়ে হঠাৎ পা পিছলে হৃতম ভবনের সিঁড়ির মাঝের ফাকে পড়ে আটকে ঝুলে যায়। এতে তার দেহ ঝুলে থাকলেও আটকে যায় মাথা।

সহপাঠী হাসিন রায়হান অনিক ঘটনা দেখে হতচকিত হয়ে চিৎকার শুরু করে। তার চিৎকার শুনে পাশের দোকান থেকে ডা. হালিম, শাহ আলম, মনিরুজ্জামান, জনি, ইকবাল, শিপন, ইকবাল, শিপন ও এনাম ছুটে এসে ঝুলন্ত শিশুটিকে উদ্ধারের চেষ্টা চালান।

ঝুকিপূর্ন দেখে তারা পরে জরুরী সেবা সার্ভিস ৯৯৯-এ ফোন দেন। সমস্যার কথা জানিয়ে লোকেশন বলেন তারা।

পরে ৯৯৯ এর মাধ্যমে খবর পেয়ে ফেনী থেকে ফায়ার সার্ভিসে ইউনিট তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে ছুটে যায়।

প্রায় তিন ঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টার দিকে দেয়াল কেটে তারা শিশুটিকে নিরাপদে উদ্ধার করেন।

উদ্ধারের সাথে সাথে ফায়ার সার্ভিস অ্যাম্বেুলেন্স যোগে তাকে ফেনী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

এদিকে শিশুটি আটকে ঝুলে থাকার খবর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে আশপাশের কয়েক গ্রামের হাজার হাজার নারী পুরুষ ঘটনাস্থলে জটলা বেধে যায়।

এএএম/এফএম