ময়নামতি যুদ্ধসমাধিতে ১০ দেশের কূটনীতিকদের শ্রদ্ধা

ঢাকা, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮ | ২৯ কার্তিক ১৪২৫

ময়নামতি যুদ্ধসমাধিতে ১০ দেশের কূটনীতিকদের শ্রদ্ধা

জহির শান্ত, কুমিল্লা ৫:৫৩ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৯, ২০১৮

ময়নামতি যুদ্ধসমাধিতে ১০ দেশের কূটনীতিকদের শ্রদ্ধা

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে নিহত সৈনিকদের স্মরণে কুমিল্লা সেনানিবাস সংলগ্ন ময়নামতি ওয়ার সিমেট্রিতে (যুদ্ধসমাধি) শ্রদ্ধা জানিয়েছেন ১০ দেশের রাষ্ট্রদূত ও প্রতিনিধিগণ। কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ভারপ্রাপ্ত বৃটিশ হাই কমিশনার কানভের হোসেন বর এর নেতৃত্বে আমেরিকা, জার্মান, জাপান, ফ্রান্স, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, নেদারল্যান্ড, ভারত ও শ্রীলংকার রাষ্ট্রদূ এবং হাই কমিশনারসহ দূতাবাসের প্রতিনিধিরা এ শ্রদ্ধা নিবেদন করেন।

শ্রদ্ধা জানাতে আসা বিভিন্ন দেশের প্রতিনিধিগণ ময়নামতি যুদ্ধ সমাধির পশ্চিম পাশে অবস্থিত হলিক্রস এর পাদদেশে পুষ্পস্তবক অর্পণের মধ্য দিয়ে নিহত সৈনিকদের স্মরণ করেন। এ সময় কুমিল্লা সেনানিবাসের সেনা সদস্যরা নিহতদের উদ্দেশে গার্ড অব অনার প্রদান করেন। বিউগলে বাজানো হয় করুণ সুর।

এছাড়াও বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত, হাই কমিশনার ও দূতাবাসের প্রতিনিধিগণ নিহত সৈনিকদের স্মরণে নিজ নিজ ধর্মগ্রন্থ পাঠ করেন।

এসময় উপস্থিত ছিলেন ভারপ্রাপ্ত বৃটিশ হাই কমিশনার কানভের হোসেন বর, জার্মানের রাষ্ট্রদূত পিটার তাহরু হলতি, ফান্সের রাষ্ট্রদূত মেরি এনিক বাউরদিন, জাপানের রাষ্ট্রদূত হিরুইয়াসু ইজুমি, অস্ট্রেলিয়ার রাষ্ট্রদূত জুলিয়া নিবলেট, কানাডার রাষ্ট্রদূত বেনয়িট প্রিফনটেইন, শ্রীলংকার রাষ্ট্রদূত ক্রিশান্তি ডি সিলভা, আমেরিকান দূতাবাসের প্রতিনিধি জুয়েল রিফম্যান, ভারতীয় দূতাবাসের প্রতিনিধি ব্রিগেডিয়ার জে এস চিমাসহ অন্যান্যরা।

বাংলাদেশের পক্ষে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন কুমিল্লা সেনানিবাসের জিওসি ও ৩৩ পদাতিক ডিভিশনের কমান্ডিং অফিসার মেজর জেনারেল তাবরেজ আহমেদ শামস চৌধুরী, কুমিল্লা জেলা প্রশাসনের পক্ষে জেলা প্রশাসক আবুল ফজল মীর ও জেলা পুলিশের পক্ষে শ্রদ্ধা জানান জেলা পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম।

স্মরণ অনুষ্ঠান শেষে কমনওয়েলথভূক্ত দেশের প্রতিনিধিরা সমাধিস্থল পরিদর্শন করেন এবং দাঁড়িয়ে নিরবতা পালন করেন।

ময়নামতি ওয়ার সিমেট্রি

ময়নামতি ওয়ার সিমেট্রি হলো, বাংলাদেশের কুমিল্লাতে অবস্থিত একটি কমনওয়েলথ যুদ্ধ সমাধি। ১৯৪১-১৯৪৫ সালে বার্মায় সংঘটিত যুদ্ধে যে ৪৫ হাজার কমনওয়েলথ (ব্রিাটশ) সৈনিক নিহত হন, তাদের স্মৃতি রক্ষার্থে মায়ানমার (তৎকালীন বার্মা), আসাম, এবং বাংলাদেশে ৯টি রণ সমাধিক্ষেত্র তৈরি করে। তার মধ্যে বাংলাদেশে দুটি কমনওয়েলথ রণ সমাধিক্ষেত্র আছে। এর মধ্যে ৭৩৫ জন সৈনিককে ময়নামতিতে সমাধিস্থ করা হয়। যার অপর ওয়ার সিমেট্রিটি চট্টগ্রামে অবস্থিত।

কুমিল্লা শহর থেকে প্রায় ৭ কিলোমিটার দূরে সেনানিবাস সংলগ্ন এলাকায় এ যুদ্ধ সমাধির অবস্থান। সমাধিক্ষেত্রটি প্রতিষ্ঠা করে কমনওয়েলথ ওয়ার গ্রেভস কমিশন। নিহতদের স্মরণে প্রতি বছর নভেম্বর মাসে সব ধর্মের ধর্মগুরুদের সমন্বয়ে এখানে একটি বার্ষিক প্রার্থনা সভা অনুষ্ঠিত হয়।

প্রতিবছর প্রচুর দর্শনার্থী যুদ্ধে নিহত সৈন্যদের প্রতি সম্মান জানাতে এসকল রণ সমাধিক্ষেত্রে আসেন।

প্রাণ উসর্গ করা ৭৩৫ বীর সেনানি:

৭৩৫ জনের সকলেই দেশের জন্য প্রাণ উৎসর্গ করা বীর। এর মধ্যে ব্রিটেনের ৩৫৭ জন, কানাডার ১২, অস্ট্রেলিয়ার ১২, ভারতীয় উপমহাদেশের ১৭৮, পূর্ব আফ্রিকার ৫৬, পশ্চিম আফ্রিকার ৮৬, নিউজিল্যান্ডের ৪, দক্ষিণ আফ্রিকার ১, রোডেশিয়ার ৩, পোল্যান্ডের ১, বেলজিয়ামের একজনসহ রয়েছে যুদ্ধবন্দি ২৪ জন জাপানির সমাধি।

জেএস/এফএম