রাঙ্গামাটিতে চিকুনগুনিয়ার প্রাদুর্ভাব

ঢাকা, বুধবার, ২৪ অক্টোবর ২০১৮ | ৮ কার্তিক ১৪২৫

রাঙ্গামাটিতে চিকুনগুনিয়ার প্রাদুর্ভাব

প্রান্ত রনি, রাঙ্গামাটি ৩:৩৫ অপরাহ্ণ, জুলাই ২১, ২০১৮

রাঙ্গামাটিতে চিকুনগুনিয়ার প্রাদুর্ভাব

রাঙ্গামাটি শহরের বিভিন্ন এলাকায় দেখা দিয়েছে মশাবাহিত চিকুনগুনিয়া রোগ। এর আগে শহরে রোগটির অস্তিত্ব পাওয়া না গেলেও গত জুন মাস থেকে এর প্রাদুর্ভাব দেখা দিয়েছে। এতে মানুষের মাঝে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

পৌর এলাকার বাসিন্দা আলমগীর জানান, অসহ্য যন্ত্রণা, প্রচণ্ড জ্বর নিয়ে দিনের পর দিন বিছানায় পড়ে থাকতে হয়েছে তাকে, কোনো ওষুধে কাজ হয়নি। চিকুনগুনিয়ার যা যা লক্ষণ আছে সবই ছিল।

বাসিন্দা অভি কর জানান, এ রোগে আক্রান্ত হয়ে তিনি চলাফেরা পর্যন্ত করতে পারেননি। তিনি অনেক কষ্ট পেয়েছেন। প্রচণ্ড জ্বর, আঙ্গুল থেকে শুরু করে হাঁটুতে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভব করেন।

ওষুধ বিক্রেতা (ফার্মাসিস্ট) জয় পাল জানান, এ রোগে আক্রান্ত হয়ে অনেক রোগী তাদের ফার্মেসিতে আসছেন। তাদেরকে ডাক্তারের পরামর্শে চিকিৎসা সেবা দেয়া হয়। তবে তার জানা মতে এ রোগের তেমন কোনো ওষুধ নাই; তাই প্রচণ্ড কষ্ট সহ্য করতে হয় রোগীকে।

রাঙ্গামাটি পৌরসভার মেয়র আকবর হোসেন চৌধুরী বলেন, মশা নিধনে স্প্রে করা, সেটা আমাদের নিয়মিত কাজের অংশ। যখনই আমরা জানতে পারি চিকুনগুনিয়ায় আক্রান্ত হচ্ছে; তখনই আমরা পৌরসভার পক্ষ থেকে মশা নিধনের জন্য স্প্রে কার্যক্রম আরো জোরদার করেছি। পাশাপাশি চিকুনগুনিয়া সম্পর্কে পৌরবাসীকে সচেতন করার কার্যক্রমও চালিয়ে যাচ্ছি।

এ ব্যাপারে রাঙ্গামাটির সিভিল সার্জন শহীদ তালুকদার জানান, গত জুন মাস থেকে শহরের মধ্যে চিকুনগুনিয়ার প্রভাব লক্ষ করা গেছে। পরবর্তীতে তিনি স্বাস্থ্য অধিদফতরে একটি চিঠি লেখেন। স্বাস্থ্য অধিদফতর থেকে পরিদর্শন টিম এসেছিল। তারা এখানে চিকুনগুনিয়া রোগের প্রভাবও পেয়েছেন।

তিনি জানান, চিকনগুনিয়া ও ডেঙ্গু মূলত মশাবাহিত রোগ। এর কার্যকরী পদক্ষেপ হিসেবে এডিস মশাকে কনট্রোল করতে হবে। বিশেষ করে পরিত্যক্ত ডাবের খোসা, টায়ারের ভেতর জমে থাকা পানি, টবের পানিসহ বিভিন্ন স্থানের পরিষ্কার পানিতে এ মশা জন্ম নেয়। তাই চিকনগুনিয়া রোগ থেকে মুক্তি পেতে সবার আগে জনসচেতনা প্রায়োজন।

সিভিল সার্জন শহীদ তালুকদার জানান, রাঙ্গামাটি শহরে চিকনগুনিয়ার প্রার্দুভাবের পর জনসচেতনা বাড়াতে নয়টি মেডিক্যাল টিম গঠন করা হয়েছে। তারা পৌর এলাকার এ কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে। আগে থেকে এখন চিকনগুনিয়ার প্রভাব আরো কমে আসছে।

এসবি