ধানমণ্ডি থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার

ঢাকা, রবিবার, ৮ ডিসেম্বর ২০১৯ | ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

ধানমণ্ডি থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার

ঢামেক প্রতিনিধি ৫:২৩ অপরাহ্ণ, ডিসেম্বর ০২, ২০১৯

ধানমণ্ডি থেকে গৃহবধূর লাশ উদ্ধার

রাজধানীর ধানমণ্ডিতে দিরা মনি আক্তার ওরফে মিতানুর রহমান(১৯)নামে এক গৃহবধূ গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছে।  মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নির্যাতনের পর দিরা মনিকে হত্যা করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেছে পরিবারের পক্ষ থেকে।

ধানমণ্ডি থানার উপ-পরিদর্শক এসআই তৌকির আহম্মেদ বাংলাদেশ মেডিকেল হাসপাতাল থেকে রোববার রাত সাড়ে দশটায় মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে নিয়ে আসেন।

পরিবারের বরাত দিয়ে তিনি জানান, দেড় বছর পূর্বে দিরা মনির পারিবারিকভাবে বিবাহ হয় আদনান আব্দুলাহ তামিমের সাথে। বিবাহের পর থেকে শ্বশুর এবিএম কাফি ও শাশুড়ি সুরাইয়া বেগম প্রায় সময় তাকে বিভিন্নভাবে মারধরও নির্যাতন করে। তার পরিবার দরিদ্র থাকায় এবং তার শ্বশুরের পরিবার অনেক ধনী সে কারণে তাকে বিভিন্ন সময় ‘ছোটলোক’ বলে গালি দেয়। ও তার পেটে বাচ্চা থাকা কালিন শ্বাশুড়ি অনেক মারধর করতো।

তিনি আরও জানান, সকল নির্যাতনের জেরে  গতকাল সন্ধ্যা ৭টায় ধানমণ্ডির বাসা নং ৭৫ ফ্লাট নং সি ২ ই রোড৮/এ স্বামীর বাসায় ভাত রুমে দরজা বন্ধ করে গ্রিলের সাথে ওড়না পেঁচিয়ে গলায় ফাঁস দেয়, পরে তাকে উদ্ধার করে বাংলাদেশ মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করে। খবর পেয়ে মৃতদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে নিয়ে আসি।

ময়নাতদন্তের রিপোর্ট পেলে মৃত্যুর সঠিক কারণ বলা যাবে বলেও তিনি জানান।

নিহতের বাবা আব্দুল মতিন জানান, দেড় বছর আগে পারিবারিকভাবে আমার মেয়েকে আদনান আব্দুল্লাহ তামিমের সঙ্গে বিবাহ দেওয়া হয় বিবাহর পর থেকেই শ্বশুর-শাশুড়ি বিভিন্নভাবে তাকে অর্থের জন্য নির্যাতন করতো ছোটলোকের বাচ্চা বলে গালি গালাজ করত মারধর করত পরিবারের সবাই।

তিনি আরও জানান, রোববার সন্ধায় মেয়ের জামাই ও শশুর শাশুড়ি আমাদেরকে ফোন দিয়ে বলে আপনার মেয়ে অসুস্থ পরে বাসায় এসে আমরা তাকে অচেতন অবস্থায় দেখতে পাই আমাদেরকে মেয়ের শ্বশুর ও জামাই বাসার মধ্যে অনেক সময় ধরে বদ্ধ করে রাখে। এবং মেয়েকে হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছিল না। পরবর্তীতে মেয়ের স্বামী মেয়েকে বাংলাদেশ মেডিকেল হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করে।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, আমার মেয়েকে নির্যাতনের পর হত্যা করে আত্মহত্যার প্রচার করছে।আমরা তাদের বিচার চাই।

দিরা এক ভাই এক বোনের মধ্যে  বড় ছিল।  আরমিন নামে সাড়ে তিন মাস বয়সী এক ছেলের সন্তান রয়েছে তার।

এমএইচ

 

রাজধানী: আরও পড়ুন

আরও