জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‌্যাব কার্যালয়ে সম্রাট

ঢাকা, বুধবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৯ | ২৯ কার্তিক ১৪২৬

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‌্যাব কার্যালয়ে সম্রাট

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৬:০৯ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৭, ২০১৯

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য র‌্যাব কার্যালয়ে সম্রাট

জিজ্ঞাসাবাদের জন্য যুবলীগের ঢাকা মহানগর দক্ষিণের বহিষ্কৃত সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটকে র‌্যাব-১ কার্যালয়ে নেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৪টায় র‌্যাবের লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া উইং পরিচালক লে. কর্নেল সারওয়ার বিন কাশেম সাংবাদিকদের বলেন, সম্রাটের বিরুদ্ধে মাদক ও অস্ত্র আইনে করা মামলা দুটি তদন্ত করবে র‌্যাব। সেই মামলায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতের নির্দেশনা মোতাবেক র‌্যাব-১ কার্যালয়ে নেয়া হয়েছে।

র‌্যাব-১ এর অধিনায়ক বলেন, কুমিল্লা থেকে গ্রেফতারের সময় সম্রাটের সঙ্গে ইয়াবাসহ গ্রেফতার আরমানকেও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে আসা হয়েছে।

এর আগে গত মঙ্গলবার দুপুরে ঢাকা মহানগর হাকিম তোফাজ্জেল হোসেন শুনানি শেষে সম্রাটের বিরুদ্ধে ১০ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

গত ৮ অক্টোবর রিমান্ড শুনানির জন্য ওই দিন ধার্য করেছিলেন আদালত।

ঢাকা মহানগর হাকিম সরাফুজ্জামান আনসারি গ্রেফতার দেখানোর আবেদন মঞ্জুর করে রিমান্ড শুনানির জন্য ১৫ অক্টোবর দিন ধার্য করেন।

এর মধ্যে বিচারক তোফাজ্জল হোসেন অস্ত্র মামলায় পাঁচদিন ও মাদক মামলায় পাঁচদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে গত ৫ অক্টোবর ভোর ৫টার দিকে কুমিল্লার চৌদ্দগ্রাম উপজেলার আলকরা ইউনিয়নের কুঞ্জুশ্রীপুর গ্রাম থেকে সম্রাট ও তার সহযোগী আরমানকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।

পরে সম্রাটকে নিয়ে দুপুর দেড়টার দিকে তার রাজধানীর কাকরাইলের কার্যালয়ে অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ সময় ভেতর থেকে বিপুল পরিমাণ বিদেশি মদ, পিস্তল ও বিরল প্রজাতির বন্যপ্রাণীর চামড়া পাওয়া যায়। এ চামড়া রাখার দায়ে সম্রাটকে ৬ মাসের কারাদণ্ড দেন আদালত। রোববার রাত পৌনে ৯টার দিকে সম্রাটকে কারাগারে নেয়া হয়।

এছাড়া তার বিরুদ্ধে রমনা থানায় দায়ের করা মাদক নিয়ন্ত্রণ ও অস্ত্র আইনে দুটি মামলা। দুই মামলায় তাকে ১০ দিন করে মোট ২০ দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের আবেদন করা হয় পুলিশের পক্ষ থেকে।

এদিকে কারাগারে নেওয়ার দুদিন পর বুকে ব্যথা অনুভব করলে সম্রাটকে প্রথমে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এবং পরে জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউটে নেওয়া হয়।

সেখানে চারদিন চিকিৎসা দিয়ে গত ১২ অক্টোবর আবার কারাগারে ফিরিয়ে নেওয়া হয় সম্রাটকে।

পরদিন ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন করে সম্রাটের মা সায়েরা খাতুন দাবি করেন, রাজনৈতিক প্রতিহিংসা ও ব্যক্তিগত আক্রোশ থেকে তার ছেলেকে ‘ষড়যন্ত্রমূলকভাবে’ এর মধ্যে জড়ানো হয়েছে।

ওএস/এসবি

 

রাজধানী: আরও পড়ুন

আরও