ডেঙ্গু আক্রান্ত ঢাকার ২০২ চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী

ঢাকা, ১৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | 2 0 1

ডেঙ্গু আক্রান্ত ঢাকার ২০২ চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৫:১৮ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২২, ২০১৯

ডেঙ্গু আক্রান্ত ঢাকার ২০২ চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী

ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় প্রতিনিয়তই ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা বাড়ছে। এতে করে সরকারি-বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে ডেঙ্গু আক্রান্ত রোগীর সংখ্যাও বাড়ছে। এর ফলে স্বাস্থ্যঝুঁকি বাড়ছে তাদের সেবাদানকারী চিকিৎসকদেরও।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হেলথ ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার অ্যান্ড কন্ট্রোল রুম থেকে জানা গেছে, গত মঙ্গলবার পর্যন্ত শুধুমাত্র ঢাকা শহরেই ৬৯ জন চিকিৎসক, ৮০ নার্স, ৫৩ জন সহকারীসহ মোট ২০২ জন ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন। তাদের মধ্যে এখনও বিভিন্ন হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন ৬ জন চিকিৎসক, ১১ জন নার্স ও ৪ জন সহকারীসসহ মোট ২১ জন।

কন্ট্রোল রুম জানায়, এখন পর্যন্ত ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে সবচেয়ে বেশি সেবাদানকারী চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছে।

ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ৬২ জন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়েছে। তাদের মধ্যে ২৫ জন চিকিৎসক, ২২ জন নার্স এবং ১৫ জন হাসপাতালের কর্মচারী।

অন্যদিকে গতকাল বুধবার পর্যন্ত মুগদা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ১৪ জন চিকিৎসক ও ২২ নার্স ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন। এছাড়া শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে এখন পর্যন্ত ১১ জন চিকিৎসক ও ১৪ জন নার্স ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়েছেন।

আর বেসরকারি হাসপাতালগুলোতে এখন পর্যন্ত ৩০ জন চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মীর ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে ৯ জন চিকিৎসক, ৪ জন নার্স ও ১৭ জন সহকারী কর্মী।

চিকিৎসকদের ডেঙ্গু আক্রান্ত হওয়ার কারণ:

মুগদা মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের উপপরিচালক ডা. খায়রুল আলম পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, জুলাই ও চলতি মাসে এই চিকিৎসক এবং নার্সরা ডেঙ্গু জ্বরে আক্রান্ত হয়েছেন। যারা আক্রান্ত হয়েছেন তাদের বেশিরভাগই ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসার তত্ত্বাবধানে ছিলেন।

চিকিৎসক এবং নার্সদের মধ্যে কীভাবে ডেঙ্গু সংক্রামণ ঘটলে এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, যারা ডেঙ্গু রোগীদের সেবা দিচ্ছিলেন তাদের অনেকেই আক্রান্ত হয়েছেন। এটা খুবই স্বাভাবিক। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু রোগীকে যদি মশা কামড় দেয়, সেই মশার মাধ্যমে চিকিৎসকদেরও ডেঙ্গু হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

সংক্রমণ রোধে করণীয়:

চিকিৎসক ও নার্সদের ডেঙ্গু আক্রান্ত হওয়ার বিষয়ে সম্প্রতি গণমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেছেন স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল কালাম আজাদ। তিনি বলেন, ডেঙ্গু রোগীদের শয্যাপাশে থেকে দীর্ঘসময় নিবিড়ভাবে চিকিৎসা প্রদান করতে হয় বলে চিকিৎসকদেরও ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা তৈরি হয়। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ডেঙ্গু রোগীকে যদি মশা কামড় দেয়, সেই মশার মাধ্যমে চিকিৎসকদেরও ডেঙ্গু হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক আরো বলেন, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রোগীদের মশারির ভেতরে থাকার জন্য চিকিৎসকরা নির্দেশনা দিলেও গরম লাগার অজুহাতে রোগীদের অনেকেই মশারি টানিয়ে থাকছেন না। এর ফলে চিকিৎসকদের স্বাস্থ্যঝুঁকি তৈরি হচ্ছে। তাই প্রতিটি রোগীকে মশারি টানিয়ে থাকতে হবে এবং সেবাদানকারী চিকিৎসকদের সাবধানতাস্বরূপ ফুলহাতা শার্ট পরা উচিত।

২৪ ঘণ্টায় হাসপাতালে ১৬২৬ জন নতুন ডেঙ্গু রোগী:

গত বুধবার (২১ আগস্ট) থেকে পরদিন আজ বৃহস্পতিবার সকাল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টায় ঢাকা ও ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে এক হাজার ৬২৬ জন নতুন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি হয়েছেন। এর মধ্যে ঢাকা শহরে ৭১১ ও ঢাকার বাইরে ৯১৫ জন ভর্তি হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার ইমার্জেন্সি অপারেশন সেন্টার অ্যান্ড কন্ট্রোল রুম থেকে এ তথ্য জানানো হয়।

কন্ট্রোল রুম জানায়, বুধবার পর্যন্ত ঢাকার বিভিন্ন হাসপাতালে ৩৩৬০ জন ও ঢাকার বাইরের বিভিন্ন হাসপাতালে ২৯১৮ জনসহ মোট ৬২৭৮ জন ডেঙ্গু রোগী ভর্তি রয়েছে।

আর এ দিন পর্যন্ত ঢাকার হাসপাতালগুলো থেকে ৭৬৪ জন, ঢাকার বাইরের হাসপাতালগুলো থেকে ১০৫৪ জনসহ ১৮১৮ জন রোগী সুস্থ হয়ে ছাড়পত্র নিয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন।

এ বছর ডেঙ্গুতে আক্রান্ত হয়ে সারাদেশের হাসপাতালগুলোতে ৫৭ হাজার ৯৯৫ রোগী ভর্তি হয়েছেন। সরকারি হিসেবে ডেঙ্গু আক্রান্ত হয়ে এখন পর্যন্ত মারা গেছেন ৪৭ জন।

পিএসএস/এসবি

 

রাজধানী: আরও পড়ুন

আরও