রাজমিস্ত্রী সেজে যেভাবে খুনিকে ধরলেন এসআই লালবুর

ঢাকা, রবিবার, ১৬ জুন ২০১৯ | ২ আষাঢ় ১৪২৬

রাজমিস্ত্রী সেজে যেভাবে খুনিকে ধরলেন এসআই লালবুর

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৪:২৭ অপরাহ্ণ, মে ২১, ২০১৯

রাজমিস্ত্রী সেজে যেভাবে খুনিকে ধরলেন এসআই লালবুর

ছদ্মবেশে খুনি-অপরাধীদের ধরার গল্প শার্লক হোমস, তিন গোয়েন্দা, মাসুদ রানার মতো সিরিজ বইগুলোতে পড়েছেন অনেকেই। বিভিন্ন নাটক সিনেমাতেও প্রায়ই দেখা যায় এই ধরণের দৃশ্য। এবার রাজধানীরই একটি খুনের ঘটনার তদন্তে দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা ছদ্মবেশ ধারণ করে গ্রেফতার করলেন খুনিকে।

পরনে লুঙ্গি-গেঞ্জি, পায়ে ছেঁড়া স্যান্ডেল আর কোমরে গামছা, কাঁধে বেলচা। তাকে দেখে যে কেউ মনে করবে রাজমিস্ত্রী। আসলে মিস্ত্রীর ছদ্মবেশে যে ব্যক্তি, তিনি হলেন কদমতলী থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. লালবুর রহমান।

চলতি বছরের মার্চ মাসে রাজধানীর কদমতলী থানা এলাকার ধনিয়ায় একটি বাসার নিচ তলায় পারিবারিক কলহের জের ধরে শারমিন আক্তারকে গলা টিপে হত্যা করে পালিয়ে যায় তার ঘাতক স্বামী মাসুদ হাওলাদার। ওই ঘটনায় শারমিনের ভাই বাদী হয়ে ১৫ মার্চ একটি হত্যা মামলা করেন।

মামলা হওয়ার পর মামলাটির তদন্তভার দেয়া হয় এসআই  লালবুর রহমানকে। মামলাটি তদন্ত করতে গিয়ে তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় খুনির অবস্থান সম্পর্কে নিশ্চিত হন পুলিশের এই কর্মকর্তা।

তদন্তে জানা যায়, ভিকটিম শারমিনের স্বামী মাসুদ পুরাতন প্যান্ট-শার্টের ব্যবসা করতেন। এ ব্যবসার জন্য তিনি শনির আখড়ায় দোকানের পজিশন নিয়েছিলেন। ব্যবসা শুরু করার আগেই নিজ স্ত্রীকে হত্যা করায়, দোকানের পজিশনের টাকা ফেরত নিতে দোকানের মালিকের পক্ষের লোকের সাথে যোগাযোগ করেন তিনি।

 

দোকানের অগ্রিম টাকা ফেরত নিতে ডেমরা থানাধীন মিন্টু চত্বর এলাকায় আসেন মাসুদ। তবে তার আগেই তথ্য প্রযুক্তির সহায়তায় দোকান মালিক পক্ষের সাথে যোগাযোগ করেন এসআই লালবুর। তিনি হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি জানিয়ে পুলিশকে সহায়তা করতে বলেন।

গত রোববার ১৯ মে দুপুর ২ টার দিকে মাসুদ তার দোকানের এ্যাডভান্সের টাকা নিতে মিন্টু চত্বরে আসতে চাইলে মালিক পক্ষের ওই ব্যক্তি এসআই লালবুরকে জানিয়ে দেন। তখন এসআই লালবুর ও এএসআই মো. জসিম রাজমিস্ত্রীর ছদ্মবেশে মিন্টু চত্বর এলাকায় অপেক্ষা করতে থাকেন এবং দোকান মালিক পক্ষের লোকের উপর নজর রাখেন।

এ সময় দূর থেকে মুখে মাস্ক লাগানো এক ব্যক্তি এসে দোকান মালিককে সালাম দেন। এই ব্যক্তিই খুনি মাসুদ বুঝতে পেরে এসআই লালবুর দ্রুত পেছন থেকে ওই ব্যক্তিকে ধরে ফেলেন। তখন স্থানীয়রা এগিয়ে আসলে রাজমিস্ত্রীর ছদ্মবেশে থাকা পুলিশ কর্মকর্তা নিজের পরিচয় দেন এবং সকলকে জানান যাকে ধরা হয়েছে তিনি হত্যা মামলার আসামি।

এসআই লালবুর রহমান বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতার মাসুদ নিজের স্ত্রীকে খুন করার কথা স্বীকার করেছেন। গতকাল মঙ্গলবার তাকে আদালতে পাঠানো হলে তিনি স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

মাসুদ পুলিশকে জানিয়েছেন, স্ত্রীকে খুন করে পালিয়ে যাওয়ার পর নিজের চেহারা পরিবর্তন করতে তিনি দিনের বেশিরভাগ সময় রোদে থাকতেন, যে কারণে তার ফর্সা রং কালো হয়ে যায়। সেই সাথে তিনি মুখে বড় দাড়ি-গোঁফ রেখেছিলেন যাতে পুলিশ বা অন্য কেউ তাকে চিনতে না পারে।

পিএসএস