এটা শরবত না, ওয়াসার পানি! (ভিডিও)

ঢাকা, ১৮ জুলাই, ২০১৯ | 2 0 1

এটা শরবত না, ওয়াসার পানি! (ভিডিও)

তাসলিমুল আলম তৌহিদ ৬:৩২ অপরাহ্ণ, মে ১৬, ২০১৯

ছবিতে কাঁচের গ্লাসের এই পানি দেখে যে কেউ ভাবতে পারেন এটা অরেঞ্জ জুস কিংবা বেলের শরবত! হয়তো ইফতারে খাওয়ার জন্য তৈরি করা হচ্ছে। কিন্তু আসলে কি এটা অরেঞ্জ জুস? না। এটা হচ্ছে ঢাকা ওয়াসার পানি!

এই পানি রাজধানীর কদমতলীর পাটেরবাগের দক্ষিণ দনিয়া এলাকায় সরবরাহ করছে ওয়াসা। ওই এলাকার অধিকাংশ বাড়িতে মিলছে ব্যবহার অযোগ্য এ ধরনের নোংরা পানি।

বুধবার দুপুরে সরেজমিনে কদমতলী এলাকায় ঘুরে দেখা গেছে, প্রায় প্রত্যেক বাড়িতেই পানির সংকট চরমে। আর যেটুকু সময় পানি সরবরাহ করা হয়, তার রঙ ওই কমলালেবুর মতো। তাও নোংরা ও দুর্গন্ধযুক্ত।

তবে, সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা দক্ষিণ দনিয়া এলাকায়। সেখানকার বাসিন্দাদের দুর্ভোগের শেষ নেই পানি নিয়ে। পানি নিয়ে সংগ্রাম যেন তাদের নিত্যদিন।

রোজার সময় খাবার পানির জন্য তাদের ভরসা দূরের ডিপ টিউবওয়েল কিংবা মসজিদের পানি। আর যাদের একটু সামর্থ আছে তারা জার কিংবা বোতলজাত পানি কিনে ব্যবহার করেন।

দক্ষিণ দনিয়া এলাকায় ‘ডলির বাড়ি’ নামক বাড়িতে ভাড়া থাকেন জনৈক আবুর কালাম। পানির কি অবস্থা দেখাতে তিনি এই প্রতিবেদককে নিয়ে যান তার বাসায়।

বাসার ওয়াশরুমে গিয়ে পানি ট্যাপ ছাড়তেই চমকে ওঠার মতো অবস্থা। ট্যাপ দিয়ে বের হচ্ছে কমলা রঙের পানি! যা দেখতে একেবারে অরেঞ্জ জুসের মতো। আবার যে কেউ বেলের শরবতও ভাবতে পারেন।

তবে, কমলা রঙের এই পানি যেমন নোংরা তেমনি দুর্গন্ধ।

আবুল কালাম বলেন, গত দেড় বছর ধরে এই নোংরা পানি আসছে। এই পানি খাওয়াও যায় না, রান্না-বান্নাও করা যায় না। কাপড়-চোপড় পরিষ্কার করলেও তা নষ্ট হয়ে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, আমাদের এদিকে অধিকাংশ বাড়ির পানির রঙ নোংরা ও দুর্গন্ধ। তাই দূর থেকে ডিপ টিউবওয়েল কিংবা মসজিদের পানি নিয়ে এসে খাই। একাধিকবার নোংরা পানির বিষয়ে অভিযোগ করেছি, কোনো কাজ হয়নি।

স্থানীয় একটি মসজিদের সামনে এক বাড়িওয়ালার কাছে তার বাড়ির পানির অবস্থা কেমন জানতে চাইলে এই প্রতিবেদককে তিনি রাস্তার ড্রেনের পানি দেখিয়ে বলেন, এখানে যে পানি দেখতে পারছেন, আমার বাড়িতেও একই পানি।

সরেজমিন ঘুরে আরো একটি বিষয় দেখা গেছে যে, এই এলাকায় বেশ কিছু বাড়ির রঙও হলুদে আকার ধারণ করেছে।

বাড়ির রঙগুলো এমন হয়ে যাওয়ার কারণ জানতে চাইলে আবদুল মানিক নামের একটি বাড়ির কেয়ারকেটার পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, এই দেখেন আমাদের বাড়ির রঙও হলুদ হয়ে গেছে। ট্যাংক প্রতিদিন ধোয়ার পরেও লাভ হয় না। বাড়িতে থাকার মতো অবস্থা নেই।

তিনি বলেন, খাওয়াতো দূরে থাক, এই পানি কোনো কাজে ব্যবহার করা যায় না। এ কারণে ভাড়াটিয়াও থাকতে চায় না।

মানিক বলেন, ওয়াসার লোকদেরকে বললে বলে দেখতেছি, তারপর আর খোঁজ থাকে না। শুধু এই বাসায় না, আশপাশের সব বাসায় একই অবস্থা।

তবে, খোঁজ নিয়ে দেখা গেছে, কিছু কিছু বাড়িতে আবার পরিষ্কার পানিও আসছে।

এব্যাপারে দক্ষিণ দনিয়ার পাটেরবাগ এলাকার বাসিন্দাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, সম্প্রতি একটি নতুন লাইন স্থাপন করেছে ঢাকা ওয়াসা। নতুন লাইনে পরিষ্কার পানি আসছে, আর পুরনো লাইনে নোংরা পানি আসছে। অবশ্য নতুন লাইনের সংযোগ এখনো সকলে পায়নি। তবে, নতুন লাইনের পানিও পর্যাপ্ত পাচ্ছে না।

এবিষয়ে এক বাড়ির মালিক শহীদুল্লাহ পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, নতুন লাইনে পানির রঙের কোনো সমস্যা নেই। সমস্যা হচ্ছে পানি নিয়মিত পাচ্ছি না।

তিনি বলেন, পনি না পেয়ে ওয়াসার সাথে যোগাযোগ করলে বলে লাইনে সমস্যা, আজকে মেশিন নষ্ট- নানা অজুহাত দিয়ে থাকে।

ছবি ও ভিডিও: ওসমান গনি

টিএটি/এসবি

 

রাজধানী: আরও পড়ুন

আরও