প্রগতি সরণিতে আন্দোলনকারীদের একাংশের মানববন্ধন

ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৫ এপ্রিল ২০১৯ | ১২ বৈশাখ ১৪২৬

প্রগতি সরণিতে আন্দোলনকারীদের একাংশের মানববন্ধন

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৫:০৩ অপরাহ্ণ, মার্চ ২১, ২০১৯

প্রগতি সরণিতে আন্দোলনকারীদের একাংশের মানববন্ধন

আবরার আহমেদ চৌধুরীর মৃত্যুর প্রতিবাদে এবং নিরাপদ সড়কের দাবিতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের একটি অংশ আজ বৃহস্পতিবারও রাজপথে আন্দোলন করেছেন।

এদিন দুপুর ১২টার দিকে তারা রাজধানীর প্রগতি সরণির যমুনা ফিউচার পার্কের সামনের সড়কে মানববন্ধন করেছেন।

এর আগে বেলা ১১টার দিকে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব প্রফেশনালস (বিইউপি), ইউনাইটেড ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশ (ইউআইইউ) এবং আমেরিকান ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি বাংলাদেশের (এআইইউবি) শতাধিক শিক্ষার্থী প্রগতি সরণিতে বসুন্ধরা গেইটে জড়ো হয়।

এসময় পুলিশ তাদের চলে যেতে অনুরোধ করে। পুলিশের সঙ্গে আলোচনার পর ওই শিক্ষার্থীরা যমুনা ফিউচার পার্কের সামনে সড়কের পাশে মানববন্ধনে দাঁড়ান।

এ সময় তাদের হাতে ছিল জাতীয় পতাকা।

মানববন্ধনে বক্তারা আবরার আহমেদ চৌধুরীর মৃত্যুর জন্য দায়ী বাসচালকের মৃত্যুদণ্ড এবং সড়কে নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানান।

বিকেল সাড়ে ৩টার দিকে তারা কর্মসূচি শেষে করেন।

এসময় বিইউপির শিক্ষার্থী ফামিন চৌধুরী সাংবাদিকদের বলেন, নিরাপদ সড়কের আট দফা দাবিতে আমরা একাত্মতা ঘোষণা করেছি। মেয়র সাত দিন সময় নিয়েছেন। এ সময়ের মধ্যে আমাদের দাবিগুলোর বাস্তবায়ন হচ্ছে কি না সেটা আমরা দেখব।

তিনি বলেন, রোববার থেকে আমরা আবারও মানববন্ধন করব। সড়কে শৃঙ্খলা আনতে আমরা ট্রাফিক পুলিশকে সহযোগিতা করব।

মঙ্গলবার যমুনা ফিউচার পার্কের সামনের সড়কে সু-প্রভাত কোম্পানির একটি বাসের চাপায় নিহত হন বিইউপির আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিভাগের প্রথম বর্ষের ছাত্র আবরার আহমদ চৌধুরী।

এ ঘটনার পর পরপরই সেখানে অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভ শুরু করে বিইউপির শিক্ষার্থীরা। বুধবার সেই বিক্ষোভ ছড়িয়ে পড়ে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায়। অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরাও নিরাপদ সড়কের দাবিতে সংহতি জানিয়ে বিক্ষোভে যোগ দেয়।

ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম ও ঢাকার পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া বুধবার বসুন্ধরা গেইটে গিয়ে সেখানে আবরারের নামে একটি ফুটব্রিজের ভিত্তিফলকও উন্মোচন করেন, যা ছিল আন্দোলনকারীদের অন্যতম দাবি।

পরে শিক্ষার্থীদের ১০ সদস্যের একটি প্রতিনিধি দল মেয়রের সঙ্গে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন কার্যালয়ে গিয়ে বৈঠকে বসে।

পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়াও বৈঠকে অংশ নেন।

বৈঠক শেষে তারা আগামী ২৮ মার্চ পর্যন্ত কর্মসূচি স্থগিত ঘোষণা করেন।

কিন্তু এই সিদ্ধান্তে আপত্তি জানিয়েছে বিক্ষোভকারীদের একাংশ আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার পক্ষে ঘোষণা দেন।

আজকের মানববন্ধনে আন্দোলন স্থাগিতকারীদের কাউকে দেখা যায়নি।

ওএস/এসবি