ক্লু-লেস হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটনের দাবি পিবিআইয়ের

ঢাকা, ১৯ আগস্ট, ২০১৯ | 2 0 1

ক্লু-লেস হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটনের দাবি পিবিআইয়ের

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৮:২৬ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১০, ২০১৯

ক্লু-লেস হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটনের দাবি পিবিআইয়ের

তিন বছর আগে ২০১৫ সালের ১১ অক্টোবর রাজধানীর কদমতলী এলাকায় সংঘটিত ক্লু-লেস রাসেল (২২) হত্যা মামলার রহস্য উদঘাটনের দাবি করেছে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

ওই হত্যাকাণ্ডের প্রধান আসামি সজল ওরফে পিচ্চি সজল (২২) ও মো. হোসেন বাবু ওরফে হুন্ডা বাবু (২৫)কে গ্রেফতার করার খবরও জানিয়েছে পিবিআই ঢাকা মেট্রো (উত্তর)।

গ্রেফতার সজল বাগেরহাটের মোরলগঞ্জের আমতলী এলাকার কামাল হোসেনের ছেলে ও বাবু শ্যামপুরের ফরিদাবাদ এলাকার ব্যাংক কলোনির মোজাম্মেল হোসেনের ছেলে। তাদের কাছ থেকে হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ২টি চাকু উদ্ধার করা হয়।

রোববার বিকালে এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে পিবিআই এই তথ্য জানায়।

গ্রেফতারদের জিজ্ঞাসাবাদে পাওয়া তথ্যের ভিত্তিতে পিবিআই জানায়, নিহত রাসেলের বাড়ি খুলনা জেলার রূপসা থানা এলাকায়। গ্রেফতার আসামি সজলও রাসেলের গ্রামেই বিয়ে করে, সেখানেই দুইজনের পরিচয় হয় এবং উভয়ের মধ্যে সু-সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সজল ঢাকার কদমতলী এলাকায় বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতেন। তিনি ভুক্তভোগী রাসেলকে ঢাকায় টায়ারের ফ্যাক্টরিতে চাকরি দেওয়ার কথা বলে ঢাকায় নিয়ে আসেন।

ঢাকায় আসার পরে চাকরি দেওয়ার কথা বলেও চাকরি না দেওয়ায় তাদের মধ্যে মনোমালিন্য ও বাকবিতণ্ডা হয়। পরে পূর্ব-পরিকল্পনা অনুযায়ী ইয়াবা সেবন শেষে আসামি সজল ও বাবু তাদের কোমরে থাকা চাকু দিয়ে এলোপাথাড়িভাবে পারভেজ ও রাসেলকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। সজল ও বাবুর বিরুদ্ধে বিভিন্ন থানায় বেশ কয়েকটি মামলা রয়েছে বলেও জানিয়েছে পিবিআই।

প্রসঙ্গত, ২০১৫ সালের ১১ অক্টোবর রাত ১১টায় কদমতলী থানার বড়ইতলা মোড়ে কে বা কারা রাসেল ও পারভেজকে ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে সেখানে চিকিৎসারত অবস্থায় রাসেল মারা যায়।

কিন্তু কি কারণে এবং কারা রাসেলকে হত্যা করলো সে সর্ম্পকে কোন তথ্য পাওয়া যায়নি। তবে স্থানীয়ভাবে লোকমুখে প্রচার হতে থাকে যে রাসেল ছিনতাইকারীর ছুরিকাঘাতে গুরুতর আহত হয়ে মারা গেছে। ওই ঘটনায় রাসেলের মা রাশিলা বেগম (৪০) বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে কদমতলী থানায় মামলা করে।

পিএসএস/এসবি

 

রাজধানী: আরও পড়ুন

আরও