চিড়িয়াখানার প্রবেশ ফি বাড়ল

ঢাকা, বুধবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৮ | ২৯ কার্তিক ১৪২৫

চিড়িয়াখানার প্রবেশ ফি বাড়ল

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৭:২৪ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ০৪, ২০১৮

চিড়িয়াখানার প্রবেশ ফি বাড়ল

জাতীয় চিড়িয়াখানায় প্রবেশের ফি ৩০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫০ টাকায় নির্ধারণ করা হয়েছে। পাশাপাশি চিড়িয়াখানার সৌন্দর্য ও পরিবেশ রক্ষার স্বার্থে চিড়িয়াখানার ভেতরে ভাড়ায় পিকনিক করার সুযোগ বাতিল করে পিকনিক স্পটগুলো বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

রোববার মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী নারায়ন চন্দ্র চন্দের সভাপতিত্বে জাতীয় চিড়িয়াখানার উপদেষ্টা কমিটির সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

সূত্র জানায়, উৎসব দ্বীপ ও নিঝুম দ্বীপ নামক ২টি পিকনিক-স্পটে যথাক্রমে ১০ ও ৬ হাজার টাকায় এতদিন যে কেউ দিনব্যাপী বনভোজন করার অনুমতি পেতো। কিন্তু তা বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে উপদেষ্টা কমিটি। পাশাপাশি চিড়িয়াখানার পরিবেশের ওপর বিরূপ প্রভাব পড়ায় চিড়িয়াখানার লেকে টিকেট কেটে বড়শিতে মাছ মারা বন্ধ অথবা সীমিত করার পরামর্শও দেয় উপদেষ্টা কমিটি।

সভায় চিড়িয়াখানায় প্রবেশের ফি ৩০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৫০ টাকায় নির্ধারণ করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি চিড়িয়াখানার বাইরের গাড়ি পার্কিংয়ের ফি বাড়ানোর সিদ্ধান্তসহ রিকশা, ভ্যান বা-সাইকেলের প্রচলিত পার্কিং পদ্ধতি বাতিল করা হয়।

এছাড়াও ১১৫টি কার ও ১০টি মিনিবাসের সংকুলানসম্পন্ন একটি বর্ধিত বহিঃপার্কিং নির্মাণেরও সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

সভায় জানানো হয় যে, ঢাকার জাতীয় চিড়িয়াখানাসহ রংপুর চিড়িয়াখানার আধুনিকায়নের জন্য 'মাস্টার প্লান স্ট্রাকচারাল ডিজাইন প্রণয়নসহ ৩৪ কোটি টাকার একটি প্রকল্প হাতে নেয়া হয়েছে। এটি বাস্তবায়িত হলে বর্তমানে বিরাজমান বিভিন্ন সমস্যাসহ জনদুর্ভোগ দূরীভূত হবার পাশাপাশি জাতীয় চিড়িয়াখানাটি বিশ্বে অত্যাধুনিক চিড়িয়াখানার কাতারে নাম লেখাতে সক্ষম হবে।

সভায়, মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী চিড়িয়াখানার বিনোদনধর্মী উদ্দেশ্য-লক্ষের সাথে সংগতিপূর্ণ নয়, এমন সব প্রকল্প ও সিদ্ধান্ত পরিহার করে জনগণ ও পরিবেশবান্ধব প্রকল্প গ্রহণের আহবান জানান।

অত্যাধুনিক চিড়িয়াখানার স্বার্থে সংশ্লিষ্ট অভিজ্ঞতাসম্পন্ন কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বদলি পদ্ধতি বাতিলসহ তাদের বিভিন্ন দেশের উন্নত চিড়িয়াখানা পরিদর্শনের মাধ্যমে অভিজ্ঞতা অর্জনের ওপর জোর দেন।

সভায় অন্যান্যের মধ্যে সংসদ সদস্য কামাল আহমেদ মজুমদার, মন্ত্রণালয়ের সচিব রইছউল আলম মণ্ডল, প্রাণিসম্পর অধিদফতরের ডিজি হীরেশ রঞ্জন ভৌমিক, প্রাণিসম্পদ গবেষণা ইনস্টিটিউটের ডিজি নাথুরাম সরকার, মৎস অধিদপ্তরের ডিজি আবু সাঈদ মোঃ রাশেদুল হক প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

উল্লেখ্য, চিড়িয়াখানার ভবিষ্যত পরিকল্পনা, সার্বিক উন্নয়নসহ গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে সিদ্ধান্ত গ্রহণের অধিকারী ৩২ সদস্যবিশিষ্ট উপদেষ্টা কমিটি বছরে দু’বার সভার মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকে। ২০১৪ সালে গঠিত উপদেষ্টা কমিটি পুনর্গঠন করে ২৪ অক্টোবর নতুন কমিটি গঠন করা হয়, এটিই তার প্রথম সভা।

জেডএস/এএসটি