বাজারে নতুন চালে স্বস্তি

ঢাকা, রবিবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৮ | ৮ আশ্বিন ১৪২৫

বাজারে নতুন চালে স্বস্তি

পরিবর্তন প্রতিবেদক ৫:০৫ অপরাহ্ণ, মে ২৭, ২০১৮

বাজারে নতুন চালে স্বস্তি

নতুন বোরো ধানের চাল আসায় রাজধানীর বাজারে স্বস্তি ফিরে এসেছে। পুরানো চালের দাম বেশি থাকলেও নতুন চাল বস্তা প্রতি ২৫০ টাকা করে কম দামে বিক্রি হচ্ছে। রোববার রাজধানীর কারওয়ান বাজারে পাইকারি ও খুচরা বিক্রিতাদের সাথে কথা বলে এ তথ্য পাওয়া গেছে।

রোববার দুপুরে কারওয়ান বাজারে পাইকারি চাল বিক্রিতাদের সাথে কথা বলে জানা যায়, বোরো মৌসুমের নতুন মিনিকেট চালের বস্তা (৫০ কেজি) বিক্রি হচ্ছে ২৫০০ থেকে ২৬০০ টাকা করে, যার কেজি প্রতি দাম আসে ৫০ থেকে ৫২ টাকা। আর পুরান মিনিকেট চালের বস্তা বিক্রি করছে ২৭০০ থেকে ২৭৫০ টাকা করে, যার কেজি প্রতি দাম আসে ৫৪ থেকে ৫৬ টাকা।

এদিকে, মিনিকেট চাল কারওয়ান বাজারে খুচরা বিক্রিতারা বিক্রি করছে, পুরানোটা কেজি প্রতি ৬০ থেকে ৬২ টাকা। আর নতুনটা বিক্রি করছে ৫৪ থেকে ৫৫ টাকা করে।

বাজারে বিআর আঠাশ চাল পুরানোটা পাইকারি বস্তা প্রতি বিক্রি করছে ২১০০ থেকে ২১৫০ টাকা করে। আর নতুনটা বস্তা প্রতি ১৯৫০ থেকে ২০০০ টাকা করে বিক্রি করছে। আর খুচরা বাজারে নতুন আঠাশ চাল কেজি প্রতি ৪৪ থেকে ৪৫ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। আর পুরানোটা ৪৭ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে।

পুরানো চালের দাম বেশির কারণ জানতে চাইলে উজ্জ্বল রাইস এজেন্সির মালিক সোহেল পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, নতুন চালগুলো গড়ে প্রায় ২০০ টাকা করে কম দামে পাচ্ছি। আর পুরানো চালগুলো যখন কিনেছিলাম, বেশি দামেই কেনা ছিল। কাজেই লস করে তো আর বিক্রি করা যায় না। তাই পুরানো চাল আগের রেটেই বিক্রি করছি।

কারওয়ান বাজারে নাজিরশাইল চাল পাইকারি বাজারে বস্তা প্রতি প্রকারভেদে ২৫০০ টাকা থেকে ৩০০০ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। আর খুচরা মার্কেটে কেজি প্রতি ৫৮ থেকে ৬২ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে। মোটা চাল পাইকারি ইন্ডিয়ান বিক্রি হচ্ছে (গুটি ও স্বর্ণা) মানভেদে ১৮৫০ থেকে ১৯০০ টাকা করে। আর দেশি মোটা চাল বিক্রি হচ্ছে ২০০০ টাকা করে।

খুচরা মার্কেটে ইন্ডিয়ান মোটা চাল কেজি প্রতি ৩৮ থেকে ৪০ টাকা, আর দেশি ৪০ থেকে ৪২ টাকা করে বিক্রি হচ্ছে।

কুমিল্লা রাইচ এজেন্সির মালিক স্বপন পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, চালের দাম অধিকাংশই কম আছে। নতুন চাল আসায় আরো কমে গেছে। তবে চিনিগুড়া চালের দাম একটু বেড়ে গেছে।

বাজারে চিনিগুড়া চালের দাম খোঁজ নিয়ে দেখা যায়, পাইকারি বাজারে সপ্তাহখানেক আগে বস্তা প্রতি ৪০০০ থেকে ৪০৫০ টাকা বিক্রি হলেও এ সপ্তাহে ২০০ টাকা করে বেড়ে গেছে। বিক্রি হচ্ছে ৪২০০ থেকে ৪২৫০ টাকা করে বস্তা।

কারওয়ান বাজারে কেনাকাটা করতে আসা ফারুক নামের এক শিক্ষার্থী পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, নতুন চালের দাম কম একটু নিচ্ছে। তবে পুরানো চালের দাম বেশিই আছে।

কারওয়ান বাজারে খুচরা বিক্রিতা বিসমিল্লাহ্‌ স্টোরের দোকানি আব্দুল গফফার পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, আমরা পাইকারি বাজার থেকে বেশি দামে ক্রয় করি। যার কারণে বেশি রাখতে হয়। তবে চালের দাম একদম স্বাভাবিক রয়েছে।

কারওয়ান বাজারে খুচরা বিক্রিতা সুলতান পরিবর্তন ডটকমকে বলেন, রমজানের প্রথম দিকে দাম বাড়তির দিকে থাকলেও এখন বাজারের অবস্থা মোটামুটি স্বাভাবিক আছে।

টিএটি/এসবি